• বাংলাদেশ বনাম শ্রীলংকা
  • " />

     

    আশা জাগিয়েও রেকর্ড গড়া হল না বাংলাদেশের

    সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ বাংলাদেশ ১৭৬/৯, ২০ ওভার (সাকিব ৩৮, ইমরুল ৩৬, সৌম্য ৩৪; মালিঙ্গা ৩/৩৪)

     

    দারুণ শুরুর পরও শেষটা মনের মতো হল না বাংলাদেশের ইনিংসের। একটা সময় পর্যন্ত টি-টোয়েন্টিতে শ্রীলংকার বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ স্কোর (১৮১) তো বটেই, মনে হচ্ছিল এই ফরম্যাটে নিজেদের সর্বোচ্চ সংগ্রহের (১৯০) রেকর্ডটাও ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশ। কিন্তু মালিঙ্গার হ্যাট্রিকের রাতে শেষ পর্যন্ত স্বাগতিকদের সামনে ১৭৭ রানের জয়ের লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দিতে পেরেছেন সাকিব-আল-হাসানরা।

     

    তামিম ইকবালের অভাবটা বুঝতে দেন নি ইমরুল কায়েস আর সৌম্য সরকার। শুরুটা দারুণ করে দুই ওপেনার পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে তুলে নেন ৬৮ রান। ছন্দপতনের শুরুটা এরপরই, সপ্তম ওভারে প্রথমবারের মতো বল করতে এসেই স্লোয়ার অফ কাটারে সৌম্যকে কট এন্ড বোল্ড করে ফেরান গুণারত্নে, এর আগে ১৭ বলে ৪ চার আর ২ ছয়ে সৌম্য করেন ২৪। পরের ওভারে প্রসন্নকে শর্ট ফাইন লেগে ঠেলেই রানের জন্য ছুটেছিলেন ইমরুল, যতক্ষণে বিপদ আঁচ করলেন ততোক্ষণে দেরি হয়ে গেছে। প্রাণান্ত ডাইভেও উইকেট বাঁচাতে পারলেন না, ২৫ বলে ৩৬ করে ফেরেন ৪ চার আর ১ ছয়ে।

     

    সাকিব-সাব্বিরে এরপর খানিকটা প্রাণ ফেরে সফরকারীদের ব্যাটিংয়ে। প্রসন্নর পরের ওভারেই দু’বার জীবন পেয়ে সাকিব করেন ৩১ বলে ৪ চারে দলীয় সর্বোচ্চ ৩৮ রান। এর আগে সাব্বির ফেরেন ১৮ বলে ১৯ করে। শেষদিকে মোসাদ্দেকের ১১ বলে ১৭, মুশফিকের ৬ বলে ১৫ গতি ফেরায় রানের চাকায়। কিন্তু মালিঙ্গার হ্যাট্রিকে মুশফিক, মাশরাফি আর মেহেদী হাসান ফিরে গেলে ১৬৯ রানে ৮ উইকেট হারিয়ে ফেলে বাংলাদেশ। শেষ ৭ বলে সাকুল্যে ৭ রান যোগ হলে ১৭৬-এ শেষ হয় বাংলাদেশের ইনিংস।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন