• বাংলাদেশ বনাম শ্রীলংকা
  • " />

     

    টি-টোয়েন্টি এভাবেই খেলতে হয় : সাকিব

    সফরে প্রথমবারের মতো সিরিজ হারের শঙ্কা ছিল। দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচটা বাংলাদেশকে শ্রীলঙ্কা হারিয়েছিল বেশ অনায়াসেই। সেই শ্রীলঙ্কাকেই এবার অনায়াসে হারালো বাংলাদেশ। যে জয়ে বড় একটা অবদান সাকিব আল হাসানের অলরাউন্ড পারফরম্যান্সের। টি-টোয়েন্টিতে তৃতীয়বারের মতো ম্যাচসেরা হলেন সাকিব আল হাসান। স্বাচ্ছন্দ্যে খেলেই জয়টা এসেছে বলে মনে করছেন ম্যাচসেরা, ‘প্রথম ম্যাচের তুলনায় দ্বিতীয়টা বেশ স্বাচ্ছন্দ্যে খেলেছি। এটা ভাল লক্ষণ। টি-টোয়েন্টি আমার মনে হয় এভাবেই খেলা উচিৎ’।

     

    টেস্ট, ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টি, সব ফরম্যাটেই সিরিজ ড্র করেছে বাংলাদেশ। দেশের বাইরে এসে এ অর্জনকেও বড় করে দেখছেন সাকিব, ‘বিদেশে আমাদের অন্যতম সেরা সিরিজ। দেশের বাইরে তো এভাবে জেতা হয়নি আগে।’

     

    সবচেয়ে বড় উন্নতিটা চোখে পড়ছে ক্রিকেটের ক্ষুদ্রতম ও দীর্ঘতম সংস্করণেই, ‘টেস্টের উন্নতিটা বিশাল। প্রথম ম্যাচের পর আমরা যেভাবে জিতেছি, সেটা বড় অর্জন। টেস্ট বা টি-টোয়েন্টি, মানসিকতা পরিবর্তনের জায়গাটাতে আমাদের উন্নতি হয়েছে।’

     

    টেস্ট বা টি-টোয়েন্টির তুলনায় ওয়ানডেতে বাংলাদেশ বেশ ধারাবাহিকই। তবে শেষ ওয়ানডেতে আরেকটু ভাল ব্যাটিংয়ের আফসোসটাও হচ্ছে সব ফরম্যাটের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের।

     

    সামনে আইপিএল খেলতে যাবেন। আর টি-টোয়েন্টিতে তাঁর ‘ভবিষ্যত’ নিয়ে সাকিব বলেছেন, ‘সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে যদি দলের জন্য খেলতে পারা যায়, অবদান রাখা যায়। চেষ্টা করা যাতে ভাল কিছু করা যায়। আর এমনিতেও সামনে আমাদের তেমন টি-টোয়েন্টি ম্যাচ নেই। এটা নিয়ে তাই এতো দুশ্চিন্তার কিছু নেই’।  

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন