• লা লিগা
  • " />

     

    মেসি-আলবা-মরিবোদের সঙ্গে টের স্টেগেন বীরত্বে অ্যাটলেটিকোর আরও কাছে বার্সা

    মেসি-আলবা-মরিবোদের সঙ্গে টের স্টেগেন বীরত্বে অ্যাটলেটিকোর আরও কাছে বার্সা    

    কদিন আগেই সেভিয়ার সঙ্গে রুদ্ধশ্বাস ১২০ মিনিটের এক লড়াইয়ের পর ফাইনালে উঠেছে বার্সা। সেই হ্যাংওভারের কিছুটা ছাপ দেখা গেছে কাল বার্সেলোনার ম্যাচে। তবে তাতে ওসাসুনাকে হারাতে সমস্যা হয়নি, ২-০ গোলের জয়ে লা লিগার শিরোপা সম্ভাবনা ভালোমতোই বাঁচিয়ে রেখেছে। শুরুতে জর্দি আলবা ও পরে টিন এজার ইয়াক্স মরিবার গোলের সঙ্গে বড় অবদান ছিল মেসির দুই অ্যাসিস্ট আর টের স্টেগানের দুর্দান্ত গোটাকয়েক সেভেরও।  লা লিগায় সর্বশেষ ১৬ ম্যাচের ১৩টিতেই জয় পেল বার্সা, ৫ ডিসেম্বর কাদিজের কাছে হারার পর আর হারেনি।

    শুরুটা কাল দারুণ হতে পারত ওসাসুনার। প্রথম গোলটা পেয়ে যেতে পারত মিনিট দুয়েকের মধ্যেই। নিজেদের অর্ধ থেকে কিক নিয়েছিলেন জোনাথন কায়েরি, গোলও হয়ে যেতে পারত। টের স্টেগেন সতর্ক যাত্রায় এ যাত্রা বিপদ হয়নি। এরপর নিজের তিনটি গুরুত্বপূর্ণ সেভের দ্বিতীয়টি করেছেন টের স্টেগেন। কিক বারহার শট উড়ে গিয়ে দুর্দান্ত সেক সেভে গোল বাঁচিয়েছেন বার্সা কিপার। 

    তবে ৩০ মিনিটে প্রথম গোলটা পেয়ে গেছে বার্সা। উৎস মেসি, তার সেই চিরচেনা থ্রু বল। বাঁ পায়ের ডিফেন্সচেরা বলটা এখনো মনে করিয়ে দেয়, মেসি কেন মেসি। সেই বলটা দৌড়ে গিয়ে ধরলেন জর্দি আলবা, দারুণ এক বাঁ পায়ের শটে জড়িয়ে দিলেন জালে। ওসাসুনা অবশ্য এরপরও গোল করার সুযোগ পেয়েছিল। এবারও বার্সার ত্রাতা টের স্টেগেন, ক্লোজ রেঞ্জ থেকে ফিরিয়ে দিয়েছেন গার্সিয়ার শট। 

    ম্যাচের শেষদিকে দ্বিতীয় গোলটা পেয়ে যায় বার্সা। এবার মেসির কাছ থেকে বল পেয়ে টিন এজার তুরিবো একজনকে কাটালেন, এরপর বাঁ পায়ের দুর্দান্ত এক শটে বক্সের বাইরে থেকে বল জড়িয়ে দিলেন টপ কর্নারে। এই জয়ে নিশ্চিত হলো, ২৬ ম্যাচে ৫৬ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়েই আছে বার্সা। ২৪ ম্যাচে ৫৮ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে আছে অ্যাটলেটিকোই, তবে রোব বার রাতে মাদ্রিদ ডার্বিতে তারা খলবে রিয়ালের সঙ্গে। 

    এদিকে বার্সার জন্যও আজ আরেকটি মহাগুরুত্বপূর্ণ দিন। বার্তোমেউর পদত্যাগের পর আজ হবে সভাপতি নির্বাচন, লড়বেন জোয়ান লাপোর্ত, ভিক্টর ফন্ট, টনি ফ্রেইজা। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন