• " />

     

    মানকাড বিতর্কে জড়ালেন সেই বাট

    দিনের বাকি আরও ৭৮ ওভার। জয়ের জন্য ওয়াপদার প্রয়োজন ৪ রান, তবে হাতে আছে মাত্র এক উইকেট। এরকম পরিস্থিতিতে বল করতে আসলেন পেশোয়ারের তাজ ওয়ালি। কিন্তু বোলিং রানআপের একেবারে শেষে গিয়ে বল না করেই আম্পায়ারের সামনে থাকা স্টাম্পের বেল ফেলে দিলেন। ক্রিজের সামান্য বাইরে থাকা নন স্ট্রাইকার মোহাম্মদ ইরফান কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাঁকে আউট ঘোষণা করলেন আম্পায়ার, পেশোয়ার জিতে গেলো ম্যাচ। ‘মানকাড’ নামে পরিচিত এই অদ্ভুত আউটের কারণে বেজায় চটেছেন ফিক্সিংয়ের অভিযোগে নিষিদ্ধ থাকার পর ক্রিকেটে ফেরা ওয়াপদার অধিনায়ক সালমান বাট।

    ‘মানকাড’ আউট নিয়ে ক্রিকেট বিশ্বে কম বিতর্ক হয়নি। এর পক্ষেও বিপক্ষে মত দিয়েছেন সাবেক ক্রিকেটাররা। কায়েদে আজম ট্রফির ম্যাচের অন্তিম মুহূর্তে ওয়ালি এই বিতর্কিত আউট করায় আবারো আলোচনায় এলো ব্যাপারটি। স্টাম্পে বল লাগিয়ে আবেদন করার পর ব্যাপারটি নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ ভেবেছেন দুই আম্পায়ার আহমেদ শাহাব ও ফয়সাল আফ্রিদি। তবে পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেটের নিয়মে এই আউট ‘বৈধ’ থাকায় তারা আউট ঘোষণা করেন ইরফানকে।

    পরাজিত ওয়াপদা দলের অধিনায়ক সালমান বাট নিজের টুইটে বলেছেন, এটা কিছুতেই মানতে পারছেন না তিনি, “এরকম নিয়মের কী মানে হয় যেটায় জয়ী দল গর্বিত হতে পারে না ও উল্টো লজ্জিত হয়? চারদিনের এই ম্যাচের প্রতিটা মুহূর্তই প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ছিল। একবারে শেষে এসে এরকম ঘটনা দুঃখজনক। ম্যাচ জেতার পড়েও যদি পরাজিত দলের কাছে ক্ষমা চাইতে হয় জয়ী দলের, তাহলে এ নিয়ম রাখার কোনো কারণ দেখছি না।”

     

     

    তবে পেশোয়ার কোচ আব্দুল রেহমান কিন্তু এরকম আউটের জন্য ‘লজ্জিত’ নন, “আমরা তো অবৈধ কিছু করিনি। যদি কোনো নিয়ম বৈধ হয় তাহলে সেটা করতে সমস্যা কোথায়? নিয়মের মাঝে থাকা কিছু করলে সেই ব্যাপারে ক্রিকেটের স্পিরিটের প্রসঙ্গই বা আসবে কেনো?”

    ফিক্সিংয়ের অভিযোগে নিষিদ্ধ থাকা বাটের কাছ থেকে 'ক্রিকেটের স্পিরিট' নিয়ে কথা শুনে অনেকেই নিজের টুইটে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। অনেকে আবার মজা করে বলেছেন, বাটের মুখে 'নিয়ম' কিংবা 'নৈতিকতার' কথা একেবারেই মানায় না! 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন