• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    আর্সেনালের বিপক্ষে জয়ে ভাগ্যটাও সহায় হল সিটির

    প্রিমিয়ার লিগের নতুন মৌসুমে রীতিমত অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে ম্যানচেস্টার সিটি। একের পর এক জয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষস্থানটা অনেকদিন ধরেই দখল করে নিয়েছে তারা। দুর্দান্ত ফর্মে থাকা পেপ গার্দিওলার ম্যানচেস্টার সিটির সামনে তেমন সুবিধা করতে পারেনি আর্সেন ওয়েঙ্গারের আর্সেনাল। ভাগ্যটা যে সাহসীর পক্ষে যায় সেটারও প্রমাণ মিলল আজকের ম্যাচে।

    আর্সেনালকে আজ ৩-১ গোলে হারিয়েছে 'সিটিজেন'রা। সিটির হয়ে গোল করেছে কেভিন ডি ব্রুইন, সার্জিও আগুয়েরো ও গ্যাব্রিয়েল হেসুস। আর্সেনালের একমাত্র গোল এসেছে স্ট্রাইকার আলেকজান্ডার লাকাজেতের পা থেকে।

     

    অবশ্য ব্যবধানটা আরও বড় হতে পারতো দু'দলের মধ্যে। দুই উইঙ্গার লিরয় সানে এবং রহিম স্টার্লিং বেশ কিছু সহজ সুযোগ হাতছাড়া করায় তা আর হয়ে উঠেনি। নিজেদের মাঠ ইতিহাদে শুরু থেকেই আর্সেনাল রক্ষণভাগকে চেপে ধরেছিলেন আগুয়েরো-ডি ব্রুইনরা। ম্যাচে এগিয়ে যেতেও খুব একটা অপেক্ষায় করতে হয়নি গার্দিওলাকে। ১৯ মিনিটে ফার্নান্দিনহোর সাথে 'ওয়ান-টু' করে বাঁ-পায়ের নিখুঁত শটে আর্সেনাল গোলরক্ষক পিটার চেককে পরাস্ত করেন ডি ব্রুইন। প্রথমার্ধে একাধিকবার প্রতি আক্রমণে দারুণ কিছু সুযোগ পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ হন আগুয়েরোরা। সিটির মিসের মহড়ায় প্রথমার্ধের অন্তিম মূহূর্তে সমতাসূচক গোলটা প্রায় পেয়েই গিয়েছিল আর্সেনাল। মিডফিল্ডার অ্যারন রামসের শট সিটি গোলরক্ষক এডারসনকে রুখে দেওয়ায় সে যাত্রায় বেঁচে যায় 'সিটিজেন'রা।

     

     

    দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ব্যবধান দ্বিগুণ করে সিটি। ৪৯ মিনিটে স্টার্লিংকে ডিবক্সে ফেলে দিয়ে সিটিকে পেনাল্টি উপহার দেন নাচো মনরেয়াল। ১২ গজ থেকে চেককে পরাস্ত করতে ভুল করেননি গত সপ্তাহেই সিটির সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়া আগুয়েরো। ম্যাচে ফেরার আশায় লাকাজেতকে নামিয়ে দেন ওয়েঙ্গার। ফ্রেঞ্চ স্ট্রাইকারের শুরুর একাদশে না থাকাটাই ছিল অবাক করার মতো। মাঠে নামার মিনিট সাতেক পরই গোল করে ওয়েঙ্গারের ভুলটা চোখে আঙুল দিয়েই দেখিয়ে দিয়েছেন লাকাজেত। ৬৫ মিনিটে রামসের পাস থেকে এডারসনকে পরাস্ত করেন লাকাজেত।

    এর পর খেলাটা জমে উঠেছিল দুই দলের আক্রমণ-পালটা আক্রমণে। আর্সেন ওয়েঙ্গারের ম্যাচে ফেরার আশাটা অবশ্য শেষ পর্যন্ত রেফারির ভুলেই শেষ হয়েছে। ৭৪ মিনিটে ডেভিড সিলভার পাস থেকে ম্যাচে সিটির ৩য় গোল করেন এই হেসুস। কিন্তু বল পাওয়ার সময় সিলভা ছিলেন অফসাইডে, আর্সেনাল ডিফেন্ডারও রেফারির বাঁশির আশায় একরকম খেলা ছেড়েই দিয়েছিলেন। কিন্তু লাইন্সম্যানের চোখ এড়িয়ে যাওয়ায় দুই গোলের লিড ঠিকই ফিরে পায় ম্যান সিটি। এক গোল শোধ দেওয়ার পর ম্যাচে ফিরে আসার ইঙ্গিত দিচ্ছিল আর্সেনাল। হেসুসের গোলের পর সেটা একরকম থেমেই যায়। আর সিটিও নিশ্চিত করে ফেলে আরও একটি জয়। 

     

    আজকের জয়ে লিগে ১১ ম্যাচ পরও অপরাজিত গার্দিওলার দল। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সাথে পয়েন্টের ব্যবধানটা এখন বেড়ে দাঁড়ালো ৮-এ। আজ চেলসিকে হারাতে না পারলে শিরোপাদৌড়ে আরও খানিকটা পিছিয়ে পড়বে 'রেড ডেভিল'রা।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন