• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    মরিনহোর তৃতীয় মৌসুমের "অভিশাপ" ?

    কী হয়েছে চেলসির ? প্রিমিয়ার লিগের গত মৌসুমে যে দলটা প্রায় বলে ক'য়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে, তাদের এই দুরবস্থা কেন? এভারটনের কাছে ৩-১ গোলে হার ছিল এই মৌসুমে তাদের তৃতীয় পরাজয়, এখনই সবার ওপরে থাকা ম্যানচেস্টার সিটির চেয়ে পিছিয়ে পড়েছে ১১ পয়েন্টে। যে দলটা গত মৌসুমে প্রায় নিশ্ছিদ্র মনে হয়েছিল, তাদেরকেই এখন চিনতে হচ্ছে জার্সি দেখে। কিন্তু চেলসির এই দুরবস্থা কেন?

     

    ফুটবলীয় বিচারে অনেক কিছুই ব্যাখ্যা করা যায়, তবে অনেকেই এখানে অন্যরকম একটা যোগসূত্র খুঁজে পাবেন। চেলসির হয়ে এটা ছিল মরিনহোর দ্বিতীয় অধ্যায়, আর পুরনো ক্লাবে ফেরার পর মরিনহোর এটা তৃতীয় মৌসুম। তাহলে কি "তৃতীয় মৌসুমের" অভিশাপটাই কাল হলো মরিনহোর? কিন্তু এরকম কিছু কি আসলেই আছে ?

     

     

     

    ব্যাপারটা একটু খতিয়ে দেখা যাক। ক্যারিয়ারের শুরুতে বেনফিকা ও উইনাই দে লেইরার মতো দলের কোচ হলেও মরিনহোর আসল অধ্যায় শুরু হয় পোর্তোকে দিয়ে। পর্তুগিজ এই ক্লাবের হয়েই প্রথম নিজেকে চিনিয়েছিলেন বিশ্বমঞ্চে। ২০০২-০৩ মৌসুমের প্রথম মৌসুমে জিতেছিলেন উয়েফা কাপ, পরের বার তো চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতে তোলপাড় ফেলে দিয়েছিলেন। এখানে অবশ্য দুই মৌসুমই ছিলেন, ২০০৪-০৫ মৌসুমেই চলে আসেন চেলসিতে।

     

     

    রোমান আব্রামোভিচ যে সাফল্যের জন্য তৃষিত হয়ে ছিলেন, মরিনহো সেটা পাইয়ে দেন প্রথম মৌসুমেই। প্রথমবারেই লিগের পাশাপাশি এনে দেন লিগ কাপও। পরেরবারও চেলসি লিগ জেতে, তবে যে চ্যাম্পিয়নস লিগের জন্য আকুল হয়ে ছিলেন সেটা পাওয়া হয়নি প্রথম দুই মৌসুমেই। কিন্তু তৃতীয় মৌসুমে এসে মরিনহোর লিগ পাওয়া হয়নি, যদিও লিগ কাপ আর এফএ কাপ ঠিকই জিতেছিলেন। সেবার ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ছয় পয়েন্ট পেছনে থেকে দ্বিতীয় হয়েছিল চেলসি। পরের মৌসুমেও যে চেলসি খুব খারাপ করেছিল এমন নয়। কিন্তু প্রথম ছয় ম্যাচে তিন জয়, দুই ড্র ও এক হারের পর মরিনহোর চেলসি অধ্যায় শেষ হয়ে যায়।

     

     

    এর পরের মৌসুমে ইন্টার মিলানের দায়িত্ব নিয়ে সাফল্য আবার ধরা দেয়।  ২০০৮-০৯ মৌসুমে এসেই সিরি আ এনে দেন ইন্টারকে। আর পরের মৌসুমটা তো মরিনহোর সবচেয়ে স্মরণীয় মৌসুমগুলোরই একটি। লিগ ও কাপের পাশাপাশি পেয়েছিলেন চ্যাম্পিয়নস লিগও।

     

     

    ইন্টারে অবশ্য মরিনহোর তৃতীয় মৌসুমের অভিশাপ খাটেনি, প্রথম দুই মৌসুম শেষেই  নাম লেখান রিয়াল মাদ্রিদে। ক্যারিয়ারে সবচেয়ে বেশি চড়াই-উৎরাই দেখতে হয়েছে এখানেই। ২০১০-১১ সালের প্রথম মৌসুমে শুধু কোপা ডেল রে জিতেছিলেন। পরের বার অবশ্য লা লিগার দেখা পান। তবে তৃতীয় মৌসুমে আবার সেই অভিশাপ, এবার সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে শুধু স্প্যানিশ সুপার কাপ নিয়েই। তার সঙ্গে ক্যাসিয়াসকে বেঞ্চে বসিয়ে রাখা নিয়ে বিতর্ক, স্প্যানিশ মিডিয়ার সাথে চাপান-উতোর, সম্ভবত মরিনহো পার করেছেন ক্যারিয়ারের সবচেয়ে কঠিন সময়টাই।

     

     

    চেলসিতে আবার ফিরে আসার পর প্রথম মৌসুমে অবশ্য শিরোপাহীন থাকতে হয়। কিন্তু পরের বার আবার ইংলিশ লিগ এনে দেন, তবে দুবারই অধরা থেকে যায় চ্যাম্পিয়নস লিগ। আর এবার তো লিগ স্বপ্ন একরকম ধরাছোঁয়ার বাইরেই চলে যাচ্ছে। তাহলে কি তৃতীয় মৌসুমের অভিশাপটাই সত্যি হতে যাচ্ছে ?

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন