• সিরি আ
  • " />

     

    শেষ মুহূর্তের গোলে জিতল পিএসজি, হেরে গেল জুভেন্টাস

    শেষ মুহূর্তের গোলে জিতল পিএসজি, হেরে গেল জুভেন্টাস    

    ৭৬ মিনিট পর্যন্তও ম্যাচে কোনো গোল নেই। এরপর ১২ মিনিটের দুর্দান্ত এক থ্রিলারে হলো পাঁচ গোল, তাতে পিএসজি পেল শেষ মুহূর্তে রুদ্ধশ্বাস একটা জয়। আর শেষ মুহূর্তের গোলে কপাল পুড়ল জুভেন্টাসের, আতালান্তার কাছে হেরে গিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলা নিয়েই এখন সংশয়।

    ৭৬ মিনিট পর্যন্ত প্যারিসে কোনো গোল খায়নি। এরপর ৭৭ মিনিটে সেত এতিয়েন এক গোল করে চমকে দিল পিএসজিকে। কিন্তু সেটাই যেন জাগিয়ে তুলল পিএসজিকে। এরপর কিলিয়ান এমবাপে লং বল থেকে বল পেয়ে ওয়ান টাচে দারুণ এক গোল করে সমতা ফেরালেন। এরপর পেনাল্টি থেকে আরেকটা গোল করে এগিয়ে দিলেন পিএসজিকে। কিন্তু এরপরও নাটক বাকি ছিল। যোগ করা সময়ের দুই মিনিটের মাথায় আবার সমতা ফেরাল সেত এতিয়ে। কিন্তু পিএসজি হাল ছাড়েনি। কিন্তু শেষ মুহূর্তে মাউরো ইকার্দি গোল করে জয় এনে দিলেন। এই জয়ে ৬৯ পয়েন্ট নিয়ে পিএসজি থাকল দুইয়ে, ৭০ পয়েন্ট নিয়ে লিল এখনো সবার ওপরে। 

    তবে জুভেন্টাসের জন্য রাতটা ছিল হতাশার। আতালান্তার সঙ্গে ম্যাচে একাদশে ছিলেন না ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। কিন্তু বাকিরা কিছু করতে পারেননি। বরং ৮৭ মিনিটে মালিনোভস্কির গোলে এগিয়ে যায় আতালান্তা। সেটাই নিশ্চিত করে জয়। এই জয়ে আতালান্তা তিনে উঠে এলো ৩১ ম্যাচ খেলে, তাদের পয়েন্ট ৬৪। আর ৬২ পয়েন্ট নিয়ে জুভেন্টাস রইল চারে। এক ম্যাচ খেলে ৫৯ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচ থাকা নাপোলি ও ৫৮ পয়েন্ট নিয়ে ছয়ে থাকা লাৎসিও খুব পিছিয়ে নেই। জেনোয়াকে ২-১ গোলে হারিয়ে মিলান রইল দুইয়ে, আর অনেকটা এগিয়ে থেকে শীর্ষে ইন্টার।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন