• ক্রিকেট, অন্যান্য
  • " />

     

    অবসর ভেঙে ফিরে আসছেন যুবরাজ সিং

    গত বছরের জুনে ক্রিকেটকে বিদায় বলেছিলেন ভারতীয় অলরাউন্ডার যুবরাজ সিং। তবে এক বছরের কিছু সময় পর মত পাল্টানোর ইঙ্গিত দিচ্ছেন তিনি, আবারও ফিরে আসতে চান ক্রিকেটে। তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বা ফ্রাঞ্চাইজি লিগগুলোতে নয়, তিনি খেলতে চান ভারতের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে পাঞ্জাবের হয়ে।

    করোনার মাঝে বেশ কিছুদিন যুবরাজ পাঞ্জাব ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের অনুরোধে মোহালিতে কাজ করছিলেন পাঞ্জাবের চার ক্রিকেটারের সঙ্গে। শুবমান গিল, অভিষেক শর্মা, প্রভসিমরান সিং এবং আনমোলপ্রিত সিংদের সঙ্গে কাজ করতে গিয়েই নিজের খেলোয়াড় সত্ত্বাকে আবার খুঁজে পান যুবরাজ। আবারও ব্যাট-বল হাতে মাঠে নেমে পড়ার আগ্রহ তৈরি হয় তার মাঝে। আর সেজন্যই ভারতের ঘরোয়া ক্রিকেট আবারও শুরু হলে পাঞ্জাবের হয়ে টি-টোয়েন্টি খেলতে চান যুবরাজ।


    ক্রিকবাজের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে নিজের এই আগ্রহের কথা জানিয়েছেন যুবরাজ, “আমি এই তরুণদের সাথে সময় কাটানোটা বেশ উপভোগ করেছি। তাদের সাথে খেলার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেছি। আমার মনে হয়েছে, আমি তাদের যা বলেছি তা তারা বুঝতে পেরেছে। অনেক সময় ধরে আমি ব্যাট হাতে নিইনি, তবে তাদের কয়েকটি জিনিস দেখাতে যখন নেটে ব্যাটিং করলাম, তখন বল ভালোই হিট করতে পেরেছি।”

    পাঞ্জাবের অফ-সিজন ক্যাম্পে অনুশীলন ম্যাচ খেলেছিলেন যুবরাজ। সেখানে ব্যাট হাতে রান পেয়েছেন তিনি। এরপরই অবসর ভেঙে তাকে ঘরোয়া ক্রিকেটে ফিরতে অনুরোধ করেন পাঞ্জাব ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের সচিব পুনিত বালি। পাঞ্জাবের তরুণ ক্রিকেটাররা কাম্পে যুবরাজের পরামর্শগুলোকে আগ্রহের সঙ্গে গ্রহণ করছে আর যুবরাজও খেলার মতো অবস্থায় রয়েছেন, সেজন্যই অনুরোধ করেছিলেন তিনি। আর সেই অনুরোধের কথা ভেবেচিন্তে অবশেষে ঘরোয়া ক্রিকেটে ফেরার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যুবরাজ, “শুরুতে প্রস্তাবটি গ্রহণ করার ব্যাপারে নিশ্চিত ছিলাম না। ঘরোয়া ক্রিকেট যথেষ্ট খেলেছি। বিসিসিআইয়ের অনুমতি পেলে বিদেশী ফ্রাঞ্চাইজি লিগগুলোতে খেলার পরিকল্পনা ছিল। তবে বালির অনুরোধটিও ফেলে দেওয়া যায় না।”

    “প্রায় তিন-চার সপ্তাহ বিষয়টি নিয়ে অনেক ভেবেছি। ভাজ্জি (হারভাজন সিং) আর আমি দেশের হয়ে অনেক কিছু জিতেছি, তবে পাঞ্জাবের হয়ে একসাথে কিছু জয় করিনি। পাঞ্জাবকে চ্যাম্পিয়নশিপ জেতাতে চাই, এটাই আমার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পেছনে মূল অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে।”

    এরই মধ্যে অবসর ভেঙে ঘরোয়া ক্রিকেটে ফিরতে চেয়ে বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি এবং সচিব জয় শাহ বরাবর চিঠি পাঠিয়েছেন যুবরাজ। পাঞ্জাবের হয়ে টি-টোয়েন্টি খেলার অনুমতি পেলে আপাতত বিদেশী ফ্রাঞ্চাইজি লিগে খেলার চিন্তাও বাদ দেবেন তিনি। বোর্ডের কাছ থেকে অবশ্য এখনো কোনো জবাব আসেনি।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন