• লা লিগা
  • " />

     

    'দলের ভারসাম্য নষ্ট হওয়ার' ভয়ে গ্রিজমানকে নামাননি সেতিয়েন

    দুইবার এগিয়ে গিয়েও কাল অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের সঙ্গে ড্র করেছে বার্সেলোনা। আর তাতে আরও মলিন হয়েছে লা লিগা ধরে রাখার স্বপ্ন। রেফারিং আলোচনার কেন্দ্রে থাকলেও বড় একটা প্রশ্ন ছিল, কেন আঁতোয়ান গ্রিজমানকে খেলা শেষ হওয়ার কয়েক মিনিট আগে নামালেন? কেন লুইস সুয়ারেজকে পুরোটা সময় খেলিয়ে গেলেন? ম্যাচ শেষে সেতিয়েন অবশ্য আত্মপক্ষ সমর্থনে বলেছেন, দলের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যেতে পারে সেজন্য কাল গ্রিজমানকে নামাননি।

    অ্যাটলেটিকোর বিপক্ষে ২-২ হওয়ার পরও আক্রমণে পরিবর্তন আনতে ৮৫ মিনিট সময় নিয়েছেন সেতিয়েন। তবে তখনও গ্রিজমানকে নামাননি, আনসু ফাতিকে নেমেছেন। গ্রিজমান শেষ কয়েক মিনিট নেমে কিছু করতেও পারেননি। বার্সা সমর্থকেরা তাই প্রশ্ন করতেই পারে, গ্রিজমানকে নামাতে এতটা বেশি সময় নিলেন কেন সেতিয়েন? যেখানে সুয়ারেজ ম্যাচের বেশির ভাগ সময় জুড়েই নিষ্প্রভ ছিলেন?

    ম্যাচ শেষে সেতিয়েন নিজের আত্মপক্ষ সমর্থন করেছেন এভাবে, ‘সবাই তো খেলতে পারে, সমস্যা সেটা নয়। সমস্যা হচ্ছে আমাকেও একটা সিদ্ধান্ত নিতে হবে। ওকে (গ্রিজমানকে) অত পরে নামানো যৌক্তিক নাও হতে পারে, তবে না নামালে সেটা আরও খারাপ হতে পারত’

    সেতিয়েনের দাবি, গ্রিজমানকে নামালে দলের ভারসাম্য ঠিক থাকত না, ‘দেখুন, গ্রিজমানের মতো খেলোয়াড় কী করতে পারে সেটা আমরা সবাই জানি। কিন্তু এটাও দেখতে হবে, দল ভালো করছিল। রিকি (পুই) ভালো খেলছিল। আর মেসি ও সুয়ারেজ তো দলে ছিলই। এখন ভারসাম্য নষ্ট না করে গ্রিজমানকে নামানো অনেক কঠিন।’

    তাহলে কি গ্রিজমানের ওপর থেকে আস্থা হারিয়ে ফেলেছেন বার্সা কোচ? সেতিয়েন সেরকমও মনে করেন না, ‘ব্যাপারটা এমন নয় তার ওপর আমার কোনো আত্মবিশ্বাস নেই। সে অসাধারণ খেলোয়াড় সেটা আমরা জানি। আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্নও। আমি মানি, শেষ দিকে নেমে খুব বেশি কিছু করার সুযোগ ছিল না তার। আমি ওর সঙ্গে কথা বলব কাল। আমি সরি বলব না, কারণ আমাকে চিন্তাভাবনা করেই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। তবে আমি বুঝি ওর খারাপ লাগতে পারে। ও দারুণ একজন খেলোয়াড়, আমারও খারাপ লাগে ওর জন্য।’

    ১২০ মিলিয়ন দিয়ে বার্সায় আসার পর গ্রিজমান এখন পর্যন্ত ১৪ গোল করেছেন। তবে গত কয়েকটা ম্যাচে সুযোগ পাননি সেভাবে, কালও সেটাই হয়েছে। এই মুহূর্তে বার্সা রিয়ালের চেয়ে ১ পয়েন্ট পিছিয়ে, আজ রিয়াল জিতলে সেটা হয়ে যাবে ৪ পয়েন্ট। লা লিগা জেতা খুব কঠিন এখন, সেতিয়েন কি চাকরি বাঁচাতে পারবেন? এর মধ্যে আবার শোনা যাচ্ছে ড্রেসিংরুমের বিদ্রোহের খবর। সেতিয়েন অবশ্য উড়িয়ে দিয়েছেন ধারণাটা, তবে জানিয়েছেন অ্যাটলেটিকো ম্যাচের আগে বার্সা সভাপতির সঙ্গে বৈঠক হয়েছে তার। সেখানে কী কথা হয়েছে সেটা অবশ্য জানাননি। তাহলে কি সেতিয়েনের শেষের শুরুটা হয়েই গেল?

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন