• ক্রিকেট, অন্যান্য
  • " />

     

    অনৈতিক প্রস্তাবের তথ্য গোপন করে ফেঁসে যাচ্ছেন উমর আকমল

    পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের দুর্নীতি বিরোধী বিধির দুটি ধারা লঙ্ঘনের দায়ে অভিযুক্ত হয়েছেন উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান উমর আকমল। ম্যাচ গড়াপেটার প্রস্তাব পেয়েও সেটি অনতিবিলম্বে পিসিবির ভিজিল্যান্স এন্ড সিকিউরিটি ডিপার্টমেন্টকে জানানোর নিয়ম থাকলেও সেটি করতে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি।  

    পিসিবি গত ১৭ মার্চ উমর আকমলকে নোটিশ পাঠিয়ে আগামী ৩১ মার্চের মধ্যে জবাব দিতে বলেছে। এই সময়ের মধ্যে আশানুরুপ জবাব দিতে না পারলে সর্বনিম্ন ৬ মাস নিষেধাজ্ঞার খড়গ নেমে আসতে পারে তার ওপর, অবশ্য অপরাধের গভীরতার ওপর নির্ভর করে ছয় মাস থেকে বেড়ে আজীবন নিষেধাজ্ঞার মুখেও পড়তে হতে পারে তাকে। 

    পিসিবির দুর্নীতি বিরোধী বিধির ২.৪.৪ ধারা লঙ্ঘনের ফলেই মূলত গত মাসে তার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়। তদন্ত শুরু হওয়ার পরপরই গত ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে তাকে ক্রিকেট থেকে প্রাথমিকভাবে নিষিদ্ধ করা হয়। গত বছরের অক্টোবরে শেষ পাকিস্তানের হয়ে খেলেছিলেন উমর আকমল। 

    এ ব্যাপারে উমর চুপ থাকলেও এর আগে নিজের ভাইয়ের পক্ষে মুখ খুলেছিলেন কামরান আকমল, “আমি আমার ভাই উমরকে চিনি, সে এমন কাজ করতে পারে না। সে দশ বছর আগে যখন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এসেছিল, তখনকার মতোই নিষ্কলুষ আছে। উমর অ্যান্টি-করাপশন ইউনিটকে অন্য যে কোনও ক্রিকেটারের চেয়ে বেশি সহায়তা করেছে।” 

    এর আগে ফিটনেস টেস্ট উৎরাতে না পারা বা সাপোর্ট-স্টাফের সঙ্গে অসদাচারণের জন্য আলোচনায় এসেছিলেন উমর। 
     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন