• ক্রিকেট, অন্যান্য
  • " />

     

    আফগানিস্তানে দলের হয়ে খেলতে নেমে গেলেন ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিক, এরপর নিষিদ্ধ

    সাধারণত ফ্রাঞ্চাইজি ক্রিকেটে দলের মালিকদের কাজ থাকে একটা ভালো স্কোয়াড তৈরি করা। গাঁটের পয়সা খরচ করে তৈরি করা সেই দল এরপর টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করে মালিকের জন্য হয়তো অর্থ এবং খ্যাতি নিয়ে আসে। ডাগ-আউটে বসে দলকে উৎসাহ দেন তারা, এমন দৃশ্যও তো নিয়মিতই। তবে দলের মালিক যদি নিজেই বল হাতে মাঠে নেমে যান, তাহলে বিষয়টি কেমন হবে! আফগানিস্তানের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট স্পাগিজা ক্রিকেট লিগে গত ১৩ সেপ্টেম্বর এমনই এক বিরল দৃশ্য দেখা গেছে।


    কাবুল ঈগলস নামের সেই দলের ৪০ বছর বয়সী মালিক আব্দুল লতিফ আয়ুবি সেপ্টেম্বর স্পিন ঘার টাইগার্সের বিপক্ষে একাদশে ছিলেন। ম্যাচে প্রথমে তার দল বোলিং করে স্পিন ঘরকে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৪২ রানে আটকে রাখে। দলের হয়ে ‘মিডিয়াম ফাস্ট’ বোলার লতিফ এক ওভার বল করে ১৬ রান দিয়েছেন। জবাবে ব্যাট করতে নেমে তার দল ২.১ ওভার হাতে রেখেই ম্যাচ জিতে নিয়েছে।

    তবে দল ম্যাচ জিতলেও লতিফের পেয়েছিলেন দুঃসংবাদ, টুর্নামেন্টে আর মাঠে আসতে পারেননি তিনি। ‘অসদাচরণ, খেলোয়াড়দের সঙ্গে দুর্ব্যবহার এবং গালিগালাজ করা ও সম্পদের ক্ষতিসাধন করায়’ তাকে টুর্নামেন্ট থেকে নিষিদ্ধ করেছিল আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ড।

    লতিফ টুর্নামেন্টে আর খেলতে না পারলেও তার দল কাবুল স্পাগিজা ক্রিকেট লিগের এবারের আসর জিতে নিয়েছে। ফাইনালে মিস-এ-আইনাককে হারিয়ে শিরোপা জিতেছে তারা।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন