• লা লিগা
  • " />

     

    দুর্দান্ত ফেরায় গ্রানাডাকে হারিয়ে সেমিতে বার্সেলোনা

    দুর্দান্ত ফেরায় গ্রানাডাকে হারিয়ে সেমিতে বার্সেলোনা    

    ৮৮ মিনিট পর্যন্ত ২-০ গোলে পিছিয়ে বার্সেলোনা। গ্রানাডার মাঠে পরাজয় উঁকি দিচ্ছে, আর চোখের সামনে থেকে কোপা দেল রের ট্রফিটা ধীরে ধীরে সরে যাচ্ছে রোনাল্ড কোমানের। এরপরেই কয়েক মিনিটের ম্যাজিক। আর তাতেই নির্ধারিত সময়ে ২-২ গোলে সমতা ফেরাল বার্সেলোনা, অতিরিক্ত সময়ে গিয়ে যে ম্যাচটা জিতল ৫-৩ গোলে। গ্রানাডাকে হারিয়ে কোপা দেল রের সেমিফাইনালেও উঠে গেল বার্সা।

    ৮৮ মিনিট পর্যন্তও বার্সা যখন পিছিয়ে, তখনই জেগে উঠল। মেসির লব থেকে পা ছুঁইয়ে প্রথমে দলকে এগিয়ে নিলেন গ্রিজমান। দুই মিনিটের মধ্যে সমতা ফেরাতে পারতেন মেসি, কিন্তু তার শট ফিরে আসে পোস্টে লেগে। কিন্তু যোগ করা সময়ের একদম শেষ দিকে বার্সা ঠিকই করে ফেলল কাজটা। এবার মেসির নিখুঁত ক্রস থেকে গ্রিজমানের হেড, এরপর তা থেকে হেড করে গোল করেন জর্দি আলবা।

    নাটকের অনেক কিছুই বাকি ছিল তখনো। খেলা অ্তিরিক্ত সময়ে গড়ালে ১০০ মিনিটে আবার গোল করেন গ্রিজমান। কিন্তু তিন মিনিট পরেই আবার পেনাল্টি থেকে গ্রানাডার হয়ে গোল করে সমতায় ফেরান ফেদে ভিকো। তবে বার্সাকে ঠেকানো যায়নি। এরপর মেসির গড়ে দেওয়া বল থেকে ফ্রাঙ্কি ডি ইয়ং গোল করে আবার এগিয়ে দেন বার্সাকে। আর অতিরিক্ত সময়ের একদম শেষে আলবা আরেকটি দুর্দান্ত ভলিতে গোল করে নিশ্চিত করেন জয়।

    তবে ম্যাচের শুরুতে বার্সার পিছিয়ে পড়াটা ছিল বিস্ময়ের। শুরু থেকেই তেড়েফুঁড়ে খেলতে থাকে বার্সা। কিন্তু খেলার ধারার বিপরীতেই ৩৩ মিনিটে স্যামুয়েল উমতিতির ভুল থেকে বল পেয়ে এগিয়ে যায় গ্রানাডা। ৪৭ মিনিটে বর্ষীয়ান স্ট্রাইকার রবার্তো সলদাদো গোল করে আবার এগিয়ে দেন গ্রানাডাকে। এরপর একের পর এক আক্রমণ করেও গোল পাচ্ছিল না বার্সা। শেষ কয়েক মিনিটেই হয়েছে কাজ।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন