• কোপা আমেরিকা
  • " />

     

    কিক অফের আগে: সেমিফাইনাল যখন ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার

    কবে, কখন
    ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা
    সেমিফাইনাল, বেলো হরিজন্তে, আগামীকাল ভোর ৬.৩০মিনিট 

    ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা প্রীতি ম্যাচে মানেও যেন বিশেষ কিছু। আর দশটা প্রীতি ম্যাচ থেকে সেটা আলাদা করা যায় সহজেই। দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী, দুই প্রতিবেশি দেশ। ফুটবল তাদের রক্তে মিশে। তারা যখন একে অপরের মুখোমুখি হয় তখন দুই দেশের রেষারেষি স্রোতের টানে ভাসিয়ে দিয়ে যায় কয়েক শ মাইল দূরের বাংলাদেশেও। আর ম্যাচটা যদি হয় সেমিফাইনাল, তাহলে উত্তেজনায় যোগ হয় নতুন ঝাঁঝ। এই কোপাতেই ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচের জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছে এক যুগ!
    এই ম্যাচ তাই ফাইনালের আগে বড় ফাইনাল।

    সেমিফাইনাল, বেলো হরিজন্তে। এই শব্দগুলো ব্রাজিলিয়ানদের কাছে গত পাঁচ বছর ধরে সূচের খোঁচার মতো কষ্ট দিয়ে গেছে শুধু। ব্রাজিলিয়ানদের ২০১৪ বিশ্বকাপে জার্মানির কাছে বড় হারের কষ্ট হয়ত খুব তাড়াতাড়ি ভুলে যাওয়ার নয়। কিন্তু ধামাচাপা দেওয়ার জন্য এর চেয়ে ভালো আর কিছুও হয়ত চাইতে পারত না ব্রাজিল। কোপা আমেরিকার সেমিফাইনালে প্রতিপক্ষ চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনাকে হারালেই, ১২ বছর পর ফাইনালে উঠে যাবে সেলেসাওরা। আর সেটা না হলে ব্রাজিল বেলো হরিজন্তেকে অফিসিয়ালি অপয়া ঘোষণা করে দিলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

    এবারের কোপায় সেমিফাইনাল পর্যন্ত পৌঁছে যাওয়া আর্জেন্টিনা নিজেদের ভাগ্যবানই ভাবতে পারে। গ্রুপপর্ব থেকেই আরেকটি হলে ছিটকে যেতে বসেছিল লিওনেল স্কালোনির দল। কাতার আর ভেনেজুয়েলাকে পর পর দুই ম্যাচে হারিয়ে আর্জেন্টিনা কোচ অবশ্য আশা করছেন সময়মতো আত্মবিশ্বাস ফিরে পেয়েছে তার দল। ওই দুই ম্যাচেও অবশ্য ধুঁকতে হয়েছে আর্জেন্টিনাকে। স্বাগতিক ব্রাজিলকে যে সেভাবে হারানো যাবে না সেটা ভালোভাবেই জানার কথা স্কালোনির। তাকে তাই ভরসা করতে হচ্ছে, সময়মতো দলের সবাই একসঙ্গে জ্বলে উঠবেন- এমন এক মিরাকলের ওপর।

    কোপায় ৪ ম্যাচ খেলে এখনও কোনো গোল হজম করেনি ব্রাজিল। তাদের গোল করতে না পারা নিয়ে সমর্থকদের হতাশা থাকতে পারে, কিন্তু তিতের দলের রক্ষণই তাদেরকে এগিয়ে রাখছে এই ম্যাচেও। গত বিশ্বকাপের পর ১৪ ম্যাচে এখন পর্যন্ত মাত্র দুইবার গোল হজম করেছেন থিয়াগো সিলভারা। আর শেষ ৬ ম্যাচে একবারও প্রতিপক্ষ গোল করতে পারেনি সেলেসাওদের বিপক্ষে। এমন রক্ষণ আর্জেন্টিনার জন্য অশনী সংকেতই।

    বদলে যাওয়া এই আর্জেন্টিনাকে গোল পেতেও ধুঁকতে হচ্ছে বহুদিন ধরেই। এখন পর্যন্ত টুর্নামেন্টে ৫ গোল তাদের। একটি পেনাল্টি থেকে, আরেকটি কর্নার। বাকিগুলোর একটিও ওপেন প্লে থেকে সাজানো কোনো আক্রমণের ফসল নয়। যার ওপর আর্জেন্টিনার ভরসা সেই লিওনেল মেসিও নিজেকে হারিয়ে ফেলেছেন এবার। নিজেই স্বীকার করেছেন, ফর্মটা খারাপ যাচ্ছে তার। আর্জেন্টিনা জানে, ব্রাজিল জানে, মেসি নিজেও জানেন- ব্রাজিলের এই রক্ষণকে তছনছ করে দেওয়ার ক্ষমতা যদি কারও থাকে, তাহলে সেটা লিওনেল মেসিরই আছে। কিন্তু আগের ম্যাচগুলোতে মেসির পারফরম্যান্স সেরকম কিছুর ইঙ্গিত করছে কই?

    তবে আর্জেন্টিনা আশা দেখতে পারে লাউতারো মার্টিনেজ ও সার্জিও আগুয়েরোকে নিয়ে। আগুয়েরো গোল করেছেন একটি, মার্টিনেজ দুইটি। কিন্তু দুইজন মিলে আর্জেন্টিনার আক্রমণের চেহারা কিছুটা ফিরিয়ে এনেছেন। ব্রাজিল হয়ত গোল হজম করেনি এখনও, কিন্তু তাদের রক্ষণকে সেভাবে পরীক্ষাও দিতে হয়নি এখন পর্যন্ত। দল হিসেবে কাগজে কলমে তুলনা করলে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচের ব্যবধান গড়ে দেওয়ার মতো জায়গা বোধ হয় এটাই। ব্রাজিলের রক্ষণ কতোখানি সফল হয়, আর তাদেরকে আর্জেন্টিনা কতোখানি ভোগাতে পারে।

    আর্জেন্টাইনদের পক্ষে নেই ইতিহাসও। ব্রাজিলে কোপা আমেরিকা হয়েছে এর আগে চারবার। প্রতিবারই চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। আর আর্জেন্টিনা ব্রাজিলের মাঠে তাদের বিপক্ষে জয় শূন্য ১৯৯৮ সাল থেকে। কোপা আমেরিকাতে কখনই ব্রাজিলকে তাদের মাঠে হারানো হয়নি আর্জেন্টিনার। একে তো প্রতিপক্ষ দল স্বাগতিক, টুর্নামেন্ট ফেভারিট, তারওপর ইতিহাসের চাপটাও কম নয় মেসিদের জন্য।

    এসব চাপ অবশ্য এতোদিনে গা সওয়া হয়ে যাওয়ার কথা মেসির। গত ৫ কোপার চারটিতে আর্জেন্টিনা খেলেছে ফাইনালে। এবার ব্রাজিলকে হারালে ফাইনালের হ্যাটট্রিক হবে তাদের। আরও একবার জাতীয় দলের হয়ে শিরোপা ছোঁয়ার কাছাকাছি চলে যাবেন মেসি। কিন্তু সেই পথ পাড়ি দিতে হলে এমন কিছু একটাই মেসিদের করতে হবে যেটা এই স্টেডিয়ামের নামই পরিবর্তন করে দিতে পারে! আর্জেন্টিনার সামনে থাকা পাহাড়ের উচ্চতাটা ঠিক ততোখানি।

    ব্রাজিলের জন্য চাপ একটাই, ঘরের সমর্থকদের মন ভরানো। সেটা অবশ্য সহজ কিছু নয়। তবে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে যে কোনো রকম জয়েই সমর্থকেরা খুশি মনে বাড়ি ফিরবেন সেটা নিশ্চিত করেই বলা চলে। ভেনেজুয়েলা, প্যারাগুয়ের বিপক্ষে গোল পেতে সমস্যা হলেও, ব্রাজিল গোল করতে পারবে না এমনটা মনে হয়নি একবারও। প্যারাগুয়ের বিপক্ষেই ব্রাজিলের আক্রমণভাগ গোলে শট করেছে ২৬ বার। এর মধ্যে ৮ বার দুর্দান্ত সেভ করে প্যারাগুয়ের গোলরক্ষক এক ম্যাচে সবচেয়ে বেশি সেভ করার রেকর্ড গড়ে ঢুকে গেছেন ইতিহাসে। ব্রাজিল তীক্ষ্ণ, ব্রাজিল ক্ষুরধার, ব্রাজিল ফরোয়ার্ডদের দরকার তাই কেবল আত্মবিশ্বাস। পেরুর বিপক্ষে দ্রুত সময়ে গোল পেয়ে পরে গুণে গুণে ৫ বার পেরুর বিপক্ষে গোলউৎসব করেছে ব্রাজিল। আর্জেন্টিনার রক্ষণ, গোলরক্ষক দুই দিকেই নড়বড়ে- সেটার সুযোগ নিয়ে ব্রাজিল দ্রুত গোল পেয়ে গেলে জার্মানির ক্ষোভটা আর্জেন্টাইনদের ওপর ঝাড়ার ক্ষমতাও আছে তিতের দলের।

    কোপার কোয়ার্টার ফাইনালে নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষেই সরাসরি ম্যাচ গড়িয়েছে টাইব্রেকারে। সেমিফাইনালে অবশ্য থাকছে এক্সট্রাটাইম। এরপর সেখানেও ফল নির্ধারণ না হলে টাইব্রেকার।  তবে সে পর্যন্ত ম্যাচ গড়ালে সেখানেও ফেভারিট ব্রাজিল। অ্যালিসন তো আছেনই, আর কোপায় টাইব্রেকারে সবচেয়ে সফল দলও ব্রাজিল।

    দলের খবর
    ব্রাজিলের লেফটব্যাক ফিলিপে লুইসের ইনজুরি নিয়ে শঙ্কা আছে কিছুটা। তবে তার জায়গায় অ্যালেক্স সান্দ্রো খেললেও খুব বেশি তারতম্য হওয়ার কথা নয় ব্রাজিলের রক্ষণে। দ্বিতীয় ম্যাচের পর থেকেই ফার্নান্দিনোকে খেলতে পারেননি ইনজুরির কারণে। এবারও তার ফেরার সম্ভাবনা কমই। এই ম্যাচে ফিরছেন কাসেমিরো।

    আর্জেন্টিনায় তেমন ইনজুরি শঙ্কা নেই। তবে যেটা আছে সেটা কোচের দ্বিধা। আগের ম্যাচে জিওভানি লো সেলসো গোল করেছিলেন। তাকে একাদশে ফেরাবেন নাকি বদলি থেকেই নামাবেন সেটা তার সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করছে। চার ম্যাচে তিনবার রাইটব্যাক পজিশনে খেলোয়াড় পরিবর্তন করেছেন স্কালোনি। আগের ম্যাচে হুয়ান ফয়েথ কিছু ভুল করলেও, বেশিরভাগ সময় জুড়ে ভালোই ডিফেন্ড করেছেন।  টটেনহাম ডিফেন্ডারের ওপরই তাই হয়ত ভরসা রাখবেন স্কালোনি আরেকবার। আর পাউলো দিবালার একাদশে শুরু করার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।

    সম্ভাব্য একাদশ আর্জেন্টিনা
    আর্মানি, ফয়েথ, পেতজেলা, অটামেন্ডি, টালিয়াফিকো, পারেদেস, রদ্রিগো ডি পল, আকুনিয়া, মার্টিনেজ, আগুয়েরো, মেসি

    সম্ভাব্য একাদশ ব্রাজিল
    অ্যালিসন, আলভেজ, মার্কিনহোস, সিলভা, সান্দ্রো, আর্থার, কাসেমিরো, কুতিনিয়ো, হেসুস, ফিরমিনো, এভারটন  

    হেড টু হেড
    কোপায় শেষ দুইবার ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ হয়েছিল ২০০৪ ও ২০০৭ সালের ফাইনালে। দুইবারই আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিল ব্রাজিল। শেষ ৬ প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে ব্রাজিলকে হারাতে পারেনি আর্জেন্টিনা। প্রীতি ম্যাচ বাদে ব্রাজিলের বিপক্ষে তাদের শেষ জয় ২০০৫ সালে।

    এবারের টুর্নামেন্টে একমাত্র গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে টিকে আছে এখনও ব্রাজিল। আর কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠা ৮ দলের ভেতর শুধু মাত্র আর্জেন্টিনাই গোল করতে পেরেছে এবার।

    প্যাভিলিয়ন প্রেডিকশন ব্রাজিল ২-০ আর্জেন্টিনা

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন