• লা লিগা
  • " />

     

    ৩ ম্যাচ বাকি থাকতে আবারও ৪ পয়েন্টে এগিয়ে গেল রিয়াল

    ফুলটাইম
    রিয়াল মাদ্রিদ ২-০ আলাভেস 


    টানা ৩ ম্যাচে এক গোলের জয়ের পর এবার আরেকটু স্বস্তি নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারল রিয়াল মাদ্রিদ। দুই অর্ধে করিম বেনজেমা আর মার্কো আসেনসিওর দুই গোলে লা লিগা জয়ের পথে আরেকটু এগিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। লিগের বাকি আর মাত্র ৩ ম্যাচ। আলাভেসের বিপক্ষে টানা অষ্টম জয়ে আবারও বার্সেলোনার ওপর ৪ পয়েন্টের লিডে চলে গিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ।

    লিগে বড় কোনো নাটকীয় পরিবর্তন না এলে রিয়াল মাদ্রিদ যে শিরোপা জিতছে সেটা এখন প্রায় নিশ্চিতই। তবে শুরুতে আলফ্রেড ডি স্টেফানো স্টেডিয়ামে বার্সেলোনার আশার পালে হাওয়া দিয়ে রেখেছিল আলাভেস। হোসেলু আর লুকাস পেরেজ দারুণ দুইটি সুযোগ পেয়েছিলেন। ৩ মিনিটে বাম দিক থেকে আসা ক্রসে প্রথমে পেরেজের হেড গিয়ে লাগে বারপোস্টে, ফিরতি বলও গোল বরাবর মেরেছিলেন পেরেজ। কিন্তু রাফায়েল ভারান গোল লাইন থেকে বল ফিরিয়ে দিলে আর এগিয়ে যাওয়া হয়নি আলাভেজের। 


    রিয়াল অধিনায়ক সার্জিও রামোস ও দানি কারভাহাল ছিলেন না নিষেধাজ্ঞার কারণে। মার্সেলোও চোটের কারণে ছিলেন না দলে। লুকাস ভাসকেজকে রাইটব্যাকে খেলিয়ে নতুন চেহারার রক্ষণ সাজিয়েছিলেন জিনেদিন জিদান। আলাভেজও শুরুতে সেই রক্ষণ কাঁপিয়ে দিয়েছিল। এরপর অবশ্য আগের দুই ম্যাচের মতোই পেনাল্টি পেয়ে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছে রিয়াল।

    ফার্লন্ড মেন্ডি বক্সের ঠিক ভেতরে ঢুকে বাইলাইনের কাছাকাছি যাচ্ছিলেন। তাকে তাড়া করতে থাকা জিমো নাভারো স্লাইড ট্যাকেল করতে গিয়েও করেননি। তবে নাভারোর আনাড়ি প্রচেষ্টার সময় তার পায়ে লেগে পড়ে যান মেন্ডি। পরে ভিএআরের সাহায্যে রেফারিও পেনাল্টির বাঁশি বাজান। রামোস ছিলেন না, করিম বেনজেমা তার কাজটা করে দিয়েছেন অবলীলায়। ম্যাচের ১০ মিনিটে আগের দুই ম্যাচের মতো পেনাল্টি থেকেই এগিয়ে গেছে রিয়াল।

    মৌসুমের শুরুটা ভালো হলেও করোনাভাইরাসের বিরতি শেষে লিগ শুরু হওয়ার পর ৭ ম্যাচে মাত্র একবার জয়ের মুখ দেখেছিল আলাভেস। তবে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে পিছিয়ে পড়ার পরও ভালো সুযোগ এসেছিল তাদের সামনে। স্কটিশ ফুটবলার অলিভিয়ের বুর্কে বক্সের ভেতর ঢুকে দারুণ একটি শট করেছিলেন, তবে থিবো কোর্তোয়ার সেভে আর ম্যাচে ফেরা হয়নি আলাভেসের।

    আলাভেসের প্রতিরোধ অবশ্য ওই পর্যন্তই শেষ। এরপর রিয়াল মাদ্রিদ ম্যাচটা নিজেদের করে নিয়েছে। আলাভেজ গোলরক্ষক রবার্তোকে এরপর বেশ কয়েকবার পরীক্ষায় ফেলেছে রিয়াল। 

    দ্বিতীয়ার্ধে ৫ মিনিটে আক্রমণভাগের ৩ খেলোয়াড়ই অবদান রেখেছেন রিয়ালের দ্বিতীয় গোলে। রদ্রিগোর নিখুঁত থ্রু পাস অনসাইডে থেকে গোলের সামনে নিয়ে গিয়েছিলেন করিম বেনজেমা। নিজে শট না করে আসেনিসোর দিকে বাড়িয়েছেন স্কয়ার পাস। গোলের সামনে থাকা আসেনসিও করেছেন বাকি কাজটা। রেফারি অবশ্য শুরুতে অফসাইডের কারণে গোল বাতিল করেছিল। তবে লম্বা ভিএআর চেকের পর সিদ্ধান্ত গেছে রিয়ালের পক্ষেই।

    দুই গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর রবার্তো রদ্রিগো, বেনজেমাদের আরও অন্তত দুইটি শট ঠেকিয়ে রিয়ালের জয়ের ব্যবধান আর বাড়তে দেননি। আয়েশী জয়ে জিনেদিন জিদান শেষদিকে এডেন হ্যাজার্ডকে মাঠে নামার সুযোগ করে দিয়েছেন। 

    রিয়াল মাদ্রিদের পরের দুই ম্যাচে ভিয়ারিয়াল ও গ্রানাডার বিপক্ষে। বার্সেলোনা যাই করুক না কেন, এই দুই ম্যাচে জয় পেলেই ২০১৬-১৭ মৌসুমের পর আবারও লা লিগার শিরোপা ঘরে তুলবে জিদানের দল।
     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন