bracket bracket
bracket bracket
  • ক্রিকেট

সৌম্য-তাসকিন অধারাবাহিক, লিটন-মুমিনুল বাদ 'সময়ের প্রয়োজনে'

প্রস্তুতি ম্যাচে ক্যাচ উঠলো একটা, ডিপ মিড-উইকেটে। সৌম্য ঠিক নাগালে পেলেন না, স্টার্টিংয়েই দেরি করে ফেললেন যেন। ওপাশ থেকে ছুটে এসেছিলেন তাসকিন, হাবভাবে যা বোঝালেন, ‘কি এটা ক্যাচ হয় না!’ হয়তো ‘সাধারণ’ সময়ে সৌম্য ক্যাচটা ঠিকই নিতেন। তবে সব মিলিয়ে সময়টা ঠিক যেন ঠিক নেই তার। শেষ পর্যন্ত বাদই পড়লেন ত্রিদেশীয় সিরিজের দল থেকে। তার সঙ্গে অবশ্য বাদ পড়েছেন তাসকিন আহমেদও। 

 

গত পঞ্জিকাবর্ষে ১১ ইনিংসে সৌম্যর রান ২৪৩, গড় ২৪.৩০। এর চেয়ে বেশি গড় আছে তামিম, সাকিব, মুশফিক ও মাহমুদউল্লাহর। সৌম্যর অর্ধেক সমান ম্যাচ খেলেও ইমরুল কায়সের গড় ৫ ইনিংসে ২৫। তবে সৌম্যর বাদ পড়ার পেছনের কারণ হিসেবে নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন বলছেন ধারাবাহিকতারই অভাব, ‘সৌম্যর মেধা নিয়ে প্রশ্ন নেই, যেহেতু ধারাবাহিকতা নেই, তাই আমরা তাকে একটা বিরতি দিয়েছি। একটা পদ্ধতির মধ্যেই আছে সে। আমাদের পুলভুক্ত খেলোয়াড় সে। আশা করি ফর্মে আসবে। আবার বিবেচনা করা হবে।’ 

 

 

 

আর বিপিএলে তাকে ঠিক ‘আপ টু দ্য মার্ক’ মনে হয়নি নির্বাচকদের, ‘সব মিলিয়েই তাকে বিরতি দরকার মনে করেছি, বিপিএলে কাছ থেকে দেখেছি। সে যথেষ্ট মেধাবি, আশা করি কামব্যাক করবে।’

 

দক্ষিণ আফ্রিকায় পারফরম্যান্স বিবেচনায় বাদ পড়েছেন পেসার তাসকিন আহমেদ। নির্বাচকদের মনে হচ্ছে, ঘরোয়াতে দীর্ঘ সংস্করণের ক্রিকেট খেলার প্রয়োজন আছে তার, ‘তাসকিনের অবস্থাও একই। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরেও সন্তোষজনক কিছু করতে পারেনি। ঘরোয়াতে খেলার দরকার আছে, লংগার ভার্শন খেলার দরকার আছে।’ 

 

আর লিটন দাস ও মুমিনুল হক ওয়ানডে স্কোয়াডে ছিলেন সময় ও পরিস্থিতির প্রয়োজনে। বাদও পড়েছেন সে কারণেই, ‘লিটনকে আমরা টেস্টের সময় চিন্তা করছিলাম। আফ্রিকার সাথে টেস্টে ভাল করার পর ওয়ানডেতে নিয়েছিলাম। কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছিল, আর এটা অনেক লম্বা পথ। তাই রেখে দিয়েছিলাম। মুমিনুলের ব্যাপারটাও তাই। তামিমের চোট ছিল, কন্ডিশনের সঙ্গে মুমিনুলও পরিচিত ছিল, তাই জরুরী প্রয়োজনের কথা চিন্তা করে রেখে দিয়েছিলাম।’  

 

আপাতত জাতীয় দলে ওয়ানডের দরজা বন্ধ এ চারজনের জন্য। চারজনেরই গন্তব্য এখন একটাই- বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগ। তাদেরকে রেখে দল ঘোষণাও করা হয়ে গেছে। মুমিনুল, লিটন দুজনই আছেন ইস্ট জোনে। সৌম্য সাউথ জোনে, আর তাসকিন সেন্ট্রাল জোনে।