• ওয়েস্ট ইন্ডিজ-পাকিস্তান
  • " />

     

    ইয়াসিরদের ছোবল ঠেকিয়ে যাচ্ছেন চেজরা

    স্কোর (৩য় দিন শেষে)
    পাকিস্তান ১ম ইনিংস ৩৭৬
    ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২১৮/৫ (চেজ ৬০ , পাওয়েল ৩১, ব্রাথওয়েট ২৯; ইয়াসির ৩/১০৮)


     

    মাথার ওপর ৩৭৬ রানের বোঝা। ডমিনিকার উইকেটে বল যেন ব্যাটে আসতেই চায় না, আউটফিল্ডও বেশ মন্থর। তার ওপর মাঝে মাঝেই সাপের মতো ঘূর্ণিজালের ফণা তুলছিলেন ইয়াসির শাহ। এতকিছুর মধ্যেও ওয়েস্ট ইন্ডিজ তৃতীয় দিনটা দাঁতে দাঁত চেপেই পার করে দিয়েছে। ডমিনিকা টেস্টের তৃতীয় দিন শেষে ৫ উইকেট হারিয়ে তুলেছে ২১৮ রান, পিছিয়ে আছে ১৫৮ রানে। ভরসার ব্যাপার, এখনো উইকেটে আছেন হাফ সেঞ্চুরিয়ান রস্টন চেজ। 


    অবশ্য চেজ অপরাজিত থেকে কালকের দিনের শেষ পর্যন্ত ব্যাট করেননি। এই সিরিজে ব্যাটে-বলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বড় ভরসা, কালও ৯৭ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে আরও একবার ত্রাণর্কর্তা চেজই। চতুর্থ উইকেটে হোপকে নিয়ে গড়েছেন ৫৫ রানের জুটি,পরে নিজে পেয়ে গেছেন ফিফটি। আমিরের একটা শর্ট বলে আঘাত পেয়ে অবশ্য মাঠ ছাড়তে হয়েছে। তবে চোটটা খুব গুরুতর নয় বলেই জানা গেছে আজ আবার ব্যাট হাতে দেখার কথা তাঁকে। ওয়েস্ট ইন্ডিজেরও যে সেটি খুব দরকার। ৫ উইকেট হারানোর পর শেষ বিকেলে পরে আর কোনো বিপদ হতে দেননি ডাওরিচ ও অধিনায়ক হোল্ডার। 


    পাকিস্তানের বোলাররা অবশ্য ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওপর ফাঁস খুব একটা আলগা করেননি। পুরো দিন খেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ নিতে পেরেছে মাত্র ২০৪ রান। তিন পেসার আমির, আব্বাস ও হাসান ছিলেন দারুণ কৃপণ, কেউ ওভারপ্রতি ২ রানের বেশি দেননি।  ইয়াসির শাহ তিন উইকেট পেলেও তাঁর বল থেকেই বেশি রান এসেছে। অর্ধেকের বেশি রান তো তিনি একাই দিয়েছেন। তবে আজ আরও কয়েকটি উইকেট পেলে কিছু রান দিতে হয়তো ইয়াসির খুব একটা কার্পণ্য করবেন না! 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন