• লা লিগা
  • " />

     

    যেভাবে চলছে মেসি-রামোসদের ফেরার লড়াই

    লিওনেল মেসিরা করোনাভাইরাসের প্রকোপ কিছুটা কমে আসার পর প্রথমবারের মতো অনুশীলন করেছেন। বার্সেলোনার পর রিয়াল মাদ্রিদও সোমবার থেকে নামছে অনুশীলনে। লা লিগার বেশিরভাগ খেলোয়াড় ও কোচের করোনাভাইরাস টেস্ট এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। আপাতত, জুন নাগাদ আবারও লিগ শুরু করার লক্ষ্যে এগুচ্ছে লা লিগা।

    মাঠে খেলা ফেরাতে এর আগে অনুশীলনেই চারটি অনুসরণ করছে লা লিগার ক্লাবগুলো। প্রথম ধাপ ট্রেনিংয়ের প্রস্তুতি, এরপর ব্যক্তিগত ট্রেনিং, গ্রুপ ট্রেনিং ও সবশেষ টিম ট্রেনিং। এই ধাপগুলো সফলভাবে উতরে গেলেই মাঠে খেলা ফেরানোর পথে অনেকদূর এগিয়ে যাবে লা লিগা। 

    টেস্টিং
    ব্যক্তিগত অনুশীলনের অন্তত দুইদিন আগে করোনা পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে খেলোয়াড়দের। এই নিয়ম শুধুমাত্র খেলোয়াড়দের ক্ষেত্রেই অবশ্য প্রযোজ্য হবে না। এই অনুশীলনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কোচ বা যে কোনো স্টাফকেও যেতে হবে একই প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে। ক্যাম্পের বাকিদের শারীরিক পরীক্ষা হবে তিনদিন পর পর।

    এরপর অনুশীলন শুরু হলে খেলোয়াড়, কোচ ও সংশ্ল্রিষ্টদের শারীরিক পরীক্ষা হবে প্রতিদিনের অনুশীলন শেষেই। কারও শরীরে করোনা ভাইরাস খুঁজে পাওয়া গেলে তিনি চলে যাবেন আইসোলেশনে। আর ওই ব্যক্তির সংস্পর্শে আসা সবাইকেও পরবর্তী পরীক্ষার ফল না আসার আগ পর্যন্ত আইসোলেশনেই থাকতে হবে। 

    ইনিডিভিজুয়াল ট্রেনিং
    খেলোয়াড়রা নিজেরাই নিজেদের কিট নিয়ে হাজির হবেন ক্লাবের ট্রেনিং গ্রাউন্ডে। এক মাঠে সবমিলিইয়ে ৬ জনের বেশি অনুশীলন করতে পারবেন না। ট্রেনিং শেষে একটি বায়োডিগ্রেডেবল ব্যাগে খেলোয়াড়দের প্রত্যেককে তাদের পরবর্তী অনুশীলনের কিট (জার্সি) প্রদান করা হবে। খেলোয়াড়রা বাড়ি ফিরে ওই কিট বের করবেন, এবং ব্যবহার করা ট্রেনিং কিট ওই ব্যাগে ঢুকিয়ে রাখবেন। পরদিন ট্রেনিং শুরুর আগে খেলোয়াড়রা একটি বিনে ওই কিট ফেলে যাবেন ধোয়ার জন্য। এই প্রক্রিয়ায় চলবে খেলোয়াড়দের ব্যক্তিগত অনুশীলন বা ইনডিভিজুয়াল ট্রেনিং।

     

    গ্রুপ ট্রেনিং
    এই পর্যায়ে খেলোয়াড়রা ট্রেনিংগ্রাউন্ডে বা হোটেলে অবস্থান করতে পারবেন। ফার্স্ট টিম স্কোয়াডকে এরপর ৮ জনের কয়েকটি দলে ভাগ করা হবে। এই দলগুলো আলাদা আলাদা সময়ে একসঙ্গে অনুশীলনের সুযোগ পাবে। এই স্তরে খেলোয়াড়রা ড্রেসিংরুমও ব্যবহার করবেন। তবে ৩ জনের বেশি খেলোয়াড় একবারে ড্রেসিংরুমে প্রবেশ করতে পারবেন না। খেলোয়াড়দের প্রয়োজনীয় বুট ও জার্সি যথাসম্ভব দূরত্বে রাখা থাকবে।

    ট্রেনিং শেষে খেলোয়াড়রা তাদের ব্যবহৃত জার্সি নির্দিষ্ট বিনে ফেলে যাবেন এবং প্রয়োজন হলে ওয়াশরুমও ব্যবহার করতে পারবেন।  পরের ৩ জন আবার ব্যবহার করার আগে জীবানুনাশক ছিটিয়ে পুরো ড্রেসিংরুম পরিস্কার করা হবে।

     

    টিম ট্রেনিং

    সব ধাপ ঠিকঠাক এগুলো এরপর শুরু হয়ে যাবে পুরো দলের একসঙ্গে অনুশীলন। এই ধাপেও অবশ্য ট্রেনিং গ্রাউন্ডের সব স্টাফরা মুখে মাস্ক পরবেন। পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার নিয়ম থাকবে তৃতীয় ধাপের মতোই।

    কবে ফিরবে লা লিগা?
    লা লিগার পয়েন্ট টেবিলে সবার ওপরে আছে বার্সেলোনা। ২৭ ম্যাচ শেষে ৫৮ পয়েন্ট তাদের। রিয়াল মাদ্রিদ ২ পয়েন্ট কম নিয়ে আছে দুই নম্বরে। রিয়াল অধিনায়ক সার্জিও রামোস কিছুদিন আগে বলেছেন, মাঠে ফেরার জন্য তর সইছে না তার। তবে সবার আগে স্বাস্থ্য সুরক্ষার নিশ্চয়তা চেয়েছেন তিনি। লা লিগা প্রেসিডেন্ট হাভিয়ের তেবাস বরাবরই লিগ শেষ করার ব্যাপারে আশাবাদী। তবে স্বাস্থ্যের ব্যাপারটিকে সবচেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দিচ্ছেন তিনিও।

    বার্সেলোনার ইভান রাকিটিচও খেলা ফেরার জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কেড়েছেন। তবে লা লিগার ক্লাব এইবারের খেলোয়াড়রা সবার আগে চেয়েছেন নিশ্চয়তা। এক বিবৃতিতে তারা বলেছেন, "আমরা যা করতে ভালোবাসি সেটি করতে গিয়ে যদি আক্রান্ত হই এবং আমাদের পরিবারকেও আক্রান্ত করে ফেলি এবং বৈশ্বিক এই মহামারীর হার বাড়িয়ে দেই- এই দুশ্চিন্তা আমাদের মাথা থেকে যাচ্ছে না। স্বাস্থের ব্যাপারটাই সবচেয়ে বেশি অগ্রাধিকার পাওয়া উচিত। এই ব্যাপারে শুধু কথা না বলে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। আমরা সবকিছুর নিশয়তা চাই, আশ্বাস নয়।"