• সিরি আ
  • " />

     

    আবারও গোল করে জুভেন্টাসকে জেতালেন রোনালদো, বার্সেলোনাকে বাঁচালেন গ্রিযমান

    ফুল-টাইম

    জুভেন্টাস ৩-১ এএস রোমা

    স্তাদ দে রেইমস ০-৩ প্যারিস সেইন্ট জার্মেই

    ইউনিয়ান সালামাঙ্কা ১-৩ রিয়াল মাদ্রিদ

    ইবিজা ১-২ বার্সেলোনা

    ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ০-২ বার্নলি


    খুব একটা ভাল যায়নি ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর ২০১৯। বয়সটা আর সপ্তাহ দুয়েক বাদেই হবে ৩৫, ফুরিয়ে যাচ্ছেন তিনি- এমনটাই বলছিলেন অনেকেই। কিন্তু ২০২০-এর শুরু থেকে যেন কীভাবে ফিরে এসে নিন্দুকদের মুখে কুলুপ এঁটে দেওয়া যায়, ক্যারিয়ারে অসংখ্যাবারের মত আবারও যেন সেটা নতুন করে দেখানোর মিশনে নেমেছেন রোনালদো। এ বছর খেলা আগের তিন ম্যাচেই গোল পেয়েছিলেন, এবার ‘সিআর৭’-এর ভুক্তভোগী হল এএস রোমা। তাদের হারিয়ে কোপা ইতালিয়ার সেমিতে চলে গেল মরিজিও সারির দল।

    তুরিনে ম্যাচের ২৬ মিনিটে দলকে লিড এনে দেন রোনালদো। গঞ্জালো হিগুয়াইনের পাসে বাঁ-প্রান্তে দু’জন ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে বাঁ-পায়ের জোরাল শটে গোল করেন ‘সিআর৭’। কিছুক্ষণ বাদেই ব্যবধান দ্বিগুণ করে সারির দল। প্রতি-আক্রমণে পাউলো দিবালার পাসে গোল করেন রড্রিগো বেন্টাঙ্কুর। প্রথমার্ধের শেষদিকে ডগলাস কস্তার ক্রসে হেড করে রোমার ম্যাচে ফেরার সব সম্ভাবনা উড়িয়ে দেন লিওনার্দো বনুচ্চি।

    দ্বিতীয়ার্ধে ব্যবধান আরও বাড়াতে পারত জুভেন্টাস, কিন্তু হিগুয়াইনের শট ফিরে আসে বারে লেগে। শেষ পর্যন্ত অবশ্য গোল পেয়েছে রোমা, তবে চেঙ্গিজ উণ্ডারের গোলটা ছিল নিছক সান্ত্বনা। ২৮ জানুয়ারি কোপা সেমির প্রথম লেগে মিলান বা তোরিনোর মুখোমুখি হবে জুভেন্টাস।

    রেকর্ড গড়েই ‘শেষ’ ফ্রেঞ্চ লিগ কাপের ফাইনালে পিএসজি

    গত মৌসুমে গুইঁগাম্পের কাছে হেরে টানা ফ্রেঞ্চ লিগ কাপ জয়ের রেকর্ডটা পাঁচ-এই থেমে গিয়েছিল পিএসজির। আগামী মৌসুম থেকে আর থাকছে না ফ্রান্সের অন্যতম পুরনো এই টুর্নামেন্ট। লিগ কাপের সেমিতে রেমিসকে হারিয়ে শেষ শিরোপাটি আজীবন নিজেদের কাছে রেখে দেওয়া থেকে এখন মাত্র ৯০ মিনিট দূরে এখন থমাস তুখলের দল। এই ম্যাচে নিজেদের ইতিহাসে ৪০০০তম গোলেরও দেখা পেয়েছে পিএসজি।

     

     

    রেইমসের মাঠে ৯ মিনিটেই নেইমারের ক্রসে হেড করে দলকে এগিয়ে দিয়েছিলেন অধিনায়ক মার্কিনিয়োস। কিছুক্ষণ বাদে আবারও নেইমারের ক্রসেই ব্যবধান দ্বিগুণ হয় পিএসজির। ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডের ক্রস ক্লিয়ার করতে যেয়ে বল নিজেদের জালে ঠেলে দেন কোনান। রেইমসের মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা হয়ে আসে মুনেতসির লাল কার্ড।

    ১০ জনের দলে পরিণত হওয়ার মিনিট চারেক পরই তাদের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেন কুওয়াসি। পিএসজি রেকর্ড গড়লেও অল্পের জন্য ব্যক্তিগত একটি রেকর্ড হাতছাড়া হয়ে গেছে নেইমারের। পিএসজির জার্সিতে টানা সর্বোচ্চ ম্যাচে গোল করার রেকর্ডটা (৮) রেইমসের বিপক্ষে নিজের করে নেওয়ার হাতছানি ছিল তার সামনে, কিন্তু গোল পাননি তিনি। একাদশে থাকলেও স্কোরশিটে নেইমারের মত নেই কিলিয়ান এমবাপ্পেও।

    সহজ ম্যাচ কঠিন করে জিতল রিয়াল

    ইউনিয়নিস্তাস দে সালামাঙ্কার পুরো দলের বেতন রিয়াল মাদ্রিদের তরুণ ফরোয়ার্ড ভিনিসিয়াস জুনিয়রের বেতনের অর্ধেকেরও কম। কিন্তু রিয়ালের বিপক্ষে তৃতীয় বিভাগের দলটি আবারও প্রমাণ করল, কেতাবী এসব পরিসংখ্যান খেলার মাঠে অর্থহীন। রিয়ালকে রুখে দিতে পারেনি সালামাঙ্কা, কিন্তু জয়ের জন্য ঘাম ছোটাতে হয়েছে জিনেদিন জিদানের দলকে।

     

     

    সালামাঙ্কার মাঠে ১৮ মিনিটে গোল করে দলকে এগিয়ে নেন গ্যারেথ বেল। বেনজেমা-কাসেমিরো-ভিনিসিয়াসরা থাকলেও প্রথমার্ধে আর ব্যবধান বাড়াতে পারেনি রিয়াল। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে সমতায় ফেরে সালামাঙ্কা। অঘটনের স্বপ্ন অবশ্য বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি তাদের।

    ৬২ মিনিটে দানি কারভাহালের ক্রস ক্লিয়ার করতে যেয়ে আত্মঘাতী গোল করে বসেন হুয়ান মাতেও। প্রায় মাস তিনেক পর রিয়ালের একাদশে ফিরে নিজের সামর্থ্যের জানান দিয়েছেন ব্রাহিম দিয়াজ। দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে গোল করেছেন তিনি। ৩-১ গোলের জয়ে ২৪ জানুয়ারি শেষ ১৬-এর ড্রয়ে চলে গেল জিদানের দল।

    ছুটি কাটানোর তীর্থস্থানে মেসিহীন বার্সেলোনাকে বাঁচালেন গ্রিযমান

    সঙ্গীতপ্রেমী, কিন্তু মাইক পসনারের ‘আই টুক আ পিল ইন ইবিজা’ গানটি শোনেননি, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুর্লভ। কোপা ডেল রে-র শেষ ৩২-এ ইউনিয়ন দেপোর্তিভা ইবিজার মাঠেই খেলতে নেমেছিল বার্সেলোনা। মেসি, বুস্কেটসদের অভাবে ম্যাচের অনেকটা সময় পিছিয়ে থাকলেও যোগ করা সময়ে গোল করে দলকে শেষ ১৬-তে নিয়ে গেছেন আঁতোয়া গ্রিযমান।

    ট্যুরিস্টদের মধ্যে ছুটি কাটানোর তীর্থস্থান হিসেবে ব্যাপক জনপ্রিয় ইবিজা। তৃতীয় বিভাগের ক্লাবটির মাঠে বার্সেলোনার খেলা দেখে মনে হচ্ছিল; কোপা ডেল রে নয়, কিকে সেতিয়েনের দলও যেন এসেছে আমোদ-ফুর্তি করতেই। বর্ণহীন, ছন্নছাড়া বার্সেলোনাকে পেয়ে ম্যাচের ৯ মিনিটেই লিড নেয় স্বাগতিকরা, গোল করেন পেপ কাবেল। মিনিট আটেক পর ব্যবধান দ্বিগুণও করেছিল তারা। কিন্তু গোলের সময় বার্সেলোনা ডিফেন্ডার ক্লেমেন্ত লংলেকে ফাউল করে বসায় বাতিল হয় আনহেল রোদাদোর গোল।

     

     

    ম্যাচে আর গোলের সুযোগ পায়নি স্বাগতিকরা। দ্বিতীয়ার্ধের মাঝামাঝি সময়ে মাঝমাঠ থেকে ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ংয়ের চমৎকার থ্রু পাসে দলকে সমতায় ফেরান গ্রিযমান। দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে দারুণ এক প্রতি-আক্রমণে জর্দি আলবার পাসে ইবিজার ডিবক্সে বল পেয়ে দলকে জিতিয়ে দেন গ্রিযমান। ফ্রেঞ্চ ফরোয়ার্ডের বীরত্বেই দ্বিতীয় ম্যাচে হতাশাজনক হার থেকে বাঁচলেন সেতিয়েন।

    অনাকাঙ্ক্ষিত রেকর্ড গড়লেন সোলশার

    রাতের অন্যান্য খেলায় প্রিমিয়ার লিগে ওয়েস্ট হাম ইউনাইটেডকে ৪-১ গোলে হারিয়েছে লেস্টার সিটি। নরউইচকে ২-১ ব্যবধান হারিয়েছে হোসে মরিনহো টটেনহাম হটস্পার। কিন্তু রাতের অন্যতম অঘটন ঘটেছে ওল্ড ট্রাফোর্ডে। বার্নলির কাছে হেরে গেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। দায়িত্ব নেওয়ার পর লিগে জয়ের (১১) চেয়ে হারের (১২) সংখ্যাই এখন বেশি ওলে গানার সোলশারের। ১৯৯০-এর পর লিগে এত বাজে অবস্থায় কখনোই ছিল না ‘রেড ডেভিল’রা।