• লা লিগা
  • " />

     

    'রিয়ালকে বার্নাব্যুতে এতো খারাপ খেলতে দেখিনি কখনও'

    এল ক্লাসিকোতে রিয়াল মাদ্রিদের কাছে ২-০ গোলে হেরে লিগে শীর্ষস্থান খুইয়েছে বার্সেলোনা। ২০১৪ এর পর লিগে এই প্রথম সান্তিয়াগো বার্নাব্যু থেকে খালি হাতে ফিরেছেন মেসি-আলবারা। তবে মাদ্রিদ দারুণ খেলে তাদের হারিয়েছে, এটা মানছেন না বার্সেলোনা সেন্টার ব্যাক জেরার্ড পিকে। বরং হেলায় সুযোগ নষ্ট করে বার্সা নিজেরাই নিজেদের বারোটা বাজিয়েছে, ম্যাচ শেষে এমনটাই বলেছেন পিকে।

    এই ম্যাচের আগে বার্নাব্যুতে শেষ তিন ম্যাচে জয়বঞ্চিত ছিল মাদ্রিদ। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে পাঁচ ম্যাচে  জয় নেই। চোটের কারণে এডেন হ্যাজার্ডও দলে নেই। আত্মবিশ্বাস এবং ফর্মের তলানিতে থেকেই এই ম্যাচ খেলতে নেমেছিল মাদ্রিদ, প্রথমার্ধে মাঠের খেলাতেও তা প্রমাণিত হয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত ফলটি কিন্তু ঠিকই নিজেদের পক্ষে টানতে সক্ষম হয়েছে মাদ্রিদ, লিগের শীর্ষেও উঠে এসেছে। তবে পিকে মনে করেন, মাদ্রিদের পারফরমেন্স মোটেই বলার মতো ছিল না ম্যাচে, “আমরা হতাশ। এখান থেকে একটা ভালো ফল নিয়ে যাওয়ার আশা করেছিলাম, কারণ মাদ্রিদের অবস্থা ভালো ছিল না। প্রথমার্ধে মাদ্রিদ যেমন খেলেছে, আমি বার্নাব্যুতে তাদের এর চেয়ে খারাপ খেলতে দেখিনি কখনও।”

    পিকের এই মন্তব্য অবশ্য হেসেই উড়িয়ে দিয়েছেন মাদ্রিদ অধিনায়ক সার্জিও রামোস, “ তার (পিকের) মতে আমরা প্রথমার্ধে খারাপ খেলেছি। যদি এভাবে খারাপ খেলে ক্লাসিকো জেতা যায়, তাহলে আমি খারাপ খেলতে রাজি।” 

    প্রথমার্ধে মেসি-গ্রিযমানরা একের পর এক সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেননি। ওয়ান-অন-ওয়ান অবস্থা থেকে মিস করেছেন মেসি। গোলের সামনে থেকে ওপর দিয়ে মেরেছেন গ্রিযমান। মূলত এই সুযোগগুলো কাজে লাগাতে ব্যর্থ হয়ে দ্বিতীয়ার্ধে মাদ্রিদকে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ বুঝিয়ে দিয়েছেন তারা, এমনটাই মত পিকের, “আমি আসলে তাদের সমালোচনা করে তাদের বাজে বলছি না। সবারই সমস্যা আছে, আমরাও যে খুব ভালো খেলছি তা নয়। আমরা যদি প্রথমার্ধে সুযোগগুলো কাজে লাগাতাম, তাহলে দ্বিতীয়ার্ধ তাদের জন্য অনেক কঠিন হয়ে যেত। কিন্তু আমরা সেটি করতে না পারায় তারা সুযোগটা লুফে নিয়ে আমাদের হারিয়ে দিয়েছে।”

    বার্সার সামনে সুযোগ ছিল ক্লাসিকোতে রিয়ালকে হারিয়ে ৫ পয়েন্টে এগিয়ে যাওয়ার। তবে ম্যাচ হেরে আপাতত মাদ্রিদের চেয়ে এক পয়েন্ট পিছিয়ে পড়েছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা। তবে রিয়ালের সঙ্গে হেরে লিগ শিরোপার দৌড়ে বার্সার খুব একটা সমস্যা হবে না বলেই ধারণা পিকের, “এই জয়ের ফলে তাদের আত্মবিশ্বাস বাড়বে, সেটি নিশ্চিত। ম্যাচ হারায় আমাদের আপাতত হয়ত কিছুটা ক্ষতি হয়েছে, তবে আমরা একেবারে ডুবে যাইনি। মৌসুমের শেষ পর্যন্ত বাকি কাজগুলো যদি আমরা ঠিকঠাক করতে পারি, তাহলে এখনও লা লিগা জেতা সম্ভব।”

    লা লিগায় বার্সার পরের ম্যাচ নিজেদের মাঠে রিয়াল সোসিয়েদাদের বিপক্ষে। সেই ম্যাচ দিয়ে লিগে আবারও ছন্দে ফিরতে চাইবে কিকে সেতিয়েনের দল।