• বাংলাদেশের বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
  • " />

     

    ফাঁকা মাঠে খেলা হলে সমর্থকদের মিস করবেন জেমি ডে

    বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় পর্বের কঠিন কাজগুলো আগে ভাগেই সেরে ফেলেছিল বাংলাদেশ। মোটমাট ৪ অ্যাওয়ে ম্যাচের ৩টিই খেলা হয়েছিল জেমি ডের দলের। আর শেষ ৪টির ভেতর ৩টি ম্যাচই তাই ছিল বাংলাদেশের ঘরের মাঠে। বাছাইপর্বের ম্যাচগুলোর নতুন দিন-তারিখ নির্ধারণ হলেও স্বাস্থ্য ঝুঁকির বিষয়টি শঙ্কা জাগিয়েছে, বাংলাদেশকে হয়ত খেলতে হবে ফাঁকা মাঠেই।  এমনিতেই লম্বা বিরতির পর মাঠে নামতে হবে, ফিটনেস বড় দুশ্চিন্তার কারণ, এরপর ঘরের সমর্থন না পাওয়া আরেকটু পিছিয়ে দিতে পারে বাংলাদেশকে। কোচ জেমি ডেও মনে করেন, ভরা গ্যালারির সমর্থন যে সুবিধাটাটুকু দিতে পারত, সেটা না পেলে খেলোয়াড়দের জন্য কাজটা হবে আরেকটু কঠিন।

    "বাংলাদেশের খেলা হলে হয়ত গ্যালারি ভরে যেত। খেলোয়াড়রাও ভরা মাঠে আরও উজ্জীবিত হয়।"- বাংলাদেশ কোচ হিসেবে দুই বছরের নতুন চুক্তির পর অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন জেমি ডে।

    "এখন হয়ত ঘরের মাঠের সমর্থনটা আমাদের মিস করতে হবে। যেহেতু ফাঁকা মাঠে ম্যাচগুলো হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে এরপরও মাঠে খেলা, তাই পরিবেশটা আমাদের অনুকূলেই থাকবে হয়ত।"


    বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ বাছাইপর্ব
    দ্বিতীয় রাউন্ড, ফিক্সচার


    বাংলাদেশ-আফগানিস্তান
    ৮ অক্টোবর, ২০২০

    কাতার-বাংলাদেশ
     ১৩ অক্টোবর, ২০২০

    বাংলাদেশ-ভারত
    ১২ নভেম্বর, ২০২০

    বাংলাদেশ-ওমান
    ১৭ নভেম্বর, ২০২০


    মে মাসে প্রিমিয়ার লিগ পরিত্যক্ত ঘোষণার পর ঘরোয়া ফুটবল দ্রুত ফেরার তেমন সম্ভাবনা নেই। 'ই' গ্রুপে বাংলাদেশের সঙ্গী কাতার এরই মধ্যে অনুশীলন শুরু করে দিয়েছে। ভারত নতুন মৌসুমের খসড়া দিন-তারিখ নির্ধারণ করেছে। ডে মনে করছেন দুই, এক সপ্তাহের ভেতর আফগান ফুটবলাররাও নিজেদের ক্লাবের হয়ে অনুশীলনে নেমে পড়বেন। সেদিক থেকে অনেকটাই পিছিয়ে বাংলাদেশ। সে কারণেই আফগান ম্যাচের আগে অন্তত ৬ থেকে ৮ সপ্তাহের একটি ট্রেনিং ক্যাম্প প্রস্তাব করেছেন ডে। তবে তাতেও খেলোয়াড়দের ফিটনেস পুরোপুরি ফিরবে কি না তা নিয়ে শঙ্কা আছে তার।

    "৬-৮ সপ্তাহে খেলোয়াড়দের পুরোপুরি  প্রস্তুত করা কঠিন। আপনি যে কোনো ফিটনেস কোচকে জিজ্ঞেস করে দেখতে পারেন এই অল্প সময়ে আসলে ফিটনেস পুরোপুরি ফিরে পাওয়া যায় না। তাই আমি খেলোয়াড়দের সেরা সুযোগ সুবিধা দেওয়ার কথা বলেছি।"


    আরও পড়ুন:

    আগস্টে আবাসিক ক্যাম্প শুরুর আগে জামালদের করোনা-পরীক্ষা করাবে বাফুফে
    রেকর্ডগড়া চুক্তির পর খেলোয়াড়দের সুযোগ-সুবিধার মান বাড়াতে চান জেমি ডে


    অক্টোবরে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে মাঠে ফেরার কথা রয়েছে বাংলাদেশের। ফিক্সচার অনুযায়ী ওই ম্যাচটি হওয়ার কথা বাংলাদেশে। তবে এএফসি পক্ষ থেকে ভেন্যুর ব্যাপারটি এখনও চূড়ান্ত করা হয়নি। দর্শক মাঠে ঢুকতে পারবেন কি না সেই ব্যাপারেও এখনও কিছু জানায়নি এএফসি। তবে এশিয়ান ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থার ক্লাব টুর্নামেন্ট এএফসি কাপ এরই মধ্যে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে নিয়ম বাতিল করে কেন্দ্রীয় ভেন্যুতে আয়োজনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। এএফসি কাপের সম্ভাব্য সূচিও অক্টোবরে।

    জাতীয় দলের বেশিরভাগ খেলোয়াড় যেহেতু বসুন্ধরা কিংসেই খেলেন তাই ওই সময় খেলোয়াড়দের জাতীয় দলের ক্যাম্প দিয়ে তৈরি হতে পারে নতুন সঙ্কট। ডে জানাচ্ছেন এই সমস্যার সমাধানের পথ খুঁজতে বসুন্ধরা কোচ অস্কার ব্রুজোনের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি, "এটা তো একটা বড় সমস্যা। আমি অস্কারের সঙ্গে বেশ কয়েকবার কথা বলেছি। আমাদের একটা সমাধান বের করতে হবে। ওই সময় যেহেতু তাদের এএফসি কাপের ম্যাচ আছে,  আন্তর্জাতিক বিরতি ছাড়া তারা খেলোয়াড় ছাড়তে চাইবে না এটাই স্বাভাবিক।"

    লম্বা সময় ধরে মাঠে খেলা না থাকায় বাংলাদেশ কোচকে ক্যাম্পের জন্য দল ডাকতেও অবশ্য বেগ পেতে হবে। তবে ডে আশা করছেন আগস্টে দেশে ফিরে ৩০-৩৫ জনের একটি দল নির্বাচন করে দ্রুতই সমাধানের পথ খুঁজে বের করতে পারবেন তিনি।  

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন