• ইংল্যান্ড-ভারত সিরিজ
  • " />

     

    • ইংল্যান্ড-ভারত সিরিজ

    ক্রিকেটের সবচেয়ে পুরনো পুরস্কারটা পেলেন কোহলি

    উইজডেনের বর্ষসেরা ক্রিকেটারের ক্ষেত্রে প্রাধান্য পান সাধারণত ইংলিশ ক্রিকেটাররাই, তবে বিবেচনায় আসে ইংল্যান্ডের মাটিতে কোনও বিদেশী ক্রিকেটারের দারুণ পারফরম্যান্সও। গত বছর ইংল্যান্ডের মাটিতে বিরাট কোহলির অবিশ্বাস্য পারফরম্যান্সের সুবাদেই এবার এই তালিকায় নাম এসেছে তাঁরও। উইজডেনের বর্ষসেরা পাঁচজন ক্রিকেটারের তালিকায় থাকার পাশাপাশি কোহলি টানা তৃতীয়বারের মতো হয়েছেন লিডিং ক্রিকেটার। কোহলিই প্রথম ক্রিকেটার যিনি টানা তৃতীয়বার এই পুরস্কার জিতলেন।

    ২০০৩ সাল থেকে উইজডেন প্রতি বছরই দিয়ে আসছে লিডিং ক্রিকেটারের পুরস্কার। ২০১৭ ও ২০১৮ সালে পরপর দুইবার এই পুরস্কার জেতেন কোহলি। ২০১৮ সালটা দারুণ কেটেছে ভারতীয় অধিনায়কের। সব ফরম্যাট মিলিয়ে কোহলির রান ছিল ২৭৩৫, গত ৬৮.৩৭, সেঞ্চুরি করেছেন ১১টি! রানের দিক দিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা ইংল্যান্ডের জো রুট পিছিয়ে ছিলেন ৭০০ রানেরও বেশি। অধিনায়ক হিসেবেও কোহলি ছিলেন দারুণ সফল। প্রথম ভারতীয় অধিনায়ক হিসেবে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকায় সিরিজ জিতেছেন তিনি।

    লিডিং ক্রিকেটার বেছে নিতে তাই খুব বেশি বেগ পেতে হয়নি উইজডেনকে। তবে সেরা পাঁচজনের তালিকায় কোহলিও যে আছেন, সেটার বড় কারণ গত বছর ইংল্যান্ডের মাটিতে তাঁর পারফরম্যান্স। ভারত ৪-১ এ টেস্ট সিরিজ হারলেও কোহলি ৫৯.৩০ গড়ে করেছেন ৫৯৩ রান, সেঞ্চুরি করেছিলেন এজবাস্টন ও ট্রেন্টব্রিজে। উইজডেন সম্পাদক লরেন্স বুথ বলছেন, কোহলি যোগ্য ক্রিকেটার হিসেবেই আছেন সেরা পাঁচের তালিকায়, ‘ইংল্যান্ডে তার দুর্দান্ত পারফরম্যান্স এই পুরস্কার জয়ে বড় ভূমিকা রেখেছে। ভারত হারলেও কোহলি ব্যাট হাতে ছিলেন অবিশ্বাস্য। ২০১৪ সালে ইংল্যান্ডের মাটিতে ফর্ম খারাপ থাকলেও এবার সেটা হতে দেননি। পুরো বছরই তার ব্যাটিং ছিল দুর্দান্ত, বিশেষ করে ইংল্যান্ডের মাটিতে। ওয়ানডেতে তিনি নিজেকে অন্য মাত্রায় নিয়ে গেছেন।’

     

     

    বর্ষসেরা ক্রিকেটারদের তালিকায় কোহলির সাথে আছেন ইংল্যান্ডের জস বাটলার, স্যাম কারান, সারের চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ী অধিনায়ক ররি বার্নস ও ইংল্যান্ডের মহিলা ক্রিকেট দলের ট্যামি বারমন্ট। ভারতীয় মহিলা দলের দলের স্মৃতি মানধানা মহিলাদের বিভাগে লিডিং ক্রিকেটার হয়েছেন। সব ফরম্যাট মিলিয়ে তার রান ছিল ১২৯১। টানা দ্বিতীয়বারের মতো টি-টোয়েন্টির লিডিং ক্রিকেটার হয়েছেন আফগানিস্তানের রশিদ খান। কোহলির মতো নন-ইংলিশ ক্রিকেটার হিসেবে ২০১০ সালের উইজডেনের সেরা পাঁচে জায়গা করে নিয়েছিলেন বাংলাদেশের তামিম ইকবাল। ইংল্যান্ড সফরে গিয়ে সেবার লর্ডস ও ওল্ড ট্রাফোর্ডে সেঞ্চুরি করেছিলেন তামিম। 

     

    উইজডেনের এবারের প্রচ্ছদে জায়গা পেয়েছেন সাবেক ইংলিশ অধিনায়ক অ্যালেস্টার কুক ও পেসার জেমস অ্যান্ডারসন।