• আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্ট
  • " />

     

    • আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্ট

    কাবুলিওয়ালা রহমতের 'ভাষা এবং পেসের আশা'

    রহমত শাহর জন্য আজকের দিনটা অন্যরকম। শুধু তার জন্য নয়, আসলে আফগান ক্রিকেটের জন্যই।  এই টেস্টের ফল যা-ই হোক, এই টেস্ট পণ্ড হয়ে যাক- চট্টগ্রামের সঙ্গে রহমত শাহ আর আফগান ক্রিকেটের সম্পর্কটা যে পাকাপাকি হয়ে গেল। অনেক রেকর্ড মুছে যাবে, কিন্তু প্রথমের রেকর্ড মোছার নয়। প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিয়ান হয়ে রহমত তাই ইতিহাসের অংশই হয়ে গেলেন। তবে সংবাদ সম্মেলনে কাবুলিওয়ালা রহমতের ভাষা বোঝার আশা বিসর্জনই দিতে হলো। ভাষান্তরের ট্যাবলেটে যে তার আসল কথাই হারিয়ে গেল! এর মধ্যেই যা বললেন, তাতে একটা কথাই চমকে দেওয়ার মতো। স্পিন নয়, আজ তারা পেস আক্রমণ আশা করেছিলেন!

    রহমত শাহ আজ যেভাবে ব্যাট করেছেন, যে কোনো আফগান ব্যাটসম্যানের জন্য সেটি ম্যানুয়ালেই ঢুকে যাওয়া উচিত। এর আগে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে দেরাদুন টেস্টে একটুর জন্য সেঞ্চুরি পাননি, সেটা নিয়ে আক্ষেপ থাকতে পারে তার। তবে দলের বাকিদের চেয়ে টেস্ট ব্যাটিংয়ে যে তিনি অন্য উচ্চতায়, সেটা প্রমাণ করেছেন আরও একবার। বাংলাদেশের স্পিনারদের দারুণ সামলেছেন, ক্রিজটা কাজে লাগিয়েছেন। ফুটওয়ার্কও ছিল ভালো, সেজন্য বোলারদের কখনোই থিতু হতে দেননি।

     

     

    দেশের হয়ে প্রথম সেঞ্চুরির স্বাদের সঙ্গে কোনো কিছুর তুলনা হয় না। কিন্তু শুরুতে রহমত ইংরেজিতেই বললেন, এই ভাষাটা তিনি ভালো পারেন না। পশতুতে কথা বলতে চান। সেটা অনুবাদ করে দিয়েছেন দলের ম্যানেজার। আবেগ অনুভূতির অনেকটা তাতে হারিয়ে গেল। তারপরও যেটুকু ভাষান্তর হলো, তাতে তার আনন্দটা বোঝা যাচ্ছিল বেশ, ‘অবশ্যই একটা গর্ব করার মতো মুহূর্ত। আফগানিস্তানের হয়ে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি করেছি, অবশ্যই খুব ভালো লাগছে আমার। আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে ২ রানের জন্য সেঞ্চুরি না পাওয়ায় খুব খারাপ লাগছিল। আজ অনেক ভালো লাগছে।’

    তবে যেভাবে খেলেছেন, তাতে ভালো লাগাটা তার বেশি হতে পারে। সাকিব-তাইজুলদের সামনে দেশের মাটিতে অনেক বড় ব্যাটসম্যানই রান পাননি, সেখানে রহমত আজ তাদের খেলেছেন অবলীলায়। তবে প্রতিপক্ষের জন্য সম্মানের কমতি নেই রহমতের। সেটা বলতে গিয়েই চমকে ওঠার কথা বলেছেন, ‘অবশ্যই ওরা সাধারণ স্পিনার নয়। ওরা বেশ ভালো স্পিনার, বিশেষ করে সাকিব আল হাসান, মেহেদী হাসান ও তাইজুল ইসলাম বেশ ভালো স্পিনার। তবে আমরা পেসের জন্য প্রস্তুতি নিয়েছিলাম, সেখানে আমাদের স্পিন পরীক্ষা দিতে হয়েছে। পেসারদের খেললে আমাদের কাজ কঠিন হতে পারত।’

    শেষ কথাটা অবশ্যই চমকে ওঠার মতো। আফগানরা বাংলাদেশের পেসারদের আশা করেছিলেন, সেটা তো বিস্ময়ই। যদিও রহমত এ নিয়ে আর কিছু বলেননি। সেজন্য পুরো ব্যাখাটুকুও পাওয়া যায়নি।

    তবে কথা বলেছেন উইকেট এবং আরও কিছু নিয়ে। এই মুহূর্তে উইকেট বেশ ভালো আছে, সেটি স্বীকার করেছেন। তবে পরের দিকে ভাঙবে বলেও আশা করছেন। আফগানিস্তান একটি উইকেট আজ বেশি হারিয়েছে বলেই মনে করেন। আজকের দিনটা অবশ্য তার ছিল, বাংলাদেশ চাইবে এই টেস্টে যেন আর সেরকম কিছু না হয়।