• প্রীতি ম্যাচ
  • " />

     

    • প্রীতি ম্যাচ

    নেইমারের ইনজুরিতে ঢাকা পড়ল ব্রাজিলের জয়

    মাস দুয়েক আগে এল সালভাদরের বিপক্ষে অভিষেকেই করেছিলেন জোড়া গোল। এভারটনের প্রথম ব্রাজিলিয়ান হিসেবে জাতীয় দলে জায়গা করে নেওয়ার যৌক্তিকতা সেদিনই প্রমাণ করেছিলেন রিচার্লিসন। আজ ক্যামেরুনের বিপক্ষে তাই সুযোগ পেয়েছিলেন তরুণ এই উইঙ্গার। নেমেই আবারও বাজিমাত করলেন তিনি। রিচার্লিসনের গোলেই ক্যামেরুনকে ১-০ গোলে হারাল ব্রাজিল। জিতলেও খুব একটা স্বস্তিতে থাকতে পারছে না 'সেলেসাও'রা। কারণ ইনজুরিতে পড়ে ৮ মিনিটেই মাঠ ছাড়তে হয়েছে নেইমারকে। 

    অভিষেকে এল সালভাদরের মত অবশ্য আজ শুরু থেকেই মূল একাদশে ছিলেন না রিচার্লিসন। ৮ মিনিটে ইনজুরিতে পড়া নেইমারের বদলে তাকেই নামিয়ে দেন ব্রাজিল কোচ তিতে। ব্রাজিলের চেয়েও হয়ত নেইমারের ইনজুরিটা বেশি ভোগাবে প্যারিস সেইন্ট-জার্মেইকে। সপ্তাহখানেক পরই লিভারপুলের সাথে ইউয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। পিএসজির জন্য আরও দু:সংবাদ হয়ে আসে উরুগুয়ের বিপক্ষে কিলিয়ান এমবাপ্পের ইনজুরি। তবে নেইমারকে হারিয়েও দমে যায়নি ব্রাজিল। উইলিয়ান, রবার্তো ফিরমিনোদের প্রেসিংয়ে খেই হারিয়ে ফেলতে থাকে ক্যামেরুনের রক্ষণভাগ। ব্রাজিলের হয়ে প্রথম সুযোগটা পেয়েছিলেন ফিরমিনোই। কিন্তু ২২ মিনিটে ক্যামেরুন গোলরক্ষক ওনানাকে একা পেয়েও বল জালে পাঠাতে পারেননি লিভারপুল ফরোয়ার্ড। প্রথমার্ধের বাকিটা সময় ক্যামেরুনের ডিফেন্ডারদের নাকানিচুবানি খাওয়ালেও ওনানাকে পরাস্তই কর‍তে পারছিলেন না উইলিয়ানরা। গোছানো আক্রমণ, দূরপাল্লার শট, 'পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক' রেঞ্জ থেকে হেড- সব দিক দিয়েই ওনানা যেন অপ্রতিরোধ্য। গোলরক্ষকের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে খেলা যখন গোলশূন্য প্রথমার্ধের দিকে এগুচ্ছিল, তখনই বাধ সাধেন রিচার্লিসন। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে উইলিয়ানের ক্রস থেকে রিচার্লিসনকে মার্ক করতে পারেননি ক্যামেরুন ডিফেন্ডার গাইতান বং। এবার আর ব্রাজিলকে খালি হাতে ফেরাতে পারেননি ওনানা। দুর্দান্ত হেডে গোল করে ঠিকই ব্রাজিলকে লিড এনে দেন রিচার্লিসন।

     

     

    কিছুটা নিষ্প্রাণ এক প্রথমার্ধের পর দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই যেন জ্বলে উঠে দুই দল। প্রথমার্ধে ব্রাজিলের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় ছিলেন উইলিয়ান।  রিচার্লিসনের গোলটাও হয়েছিল তার ক্রস থেকেই। ৪৯ মিনিটে তার ক্রসেই ব্যবধানটা আরেকটু হলেই দ্বিগুণ করতে পারত ব্রাজিল। কিন্তু উইলিয়ানের জোরাল ক্রসে পা ছোঁয়াতে পারেননি রিচার্লিসন বা ফিরমিনোর বদলি হিসেবে নামা গ্যাব্রিয়েল হেসুসের কেউই। এর মিনিট চারেক পর ম্যাচে ফেরার দারুণ এক সুযোগ পেয়েছিল ক্যামেরুন। ৫৩ মিনিটে ডানপ্রান্ত থেকে টোকো একাম্বির ক্রস লাইন ছেড়ে এগিয়ে এসেও ধরতে পারেননি ব্রাজিলের গোলরক্ষক এডারসন। বল পেয়ে যান বাহোকেন। কিন্তু ফাঁকা গোলপোস্ট পেয়েও বল বাইরে মারেন তিনি। বাহোকেনের ভুলের জন্য আরেকটু হলেই চড়া মূল্য দিতে হত ক্যামেরুনকে। কিন্তু ৫৪ মিনিটে হেসুসের শট বারপোস্টে প্রতিহত হলে সে যাত্রায় বেঁচে যায় আফ্রিকার দলটি। আক্রমণ, পালটা আক্রমণের জমে উঠা দ্বিতীয়ার্ধে দুই দলই সুযোগ পেয়েছিল বেশ, কিন্তু গোলের আর দেখা মেলেনি।

     

     

    এজন্য অবশ্য ভাগ্যকে দুষতেই পারে ব্রাজিল। ৫৪ মিনিটে হেসুসের মত ৬৮ মিনিটে আর্থার মেলোর জোরাল শট প্রতিহত হয় ক্যামেরুনের ক্রসবারে। ৮৪ মিনিটে অ্যালানের শট ফিরিয়ে দেন ওনানার বদলি হিসেবে নামা ক্যামেরুন গোলরক্ষক ওন্দোয়া। ৮৬ মিনিটে দুর্দান্ত 'ডাবল সেভ'-এ হেসুস এবং রিচার্লিসনকে ফিরিয়ে দেন তিনি। ভাগ্য ব্রাজিলকে যেমন ভুগিয়েছে, তেমনি অন্তিম সময়ে ফিরেও তাকিয়েছে তাদের দিকে। দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে জুয়ার হেড এডারসনকে পরাস্ত করলেও প্রতিহত হয় ব্রাজিল গোলের বারপোস্টে। শেষ পর্যন্ত বৃথাই যায় ক্যামেরুনের গোলে ওনানা এবং ওন্দোয়ার বীরত্ব। রিচার্লিসনের একমাত্র গোলেই জয় নিয়ে ফেরে ব্রাজিল।