• লা লিগা
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    মেসির পেলেকে ছাড়ানোর দিন জয়ে ফিরল বার্সা

    দরকার ছিল শুধু একটা গোল। সেটা হয়ে গেছে লিওনেল মেসির। কাল ভায়াদোলিদের বিপক্ষে বার্সার তৃতীয় ও শেষ গোলটা করেই হয়ে গেছে কীর্তিটা। বার্সার হয়ে মেসির গোল এখন ৬৪৪, ছাড়িয়ে গেছেন ফুটবল সম্রাট পেলের সান্তোসের হয়ে ৬৪৩ গোলের রেকর্ড। ফুটবল ইতিহাসে এক ক্লাবের হয়ে সবচেয়ে বেশি গোল করার রেকর্ডটা এখন মেসিরই।

    রেকর্ডটা বার্সার আগের ম্যাচেই ছুঁয়েছিলেন মেসি। কিন্তু দল না জেতায় সেটা উদযাপন করা হয়নি সেভাবে। কাল ম্যাচের ২০ মিনিটেই মধ্যেই দুবার গোল পেয়ে যেতে পারতেন মেসি। কিন্তু সেটা হয়নি। তবে প্রথম গোলটা করিয়েছেন মেসিই, তার ক্রস থেকেই হেড করে গোল করে এগিয়ে দিয়েছেন ক্লেমেন্ত লংলে।

    গ্রিজমান ও কুতিনিওকে একাদশের বাইরে রেখে কাল দল নামিয়েছিলেন কোমান। বার্সাকেও রক্ষণে কাল একটু স্থিতিশীল মনে হয়েছে। লেংলের প্রথম গোলের পর দ্বিতীয় গোলের জন্যও বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি বার্সাকে। ৩৫ মিনিটের গোলটার কারিগরও মেসি। তার পাস থেকে রাইটব্যাক সার্জিও দেস্তের ক্রস এসে পড়ে বক্সে, পা লাগিয়ে এগিয়ে দেন মার্টিন ব্রাথওয়েট।

    শেষ পর্যন্ত মেসি নিজের সেই রেকর্ডভাঙা গোলটা পেয়েছেন ৬৫ মিনিটে। এবার মূল অবদান পেদ্রির, তার ব্যাকহিলের জন্য ফাঁকায় বল পেয়ে যায় মেসি। সুযোগটা এবার হাতছাড়া করেননি। ম্যাচের শেষ দিকে পোস্টে না লাগলে আরও একটা গোল পেতেন। কুতিনিওর শট বারে না লাগলে আরও বড় হতে পারত বার্সার ব্যবধান। সুযোগ ভায়াদোলিদও পেয়েছিল, তবে দুবার ঠেকিয়ে দিয়েছেন মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেন।

    শেষ পর্যন্ত বার্সার জয়টা স্বস্তি হয়ে এসেছে কোমানের জন্য। ১ অক্টোবরের পর কাল প্রথম অ্যাওয়ে ম্যাচে জয় পেল বার্সা, ২৪ পয়েন্ট নিয়ে লিগে পাঁচেই রইল তারা। কাল আরেক মাচে অ্যাটলেটিকো ২-০ গোলে সোসিয়েদাদকে হারিয়ে আছে শীর্ষেই। ১৩ ম্যাচে অ্যাটলেটিকোর পয়েন্ট ৩২, ১৪ ম্যাচে রিয়ালের ২৯। আর ১৪ ম্যাচ খেলে বার্সার পয়েন্ট ২৪।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন