• জিম্বাবুয়ের বাংলাদেশ সফর
  • " />

     

    তামিম-মুমিনুলদের সালাউদ্দিন-শরণ

    রাসেল ডমিঙ্গো, ওটিস গিবসনদের গায়ে নিয়মিত অনুশীলন কিট। তাদের সঙ্গে কালোরঙা টি-শার্ট আর ট্রাউজারস গায়ে একজনকে আলাদা করে নজরে পড়তেই পারে আপনার। অনুশীলনে বেশ তৎপর তিনি, বাকি দুই কোচের সঙ্গে, কিংবা আলাদা করে। তামিম ইকবাল, মুমিনুল হক বা মোহাম্মদ মিঠুনদের সঙ্গে সময় কাটালেন বেশ কিছুক্ষণ। জিম্বাবুয়ে সিরিজের আগে ক্রিকেটারদের অনুশীলনে এদিন হাজির হয়েছিলেন মোহাম্মদ সালাউদ্দিন। 

    তামিম-মুমিনুলদের শেষ আশ্রয়স্থলের মতো একটা স্থান আছে বাংলাদেশের এই কোচের। শেষ বিপিএলেও তামিম-মাশরাফির ঢাকা প্লাটুনের কোচ ছিলেন তিনি। টেস্টে যখন বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ের কিছুই ঠিকঠাক হচ্ছে না, তামিম-মুমিনুলদের সময়টাও সুবিধার যাচ্ছে না, তখন সালাউদ্দিনের উপস্থিতি হয়তো খুব অস্বাভাবিক নয়ও। 

    রাওয়ালপিন্ডি টেস্টের পর পাকিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টের আগে জিম্বাবুয়ের সঙ্গে সিরিজ বাংলাদেশের। মিরপুরে ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হবে প্রথম টেস্ট। বিসিএলের এ রাউন্ডে তাই খেলছেন না সর্বশেষ টেস্ট স্কোয়াডে থাকা অনেকেই। তারাই এসেছিলেন মিরপুরের অনুশীলনে। 

    অনুশীলন শেষে ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ মিঠুনও জানালেন, তামিম-মুমিনুলকে অনেকদিন ধরে দেখার ব্যাপারই টেনে এনেছে সালাউদ্দিনকে, “তামিম ভাই বা সৌরভ (মুমিনুল হক), সালাউদ্দিন স্যারের  সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে কাজ করেন। তাদের ব্যাপারে সালাউদ্দিন স্যার অনেক ভাল জানেন। ডমিঙ্গো ছয়-সাত মাস হলো এসেছেন। আর সালাউদ্দিন স্যার তাদেরকে অনেকদিন ধরে দেখছেন। এজনয়ই ডমিঙ্গো কার জন্য কোনটা ঠিক কোনটা ভুল- সেটা আলোচনা করে এরপর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।”

    এমন ‘আলোচনার’ পেছনে অবশ্যই বাংলাদেশের টেস্টে সাম্প্রতিক ফর্ম। মিঠুনের মতে, ‘এমন অবস্থা চলতে পারে না’, তবে তারা সমস্যা কাটিয়ে ওঠার জন্য কাজ করছেন। সালাউদ্দিন সে কাজেরই একটা অংশ আপাতত, “শুধু সালাউদ্দিন স্যার না, ডমিঙ্গো ছিল, গিবসন ছিল, সবাই মিলে যার যেটা সেরা পজিশন, সেটা নিয়ে কাজ করা হয়েছে। প্রত্যেকটা ক্রিকেটারের ব্যাপারে আরেকটু কীভাবে ভাল হতে পারে, সেটা নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছিল।”

     


     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন