• লা লিগা
  • " />

     

    • লা লিগা

    অচেনা ন্যু ক্যাম্পে গেটাফেকে হারাল বার্সেলোনা

    প্রায় লাখ খানেক মানুষ একসঙ্গে খেলা খেলা দেখতে পারেন ন্যু ক্যাম্পে। অর্ধেক ভরা মাঠও তাই খালিই দেখাতে পারে আপনার চোখে। তবে মৌসুমের শেষ ম্যাচে এতোখানি ফাঁকা ন্যু ক্যাম্প শেষ কবে দেখেছিল বার্সেলোনা- সেটা মনে করা কঠিন। লিভারপুলের হারের হতাশাটা তো সহজে কাটার নয়। তাই গেটাফের বিপক্ষে ম্যাচের শুরুটাই করতে হয়েছে ঘরের দলকে দুয়ো শুনে। এমন কোনো কিছুর সঙ্গে অভ্যস্ত নন লিওনেল মেসিরা। সেটা যদিও গেটাফের বিপক্ষে ম্যাচে প্রভাব ফেলল না, ২-০ গোলে জিতেই লা লিগার ন্যু ক্যাম্পে পর্ব সেরেছে বার্সেলোনা।

     

    লিগ জেতা হয়ে গেছে, তাই বার্সাকে গার্ড অফ অনার দিয়ে ম্যাচ শুরু করেছিল গেটাফে। প্রতিপক্ষের অভ্যর্থনা গ্রহণ করতে করতে ন্যু ক্যাম্পের দর্শকেরাও দুয়ো দিয়ে মেসিদের জানিয়ে দিয়েছেন লিভারপুলের কাছে হারের ক্ষতটা এবার সহজেই শুকাবে না তাদের। বার্সার লিগ জেতা হয়ে গেছে, তাদের জন্য নিয়মরক্ষার ম্যাচ। কিন্তু সেরা একাদশটাই নামিয়েছিলেন এর্নেস্তো ভালভার্দে। শুধু গোলরক্ষক মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগানের জায়গায় নেমেছিলেন জ্যাস্পার সিলেসেন। রক্ষণে স্যামুয়েল উমতিতি আর আক্রমণে ইনজুরিতে পড়া লুইস সুয়ারেজের জায়গায় ম্যালকম ছিলেন কেবল নিয়মিতদের বাইরে।

    গেটাফের জন্য ছিল গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলার জন্য লড়ছে তারা এবার। ন্যু ক্যাম্পে তাদের শুরুটাও বলে দিল সেটা। আধ ঘন্টায় তিনবার নিশ্চিত গোলের সুযোগ পেয়েছিল তারা। এর মধ্যে দুইবারই সিলেসেন সামনে গিয়ে গেটাফে বল উড়িয়ে মেরেছে বাইরে। আরেকবার গোল দিলেও, ভিএআরে বাতিল হয়েছে সেটা।

    এরপর আস্তে আস্তে বার্সাও ম্যাচে ফেরে। ৩৮ মিনিটে মেসির ফ্রি কিক থেকে পিকের হেড ঠেকিয়ে দিয়েছিলেন ডেভিড সোরিয়া। রিবাউন্ডে বল পান আর্তুরো ভিদাল। তার গোলেই এগিয়ে যায় বার্সা। খেলার নিয়ন্ত্রণটা আরও ভালোভাবে নেওয়া হয়নি বার্সার সোরিয়ার জন্যই। দুই অর্ধে দুইবার ম্যালকমকে নিশ্চিত গোলবঞ্চিত করেছেন তিনি। লিওনেল মেসিও দ্বিতীয়ার্ধে গোলের কাছ থেকে ফিরেছেন দুইবার। একবার সোরিয়ায় আটকে গেছেন, আরেকবার তার চিপ গোললাইন থেকে ক্লিয়ার করেছিলেন গেটাফে ডিফেন্ডার।

    দ্বিতীয়ার্ধে খুব বেশি কিছু করতে হয়নি সিলেসেনকে। ৭২ মিনিটে একবার এগিয়ে গিয়ে বল ক্লিয়ার করেছিলেন। এছাড়া গেটাফে আর তেমন ঝামেলায় ফেলতে পারেনি বার্সার রক্ষণকে। ইনজুরি সময়ে সার্জি রবার্তোর ক্রস মেসির দিকেই ছুটছিল। সেটা আটকাতে গিয়েই নিজেই গোল করে বসেন গেটাফের মাউরি আরামবারি। আত্মঘাতী গোলে শেষদিকে জয় নিশ্চিত হয় বার্সার।

     

     

    ঘরের মাঠে ১৫ জয়, ১ হার আর বাকি ম্যাচগুলোতে ড্র নিয়ে ন্যু ক্যাম্পে আরও একটি অধ্যায় শেষ করলো বার্সেলোনা। লা লিগায় এখনও এক ম্যাচ বাকি তাদের। আর রয়েছে কোপা ডেল রে এর ফাইনাল। তবে হারে গেটাফের জন্য একটু কঠিন হয়ে গেল হয়ে শেষ চারে যাওয়ার রাস্তা। ভ্যালেন্সিয়ার সমান ৫৮ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচে আছে তারা, হেড টু হেডে পিছিয়ে।