• রিও অলিম্পিক ২০১৬
  • " />

     

    'রিটা'ই জিতলেন স্বর্ণপদক!

    প্রথম দুই রাউন্ড শেষে ০.২৭৫ পয়েন্টে পিছিয়ে ছিলেন সেরা প্রতিদ্বন্দ্বী ইয়ানা কুদরাভসেভা থেকে। ক্লাবস রাউন্ডে ইয়ানার মারাত্মক এক ভুলে আর পিছনে তাকাতে হয়নি রিটাকে। বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত রাশিয়ান এই তরুণীই জিতে নিলেন রিদমিক জিমন্যাস্টিকসে একক অল-অ্যারাউন্ড ইভেন্টের স্বর্ণপদক। 

    রিদমিক জিমন্যাস্টিকসে এমনিতেই পূর্ব ইউরোপের জয়জয়কার। '৮৪-তে অলিম্পিকে যেবার চালু হয় এই ইভেন্ট, সেবার বাদে প্রতিবারই স্বর্ণ পেয়েছে রাশিয়া কিংবা ইউক্রেন। মার্গারিটা টানা পঞ্চমবার রিদমিক জিমন্যাস্টিকসের সোনা এনে দিলেন রাশিয়াকে। 
     


    মোট চার রাউন্ডে (হুপ, বল, ক্লাব, রিবন) লড়তে হয় এই ইভেন্টে। হুপ রাউন্ডে ১৯.০৫০, বল রাউন্ডে ১৯.১৫০, ক্লাবস রাউন্ডে ১৯.০৫০ আর রিবন রাউন্ডে ১৯.২৩৩ - একক অল অ্যারাউন্ডে মোট ৭৬.৪৮৩ পয়েন্ট পান মার্গারিটা মামুন। রিদমিক জিমন্যাস্টিকসে বিশ্ব রেকর্ডও মার্গারিটার। ২০১৬ বাকু বিশ্বকাপে ৭৭.১৫০ পয়েন্ট পেয়ে করেন এই রেকর্ড।

    রাশিয়ান ইয়ানা কুদরাভসেভা ৭৫.৬০৮ পয়েন্ট নিয়ে জিতেছেন রূপা আর ব্রোঞ্জ পাওয়া ইউক্রেনের গানা রিজাতদিনোভার পয়েন্ট ৭৩.৫৮৩। 

    উল্লেখ্য, জুনিয়র লেভেলে কিছুদিন বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করা রিটার বাবা রাজশাহীর ছেলে আবদুল্লাহ আল মামুন পেশায় একজন মেরিন প্রকৌশলী। ১৯৮৩ সালে শিক্ষাবৃত্তি নিয়ে রাশিয়া (তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন) যাওয়ার পর সেখানেই বিয়ে করে স্থায়ী হন। রিটার মা আনা-ও সাবেক রিদমিক জিমন্যাস্ট।  

     ‘বাংলার বাঘিনী’ ডাকনামের রিটার এই সাফল্যে খানিকটা গর্বিত হল বাংলাদেশও।  

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন