• সিরি আ
  • " />

     

    সিরি আ-র শেষ দিনে ইমমোবিলে ছুঁলেন হিগুয়াইনকে, নতুন উচ্চতায় ইব্রা

    শেষ হল সিরি আ-র ২০১৯-২০ মৌসুম। টানা নবমবার এই শিরোপা ঘরে তোলা জুভেন্টাসের হাতে আনুষ্ঠানিকভাবে উঠল এই মৌসুমের ট্রফি। তবে সিরি আ-র শেষ দিনে শুধু শিরোপা হস্তান্তরের আনুষ্ঠানিকতাই নয়, লাৎসিও অধিনায়ক সিরো ইমমোবিলে সিরি আ-র গোল্ডেন বুট এবং ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শু জয় নিয়েও সমর্থকদের আগ্রহ ছিল এদিন। লিগে ৩৬ গোল করে সিরি আ-র গোল্ডেন বুট জিতে নিয়েছেন তিনি, সঙ্গে বায়ার্ন মিউনিখ গোলমেশিন রবার্ট লেভানডফস্কির চেয়ে দুই গোলে এগিয়ে থেকে ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শু-ও নিজের করে নিয়েছেন এই ইতালিয়ান ফরোয়ার্ড।


    ২০০৬-০৭ মৌসুমে রোমার ফ্রান্সেসকো টট্টির পর গত মৌসুম পর্যন্ত প্রতিবারই লা লিগার ফুটবলারদের ভাগ ছিল এই পুরস্কারে। তবে দুর্দান্ত মৌসুম কাটিয়ে এই পুরষ্কারের ওপর থেকে লা লিগার ছায়া সরিয়ে সিরি আ-র নাম লিখিয়েছেন ইমমোবিলে। লিগের শেষ দিনে নাপোলির কাছে ৩-১ গোলে হেরে গেছে তার দল। তবে ম্যাচে  গোল করে ২০১৫-১৬ মৌসুমে গনজালো হিগুয়াইনের করা সিরি আ-র এক মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলের (৩৬ গোল) রেকর্ডে ভাগ বসিয়েছেন তিনি।

    এদিকে সিরি আ-য় নিজের প্রত্যাবর্তনের মৌসুমকে স্মরণীয় করে রাখলেন এসি মিলান ফরোয়ার্ড ইব্রাহিমোভিচ। ইতালিয়ান ফুটবলের প্রথম বিভাগে সবচেয়ে বয়স্ক খেলোয়াড় হিসেবে এক মৌসুমে ১০ গোল করেছেন এই ৩৮ বছর বয়সী সুইডিশ। প্রায় ৬০ বছর আগে সাবেক জুভেন্টাস এবং লাৎসিও ফুটবলার সিলভিও পিওলার রেকর্ড ভেঙে নিজের নাম নতুন করে ইতিহাসের পাতায় লিখিয়েছেন ইব্রাহিমোভিচ।


    আর জানুয়ারিতে এসি মিলানে দ্বিতীয়বারের মতো যোগ দেওয়ার পর থেকেই দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দেখিয়ে যাচ্ছেন ইব্রাহিমোভিচ। আর সেই সুবাদে এসি মিলানেরও যেন পুনর্জন্ম হচ্ছে। টেবিলের ছয়ে থেকে লিগ শেষ করায় আগামী মৌসুমে ইউরোপা লিগে খেলা নিশ্চিত হয়েছে তাদের। একইসঙ্গে সিরি আ মৌসুমের শেষ ১২ ম্যাচে অপরাজিত থেকে সোনালি দিনের স্মৃতি ফিরিয়ে এনেছে ক্লাবটি। ১৯৯১-৯২ মৌসুমে ফাবিও ক্যাপেলোর অধীনে শেষ এমন কীর্তি গড়েছিল এসি মিলান।

    মিলানের প্রতিবেশী ইন্টারও এগিয়ে যাচ্ছে দারুণ গতিতে। চ্যাম্পিয়ন জুভেন্টাসের চেয়ে মাত্র ১ পয়েন্ট পিছিয়ে থেকে লিগ শেষ করেছে দলটি। ৩৮ ম্যাচ থেকে ৮২ পয়েন্ট সংগ্রহ করেছিল নেরাজ্জুরিরা। ২০০৯-১০ মৌসুমের পর প্রথমবারের মতো সিরি আ-য় ৭৯-র বেশি পয়েন্ট সংগ্রহ করতে পেরেছে দলটি। ২০০৯-১০ মৌসুমে হোসে মরিনহোর অধীনে ট্রেবলজয়ী ইন্টার সেই মৌসুম ৮২ পয়েন্ট নিয়ে শেষ করেছিল।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন