• ক্রিকেট, অন্যান্য
  • " />

     

    ক্রিকেটকে অশ্রুসিক্ত বিদায় উমর গুলের

    নিজেকে একসময় গিয়ে আর ধরে রাখতে পারলেন না, কেঁদেই দিলেন। সতীর্থদের গার্ড অফ অনার পেরিয়ে, পিসিবির সম্মাননা স্মারক নেওয়ার পর কথা বলতে গিয়ে আবেগী হয়ে পড়েছিলেন উমর গুল। নিজের বিদায়বেলায় আবেগ ছুঁয়ে যায় না কাকে!

    শুক্রবার সব ধরনের ক্রিকেটকে বিদায় বলেছেন পাকিস্তান পেসার উমর গুল। পাকিস্তানের ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি কাপ থেকে নিজের দল বেলুচিস্তানের বিদায়ের পর এ সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন তিনি। অশ্রুসিক্ত আবেগী গুলকে সম্মাননা জানিয়েছে পিসিবি, টুইটারে পাকিস্তান ক্রিকেটারদের প্রশংসা ঝড়েছে তার প্রতি। 

    ২০০৩ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে অভিষেকের পর সে বছরই বাংলাদেশের বিপক্ষে অভিষেক টেস্ট খেলেছিলেন গুল। এরপর প্রায় ১৩ বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে পাকিস্তানের হয়ে খেলেছেন ৪৭ টেস্ট, ১৩০ ওয়ানডে ও ৬০টি টি-টোয়েন্টি। তিন ফরম্যাট মিলিয়ে ৪২৭টি আন্তর্জাতিক উইকেট আছে তার।
     


    একসময় পাকিস্তানের পেস আক্রমণের নেতৃত্ব ছিল তার কাছে। টি-টোয়েন্টিতে পাকিস্তানের অন্যতম সেরা পেসার তিনি, তার ইয়র্কার ছিল বিখ্যাত, বিশেষ করে এ ফরম্যাটে। ২০০৭ ও ২০০৯ ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি ছিলেন গুল, প্রথমটিতে রানার্স-আপ ও পরেরটিতে পাকিস্তান হয়েছিল চ্যাম্পিয়ন। তার ৬ রানে ৫ উইকেট একসময় টি-টোয়েন্টির সেরা বোলিং ফিগার ছিল। 

    অবশ্য চোট পাকিস্তানের হয়ে ক্যারিয়ারটা আর দীর্ঘ করতে দেয়নি তাকে, ২০১৫ বিশ্বকাপেও বাদ পড়েছিলেন। পরের বছর ফিরেছিলেন, তবে সে যাত্রায় খুব বেশি ম্যাচ খেলা হয়নি তার। 

    “ভারাক্রান্ত হৃদয় ও অনেক চিন্তাভাবনার পর আমি বিদায় বলার সিদ্ধান্ত নিয়েছি সব ফরম্যাট থেকে, এই ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি কাপের পর। আমি সবসময় সবকিছু উজাড় করে দিয়ে, শতভাগ কঠোর পরিশ্রমে পাকিস্তানের হয়ে খেলেছি। ক্রিকেট সবসময়ই আমার ভালবাসা ছিল, সবসময় থাকবে। তবে সবকিছুরই শেষ হয়। আশা করি ভবিষ্যতে আমার জন্য আরও কিছু আছে”, নিজের ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন গুল। 

    অবসরের পর তার ভক্ত, পরিবার, পিসিবিকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন গুল। এক বিবৃতিতে পিসিবির প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খান বলেছেন, “উমরের ক্যারিয়ার শুধু ম্যাচসংখ্যা, উইকেটসংখ্যায় সংজ্ঞায়িত হবে, সেটা হবে ক্রিকেটের চেতনা লালন করার জন্য-- সেটা তার ক্লাব, শহর, রাজ্য এবং দেশের হয়ে খেলা হোক না কেন। ক্রিকেটার এবং ব্যক্তি হিসেবে তাকে সবাই সম্মান করে।” 

    অবসরের আগেই পিসিবির ক্রিকেট কমিটিতে দায়িত্ব পালন করে আসছেন গুল। 
     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন