• লা লিগা
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    কেন সুযোগ পাচ্ছেন না জানতে চান হামেস

    পেশাদারিত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলা সমালোচকদের একহাত নিলেন রিয়াল মাদ্রিদ মিডফিল্ডার হামেস রদ্রিগেজ। গত দুই মৌসুম বায়ার্নের হয়ে ধারে খেলার পর গত গ্রীষ্মে আবারও স্পেনের রাজধানীতে ফিরে এসেছিলেন এই কলম্বিয়ান তারকা। তবে চলতি মৌসুমে দলে সুযোগ পেয়েছেন খুবই কম, সবমিলিয়ে লিগে এখন পর্যন্ত মাত্র ৫ বার মাঠে নেমেছেন তিনি। আর এর পিছনে সমালোচকরা তার অপেশাদার আচরণকে দায়ী করে আসছিলেন। কিন্তু এবার সমালোচকদের এক হাত নিয়েছেন হামেস।

     কলম্বিয়ান টিভি অনুষ্ঠান ‘গোল কারাকোলে’ সমালোচকদের রীতিমত ধুয়ে দিয়েছেন হামেস, “আমার ব্যাপারে অনেক কথাই হচ্ছে, তবে সেসবের বেশিরভাগই বানোয়াট। লোকে যখন আমার পেশাদারিত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলে তখন তা আমাকে খুবই অস্বস্তিতে ফেলে। আমি এই কথা মেনে নেব না। আমি অত্যন্ত পেশাদার, যদি তা না হতাম তাহলে এত দূর আসতে পারতাম না। যারা আমার সঙ্গে কাজ করেছে, তারা ভালো বলতে পারবে। আমি অন্যদের মতোই নিজের যত্ন নিই।”


    ২০১৪ বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি গোল করে ফুটবল দুনিয়ায় হৈচৈ ফেলে দিয়েছিলেন হামেস। বিশ্বকাপের পরপরই প্রায় ৭৫ মিলিয়ন ইউরো খরচ করে মোনাকো থেকে তাকে তখন মাদ্রিদে এনেছিলেন ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ। শুরুর দিকে মাদ্রিদের একাদশে নিয়মিত ছিলেন। তবে চোট, ফর্মসহ নানা কারণে ধীরে ধীরে একাদশে জায়গা পাওয়াটা কঠিন হয়ে পড়ে তার জন্য। সে কারণে দুই মৌসুম বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে ধারে খেলে আবার পুরনো রূপ ফিরেও পেয়েছিলেন তিনি। তবে গত গ্রীষ্মে মাদ্রিদে ফিরে এসেই আবার ছন্দপতন। মাঠে নামার সুযোগ পাচ্ছেন না মোটেই। অবশ্য রিয়ালের শেষ ম্যাচে সোসিয়েদাদের বিপক্ষে তাকে প্রথম একাদশে রেখেছিলেন জিনেদিন জিদান।

    তবে খেলার সুযোগ এত কম পাচ্ছেন কেন তার কারণ হামেসেরও জানা নেই, “আমিও জানতে চাই, কেন আমি খেলার সুযোগ কম পাচ্ছি। আমি আগেও বলেছি, একটি নির্দিষ্ট সেটআপে আপনি যখন ট্রফি জিতবেন, সাফল্য পাবেন তখন সেটিতে পরিবর্তন আনা মুশকিল। আর কোচ যদি আপনাকে খেলার পর্যাপ্ত সুযোগ না দেয়, সেটি বিষয়টিকে আরও জটিল করে তোলে। খেলার সুযোগ না পেলে তো আর সামর্থ্য দেখানো যায় না। কোচের সঙ্গে আমার কোনও সমস্যা নেই। সব কোচেরই পছন্দ-অপছন্দ আছে। আমার সঙ্গে কোচের সাধারণ কাজের সম্পর্ক আছে। তবে আমি যে দলের অন্যতম মূল খেলোয়াড় নই, এটি পরিষ্কার। তবুও আমি কাজ করে যাচ্ছি, অনুশীলন করছি, যাতে ডাক পড়লেই আমি নিজের সেরাটা দিতে পারি।”

    গত কয়েক মাসে হামেস রদ্রিগেজের রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে অন্য কোনও ক্লাবে পাড়ি জমানোর খবর চাউর হয়েছে ইউরোপীয় সংবাদমাধ্যমে। বিশেষভাবে এমএলএসে ডেভিড বেকহামের ক্লাব ইন্টার মায়ামিতে যেতে পারেন বলে গুঞ্জন উঠেছিল। তবে ইএসপিএনের কাছে তার কাছের লোকেরা আমেরিকায় পাড়ি জমানোর সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন। এক্ষেত্রে প্রিমিয়ার লিগ বা সিরি আ-কেই পছন্দের তালিকায় এগিয়ে রাখবেন বলে ধারণা সংশ্লিষ্টদের। তবে হামেসের নিজের ভাষায় এমন ক্লাবে যেতে চান তিনি, যেখানে তার প্রতিভা প্রদর্শনের পর্যাপ্ত সুযোগ পাবেন, “ভবিষ্যতে কী হবে সেটি তো কারও জানা নেই। তবে যদি আমাকে বেছে নিতে বলা হয় তাহলে আমি এমন ক্লাবকে বেছে নিব, যেখানে আমার সক্ষমতা এবং দক্ষতা প্রদর্শনের সুযোগ পাব।”

    গত গ্রীষ্মে স্পেন, ইতালি এবং চীনের বেশ কয়েকটি ক্লাব তাকে দলে টানতে মাদ্রিদের সঙ্গে আলোচনা করেছিল বলেও জানিয়েছেন তিনি। ইতালি এবং চীনে যেতে না চাইলেও স্প্যানিশ ক্লাবের প্রস্তাবটি গুরুত্ব সহকারে দেখছিলেন তিনি। তবে মাদ্রিদ সেই প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয়। আর তাই না চাইতেও মাদ্রিদে প্রাক-মৌসুমের অনুশীলনে যোগ দিয়েছেন বলেও সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন ২০১৪ বিশ্বকাপে গোল্ডেন বুটজয়ী এই তারকা ফুটবলার।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন