• আইপিএল
  • " />

     

    ইচ্ছা করেই এক রান কম নিয়েছেন পোলার্ড!

    জয়ের জন্য শেষ ওভারে দরকার ১৬ রান। মোহিত শর্মার প্রথম বলটা লং অনে ঠেললেন কাইরন পোলার্ড। কিন্তু যেভাবে খেলতে চাইলেন, ঠিক সেভাবে হলো না। পোলার্ড অবশ্য ঠিকই দৌড় দিলেন, ওপাশ থেকে ম্যাক্সওয়েলের থ্রো আসার আগে দুই রানও হয়ে গেল। কিন্তু দেখা গেল প্রথম রান নেওয়ার সময় নন স্ট্রাইকিং প্রান্তের দাগের ভেতর ব্যাট ছোঁয়াননি পোলার্ড, তার মানে আসলে হলো এক রান। কিন্তু তার চেয়েও বড় প্রশ্ন, পোলার্ড কি ইচ্ছা করেই ব্যাট দাগের ভেতর ছোঁয়াননি? 


    রিপ্লে দেখে সেরকমই মনে হবে। শেষ ওভারে অন্য পাশে পোলার্ডের সঙ্গী ছিলেন হরভজন সিং, জয়ের জন্য ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডারের স্ট্রাইকে থাকাটা খুব করেই দরকার ছিল। ওদিকে প্রথম বলে এক রান নিলে আবার স্ট্রাইক হারিয়ে ফেলতেন পোলার্ড। মোহিত শর্মার বলটা দুই রান নেওয়াটা কঠিনই ছিল, আরেকটু হলেই রান আউট হয়ে যেতে পারতেন পোলার্ড। রিপ্লেতে দেখা গেছে, প্রথম রানটা দাগের অনেক আগেই ব্যাট ছুঁয়ে চলে এসেছেন পোলার্ড। নিশ্চিতভাবেই জানতেন, ওটা রান হিসেবে যোগ হবে না।


    সেটা হয়ওনি। তবে পোলার্ড স্ট্রাইক বদল করে ফেলায় কাজের কাজটা করে ফেলেছেন। এক রান তো পেয়েছেনই, সঙ্গে স্ট্রাইকটাও থেকেছে তাঁর কাছে। যদিও শেষ পর্যন্ত মুম্বাই আর ম্যাচটা জিততে পারেনি, পোলার্ডকে স্ট্রাইকে রেখেই জিতে গেছে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। কিন্তু প্রশ্ন উঠে গেছে, পোলার্ডের এই কাজটা কি আইনসম্মত? 


    এমসিসির আইন বলছে, কাজটা যদি অনিচ্ছাকৃত হয়, তাহলে এক রানই কম যোগ হবে। বাড়তি কোনো শাস্তি পেতে হবে না। কিন্তু যদি সেটা ইচ্ছাকৃত হয়, তাহলে কোনো রানই যোগ হবে না। আর ব্যাটসম্যানকে সতর্ক করে দেওয়া হবে। পরের বার এই কাজ করলে পাঁচ রান জরিমানা দিতে হবে। হার্শা ভোগলেও বলেছেন, পোলার্ড সম্ভবত ইচ্ছা করেই কাজটা করেছেন। পোলার্ড তাই অল্পের ওপর দিয়েই পার পেয়ে গেছেন!  

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন