• ক্রিকেট, অন্যান্য
  • " />

     

    এবার সেঞ্চুরি পেলেন মাহমুদুল, বাংলাদেশ নিউজিল্যান্ডে পেল হ্যাটট্রিক জয়

    নিউজিল্যান্ড অ ১৯ ৫০ ওভারে ২২৩/৮

    বাংলাদেশ ০ ১৯ ৩৬.৫ ওভারে ২২৯/২

    ফলঃ বাংলাদেশ অ ১৯ ৮ উইকেটে জয়ী


    নিউজিল্যান্ডে জিতেই চলেছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৯ দল। এবার রেসিপিটা এসেছে আগের ম্যাচের মতোই। প্রথমে বল করে নিউজিল্যান্ডকে খুব বেশি রান করতে দেননি আকবররা। এরপর তানজিদ হাসান ও মাহমুদুল হাসান জয়ের দারুণ ব্যাটিংয়ে সহজেই সেই রান টপকে গেছে। আগের ম্যাচের চেয়ে শুধু একটাই পার্থক্য আছে আজ। সেই ম্যাচে ৯৯ রানে আউট হয়ে গিয়েছিলেন জয়, আজ পেয়েছেন সেঞ্চুরি। পর পর তিন জয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজ জয়ও নিশ্চিত করে ফেলল বাংলাদেশের যুবারা।

    আগের ম্যাচ থেকে কয়েকটি পরিবর্তন এসেছিল আজ। মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী, রাকিবুল হাসান আজ বিশ্রামে ছিলেন, সুযোগ পেয়েছিলেন অভিষেক দাস, হাসান মুরাদ। সুযোগটা দুজনেই কাজে লাগিয়েছেন কমবেশি। আজ শুরুতে প্রথম ধাক্কাটা দিয়েছিলেন তানজিম হাসান সাকিব। স্কোরবোর্ডে ১০ রান ওঠার পর তানজিমের বলে পুল করতে গিয়ে উইকেটকিপার আকবর আলিকে ক্যাচ দেন হোয়াইট। অভিষেক অন্য প্রান্তে বল করছিলেন ভালো, কিন্তু আগে খেল দেখালেন ফিল্ডিংয়ে। তার দারুণ থ্রোতে রান আউট হয়ে ফিরে যান ভিশকাভা। এরপর হাসান মুরাদ এসে ক্লার্ককে ক্যাচ বানান অভিষেকের। ৩৭ রানে ৩ উইকেট তখন নেই নিউজিল্যান্ডের।

    এরপর লেলম্যান ও টাশকভের ৫৯ রানের জুটিতে আবার হাল ধরে স্বাগতিকেরা। এরপর অভিষেক দেন ব্রেক থ্রু, ডান হাতি এই পেসারের বলে বোল্ড হয়ে যান টাশকফ। এরপর শরিফুল এসে ম্যাকেঞ্জিকে তুলে নেন ১০ রানে, অভিষেক ধরেন ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় ক্যাচ। সেই ১২৯ রানেই ষষ্ঠ উইকেট হারিয়ে বসে নিউজিল্যান্ড, সুন্ডে কোনো রান না করেই সাকিবের বলে ক্যাচ দেন উইকেটের পেছনে।

    এরপর অশোককে আউট করেন অভিষেক, পেয়ে যান দ্বিতীয় উইকেট। আর মুরাদ তুলে নেন ফিল্ডকে, ১৬৩ রানে ৮ উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। তবে লেলম্যান তিন নম্বরে নেমে ছিলেন তখনো, নয় নম্বরে নামা ডিকসনকে নিয়ে পালটা আক্রমণ শুরু করলেন। অবিচ্ছিন্ন নবম উইকেটে দুজন যোগ করেন ৬০ রান। ১৩৩ বলে ১১৬ রান করে লেলম্যান অপরাজিত ছিলেন, ৫০ ওভার শেষে ২২৩ রানে পৌঁছেছে নিউজিল্যান্ড।

    সেই রান টপকাতে গিয়ে শুরুতেই উইকেট হারায় বাংলাদেশের যুবারা। এই ম্যাচে সুযোগ পাওয়া ওপেনার অনীক দাস কাজে লাগাতে পারেননি সুযোগ, ফিরেছেন ১ রানে। এরপর তানজিদ ও মাহমুদুল মিলে পথ দেখিয়েছেন। পাওয়ারপ্লেতে এসেছে ৫৫ রান, তানজিদ শুরুতে ছিলেন বেশি আগ্রাসী। ৪৭ বলে তুলে ফেলেছেন ফিফটি, ১৬.৫ ওভারে ১০০ পেয়েছে বাংলাদেশ অ ১৯। শেষ পর্যন্ত ৬৪ বলে ৬৫ রান করে ফিরেছেন তানজিদ, বাংলাদেশের রান তখন ১১১। তবে মাহমুদুল এরপর হাল ধরেছেন তৌহিদ হৃদয়কে নিয়ে। ৫৭ বলে ফিফটি পেয়েছেন মাহমুদুল, ৩৩.৫ ওভারে ২০০ পেরিয়ে গেছে বাংলাদেশ। এরপরেই ফিফটি পেয়েছেন হৃদয়,  আর সেঞ্চুরি মিস করেননি মাহমুদুল। ৯৫ বলেই সেটি পেয়ে গেছে। ইংল্যান্ড, শ্রীলংকার পর এবার নিউজিল্যান্ডেও সেঞ্চুরি পেলেন ফর্মে থাকা এই ব্যাটসম্যান। ১০৩ রানে অপরাজিত ছিলেন শেষ পর্যন্ত, ওদিকে ৫১ রানে ছিলেন তৌহিদ। ৮ উইকেট ও ১৩.১ ওভার হাতে রেখে জিতে গেছে বাংলাদেশ।