• প্রীতি ম্যাচ
  • " />

     

    জাতীয় দলে ফেরা স্মরণীয় করে রাখতে পারলেন না বেনজেমা-হামেলস-মুলার

    জাতীয় দলে ফেরা স্মরণীয় করে রাখতে পারলেন না বেনজেমা-হামেলস-মুলার    

    তিন বছর পর জার্মানির দলে ফিরেছিলেন ম্যাট হামেলস ও থমাস মুলার।তবে ফেরাটা স্মরণীয় হয়নি তাদের, ইউরোর আগে প্রস্তুতি ম্যাচে ডেনমার্কের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছে জার্মানি। ওয়েলসকে ফ্রান্স ৩-০ গোলে হারালেও ফেরাটা স্মরণীয় হয়নি করিম বেনজেমার। 

     ইউরোতে জার্মানদের গ্রুপ পর্বের সবকটি ম্যাচই হবে জার্মানের মিউনিখে। তবে ইউরোর আগে অস্ট্রিয়াতেই তাদের ক্যাম্প বসিয়েছে জার্মানরা।



    ম্যাচের শুরুর লাইনআপে মুলার-হামেলস দুজনেই ছিলেন। গোলের দেখা পেতে পারতেন দুজনেই। 'শুন্যসন্ধানী' মুলার শুন্য সন্ধান করেছেন ঠিকই, একা বল পেয়েও তবু হেডে বল জালে জড়াতে পারেননি। কিমিখের সেট পিস থেকে বাড়ানো বলে হামেলসের সাথে সাথে পা লাগাতে পারেননি জার্মানদের কেউই। ম্যাচের প্রথমার্ধে আসলে জার্মানদের চিত্র ছিল এমনই। যেন সুযোগ মিসের মহড়া! মিস হওয়া সুযোগগুলোর মধ্যে কোনটি ছিল সবচেয়ে সহজ সেটাই খুজে বের করা কারো পক্ষে কঠিন হয়ে দাড়ানোর কথা। গ্যানাব্রি, মুলার, সানেরা কেউই গোলের দেখা পাননি। লিওরেয় সানেকে অবশ্য একটি হলুদ কার্ডের দেখা পেতে হয়েছে। 

    ডেনমার্ক প্রথমার্ধে সেদিক দিয়ে সেভাবে গোলের কোনও সুযোগই তৈরি করতে পারেনি। দ্বিতীয়ার্ধে তাদের সে চেষ্টায় জার্মান ডিফেন্ডাররা বেশভালোভাবেই বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন। কিমিখ বক্সে ট্যাকল করে ডেনমার্ক ফুটবলারকে শট নেওয়া থেকে রুখে গোল রক্ষা করেন। ম্যাথিয়াস গিন্টার ডানদিক থেকে আসা ক্রস ক্লিয়ার করে বাঁচান জার্মানকে। ম্যাচের ৬৮ মিনিটে পলসনের শট ব্লক করেন ম্যাট হামেলস। এর তিন মিনিট পরেই যদিও সেই পলসনের শট রুখতে পারেননি ম্যানুয়েল নয়্যার। ইউসুফ পলসনের গোলে ডেনমার্ক ম্যাচে সমতায় ফিরে। 

    এর আগে প্রথমার্ধের তিন মিনিট পরেই জার্মানিকে এগিয়ে দিয়েছিলেন ফ্লোরিয়ান নেহাউস। পেনাল্টি বক্সে বারকয়েক ডিফ্লেক্টেড হয়ে পাওয়া বল জালে পাঠাতে ভুল করেননি জার্মান মিডফিল্ডার। 

    এ ম্যাচে অবশ্য ভাগ্যের উপরও দোষটা চাপিয়ে দেওয়ার সুযোগ আছে জার্মান ফুটবলারদের হাতে। নির্দিষ্ট করে বললে সার্জ গ্যানাব্রি ও থমাস মুলারের। গ্যানাব্রির বাঁ পা পায়ে নেয়া দুর্দান্ত শট ফিরে আসে ক্রসবারে লেগে। আর মুলারের গোলে বাধা হয়ে সামনে আসে গোলপোষ্ট। ম্যাচের শেষ অর্ধে গোল পেলেও সেসময়ে জার্মানরা বেশ কবার গোলের সুযোগও হাতছাড়া করেছিলো। ফলস্বরুপ ম্যাচের নিষ্পত্তি ঘটলো ১-১ গোলের ড্রতে। 

    অন্যদিকে ওয়েলসের বিপক্ষে ফ্রান্সের হয়ে পাঁচ বছর পর ফেরাটা স্মরণীয় করে রাখতে পারতেন করিম বেনজেমা। একাদশে ছিলেন, ম্যাচের প্রথমার্ধে পেনাল্টি থেকে দলকে এগিয়ে নেওয়ার সুযোগও পেয়েছিলেন। কিন্তু পেনাল্টিটা ঠেকিয়ে দেন ওয়েলস গোলরক্ষক। ফ্রান্সের হয়ে সর্বশেষ তিনটি পেনাল্টিই মিস করলেন এই স্ট্রাইকার। 

    যদিও বেনজেমা গোল না পেলেও জিততে সমস্যা হয়নি ফ্রান্সের। দশজনের ওয়েলসকে তারা সহজেই হারিয়েছে ৩-০ গোলে। কিলিয়ান এমবাপে, আঁতোইন গ্রিজমান ও উসমান দেম্বেলে করেছেন তিনটি গোল। 

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন