• লা লিগা
  • " />

     

    বার্সেলোনায় 'গৃহযুদ্ধ': সেতিয়েনের ওপর আস্থা হারিয়ে ফেলছেন বার্সা খেলোয়াড়রা?

    সেল্টা ভিগোর সঙ্গে ড্রয়ের পর খেলোয়াড়দের সঙ্গে সম্পর্কের ব্যাপক অবনতি হয়েছে বার্সেলোনার কোচিং স্টাফদের, জানিয়েছে ইএসপিএন। ম্যাচের সময়ই দেখা গেছে, পানি পানের বিরতিতে সেতিয়েনের সহকারী এডের সারাবিয়ার কথা কানেই তুলছেন না মেসি। আর ম্যাচের পরে তো সেল্টা ভিগোর বিপক্ষে জোড়া গোল করেও দলকে জেতাতে না পারা লুইস সুয়ারেজ অনেকটা সরাসরিই সেতিয়েনকে দলের বাজে অ্যাওয়ে ফর্মের জন্য দুষেছেন। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমের সূত্র অনুযায়ী, প্রথম দিন থেকেই সেতিয়েনের সঙ্গে খেলোয়াড়দের একটি দূরত্ব তৈরি হয়েছে, যা ক্রমেই বিস্ফোরণের রূপ নিচ্ছে।

    মাঝে এল ক্লাসিকোর সময় সেতিয়েনের সহকারী সারাবিয়া টাচলাইন থেকে খেলোয়াড়দের গালমন্দ করে আলোচনায় এসেছিলেন। পরে অবশ্য সেতিয়েন স্কোয়াডের সবার কাছে ক্ষমা চেয়ে সে যাত্রায় জটিলতার নিষ্পত্তি করেছিলেন। তবে আসলেই কি শেষ হয়েছিল জটিলতা? কারণ বার্সেলোনার গোলরক্ষক মার্ক আন্দ্রে টার স্টেগেন সেতিয়েনের গোলকিপিং কোচের কাছ থেকে পাঠ নিতে নারাজ। তার বদলে হোসে রেমন ডে লা ফুয়েন্তে রয়েছেন তার গোলকিপিং কোচ হিসেবে। স্বাভাবিকভাবেই তাই বার্সাকে এখন দুইজন গোলকিপিং কোচ রাখতে হচ্ছে। আর সবমিলিয়ে তাই বার্সেলোনার ড্রেসিং রুমে জটিলতা বাড়ছে বৈ কমছে না।

     


    জানুয়ারিতে কোপা দেল রে ফাইনালে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের কাছে হারের পর আর্নেস্ত ভালভার্দের চাকরি যায়। তবে লিগে বার্সা তখন শীর্ষে। সেতিয়েনের হাতে মেসিদের দায়িত্ব তুলে দেয় ক্লাব। ২০২২ পর্যন্ত চুক্তি করা হয় তার সঙ্গে। যদিও গেট-আউট ক্লজের মাধ্যমে ২০২১ সালেও ক্লাব ছাড়ার সুযোগ রয়েছে তার সামনে। তবে অবস্থাদৃষ্টে যা মনে হচ্ছে, ২০২১ পর্যন্ত টিকে থাকাটাও ক্রমেই চ্যালেঞ্জে পরিণত হচ্ছে সেতিয়েনের জন্য।

    বার্সেলোনায় আসার পর এখন পর্যন্ত ১৭ ম্যাচে ডাগআউটে দাঁড়িয়েছেন সেতিয়েন। এর মাঝে ১১ ম্যাচে তার অধীনে জিতেছে দল, ন্যু ক্যাম্পে জয়ের রেকর্ড শতভাগ। তবে অ্যাওয়ে ম্যাচেই গোল বাঁধছে সেতিয়েনের জন্য। ভ্যালেন্সিয়া, বিলবাও, নাপোলি,মাদ্রিদ, সেভিয়া, সেল্টার কারও মাঠে থেকেই জয় নিয়ে ফিরতে পারেনি কাতালান ক্লাবটি। আর বাজে অ্যাওয়ে ফর্মের খেসারত দিয়ে মাদ্রিদের কাছে হারাতে হয়েছে লিগের শীর্ষস্থান। এমন অবস্থায় লিগ বা চ্যাম্পিয়নস লিগে সাফল্য না পেলে এই মৌসুম শেষেই ছাটাই হয়ে যেতে পারেন সেতিয়েন, এমন খবরও প্রকাশিত হচ্ছে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমে।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন