• কোপা আমেরিকা
  • " />

     

    • কোপা আমেরিকা

    প্যারাগুয়ের সঙ্গে নাটকীয় ড্রয়ের পর ঝুলে রইল আর্জেন্টিনার ভাগ্য

    কলম্বিয়ার কাছে হারের পর প্যারাগুয়ের বিপক্ষেও ঘুরে দাঁড়ানো হলো না আর্জেন্টিনার। নাটকীয়তায় ঠাসা ম্যাচে আর্জেন্টিনা ড্র করেছে ১-১ গোলে। প্রথমে পিছিয়ে পড়া আর্জেন্টিনাকে সমতায় ফিরিয়েছিলেন লিওনেল মেসি, ভিএআরের সাহায্যে পাওয়া স্পটকিক থেকে গোল করেছেন তিনি। এরপর আর্জেন্টিনা গোলরক্ষক ফ্রাঙ্কো আর্মানি পেনাল্টি সেভ করে বাঁচিয়েছেন দলকে। নইলে হেরেও বসতে পারত আর্জেন্টিনা। দুই ম্যাচ থেকে ১ পয়েন্ট নিয়ে তাই কোপা আমেরিকায় কোনো মতে টিকে রইল আর্জেন্টিনার পরের রাউন্ডে যাওয়ার সম্ভাবনা। শেষ ম্যাচে কাতারকে হারাতেই হবে তাদের। এরপরও নিশ্চিত হবে না কোয়ার্টার ফাইনাল। নির্ভর করতে হবে অন্য ম্যাচের ফলের ওপর।

    তিন গ্রুপের শীর্ষ দুইটি করে দলের সঙ্গে তৃতীয় হওয়া সেরা দুইদল উঠবে কোপার কোয়ার্টার ফাইনালে। শেষ ম্যাচে প্যারাগুয়ে কলম্বিয়ার কাছে হেরে গেলে বা ড্র করলে আর আর্জেন্টিনা কাতারকে হারিয়ে দিলে রানার আপ হয়ে পরের রাউন্ডে উঠে যাবে মেসির দল। আর আর্জেন্টিনার মতো প্যারাগুয়েও শেষ ম্যাচে জিতে গেলে আর্জেন্টিনা হবে তৃতীয়। এরপর বাকি দুই গ্রুপের তৃতীয় হওয়া সেরা দুই দলের মধ্যে থাকলে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত হবে আর্জেন্টিনার। ১ পয়েন্ট নিয়ে আপাতত বি গ্রুপের তলানিতে আছে আগের দুইবারের রানার্স আপরা। 

     

    বেলো হরিজন্তেতে আরও একবার হতাশা সঙ্গী হয়েছে আর্জেন্টিনার। আগের ম্যাচ থেকে চারটি বদল এনেছিলেন আর্জেন্টিনা কোচ। সার্জিও আগুয়েরো ও অ্যানহেল ডি মারিয়া বাদ পড়েছিলেন। মাঠে নেমেছিলেন, মিল্টন কাস্কো, রবার্তো পেরেরা, রদ্রিগো ডি পল ও লাউতারো মার্টিনেজ। কিন্তু এসবের কোনো কিছুই কাজে আসেনি আর্জেন্টিনার। লিওনেল স্কালোনির দলের দিশেহারা রুপের কোনো পরিবির্তন আসেনি।

    প্যারাগুয়ে প্রথমে নিজেদের অর্ধ থেকেই খেলেছে। কিন্তু এরপর সুযোগ বুঝে আঘাত করেছে আর্জেন্টিনার রক্ষণে। ২৮ মিনিটে ম্যাচের প্রথম সুযোগও তাদের, ডেরলিন গঞ্জালেজ ডিবক্সের ভেতর ঢুকে ডানদিক থেকে শটে করেছিলেন গোলে। নিকোলাস টালিয়াফিকোর সময়মতো ব্লক বলের দিক পরিবির্তন করিয়ে দিলে বেঁচে যায় আর্জেন্টিনা। কিন্তু সেটা অল্প সময়ের জন্যই। মিনিট দশেক না পেরুতেই নিউক্যাসেল মিডফিল্ডার মিগুয়েল আলমিরন বল নিয়ে ডান প্রান্ত দিয়ে দিলেন ভোঁ দৌড়, পেরেরা তার পিছু ছুটছিলেন। রাইটব্যাক কাস্কো ধারে কাছেও ছিলেন না। পেরেরা এক সময় হাল ছেড়ে দিলেন, কিন্তু আলমিরন বলটা গোললাইন পেরুতে দিলেন না। বাঁ পায়ে নিচু ক্রস করলেন ডান প্রান্ত থেকে। ডিবক্সের ভেতর গিয়ে পড়ল সেটা, পেছন থেকে দৌড়ে এসে রিচার্ড সানচেজ দারুণ এক ফিনিশে গোল করেন। ৩৭ মিনিটে প্যারাগুয়ে ১, শূন্য আর্জেন্টিনা।

    আর্জেন্টিনা প্রথমার্ধ থেকেছে দর্শক হয়ে। ম্যাচ থেকে ছিটকেও যেতে পারত তারা। গোলরক্ষক আর্মানি বিপদ ডেকে এনেছিলেন আরেকটু হলেই। ডিবক্স থেকে বেরিয়ে প্রায় মিডফিল্ড পর্যন্ত চলে গিয়েছিলেন। সেখানে বলের নিয়ন্ত্রণ প্রথম দফায় রাখতে পারেননি, পরেরবার গঞ্জালেজকে ফাউল করে বসলেন। ব্রাজিলিয়ান রেফারি উইলটন সাম্পাইও অবশ্য লাল কার্ড দেখালেন না আর্জেন্টাইন গোলরক্ষককে, আর্মানি বেঁচে গেলেন হলুদ কার্ড দেখে। বেঁচে গেল আর্জেন্টিনাও।

    দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই বদলি হিসেবে নেমে আগুয়েরো এরপর আর্জেন্টিনাকে সমতায় ফেরাতে বড় অবদান রাখেন। রক্ষণ থেকে পাওয়া লং বল আগের ম্যাচেও কাজে দেয়নি আর্জেন্টিনার, এবারও দিচ্ছিল না।  প্রথম ম্যাচেও তেমন কোনো গোলের সুযোগই তৈরি করতে পারেনি আর্জেন্টিনা। প্যারাগুয়ের বিপক্ষেও সেই অব্যাহত থাকল ৫৩ মিনিট পর্যন্ত।

    আগুয়েরো ডিবক্সের ভেতর লং বল রিসিভ করে করলেন ক্রস। মার্টিনেজ ছিলেন সিক্স ইয়ার্ড বক্সের কাছাকাছি। দারুণ এক ফ্লিক করলেন তিনি,  কিন্তু তার শট ফেরত আসলো বারপোস্টে লেগে। ফিরতি বলে মেসির দারুণ শট সেভ করেন প্যারাগুয়ে গোলরক্ষক রবার্তো ফার্নান্দেজ। মেসি যাচ্ছিলেন কর্নার কিক নিতে। কিন্তু ভিএআরের বদৌলতে একটু পর নিলেন পেনাল্টি কিক। মার্টিনেজের শট বারপোস্টে লাগার আগেই লেগেছিল প্যারাগুয়ে ডিফেন্ডার ইভান পিরিসের হাতে। প্রায় মিনিট পাঁচেক সময় নিয়ে ব্রাজিলিয়ান রেফারি পরে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দিয়েছেন। ফার্নান্দেজ মেসির পেনাল্টি ঠেকাতে ঠিক দিকেই ঝাঁপ দিয়েছিলেন, কিন্তু মেসি ছিলেন আরও নিখুঁত।

    প্যারাগুয়ের বিপক্ষে এই নিয়ে মেসির গোল দাঁড়িয়েছে ৫টি। একটা সরাসরি ফ্রি কিক থেকে, বাকি চারটাই পেনাল্টি এসেছে পেনাল্টি থেকে। কিন্তু মেসির গোলও অনুপ্রেরণার জন্য যথেষ্ট হলো না আর্জেন্টিনার। রক্ষণে ভুল করে বসলেন নিকোলাস অটামেন্ডি। ক্লাবের হয়ে এই মৌসুমে যে নিয়মিত খেলেননি সেই ছাপ রেখে গেলেন গঞ্জালেজকে ডিবক্সের ভেতর করা ট্যাকেলে। ৬১ মিনিটে তাই পেনাল্টি পেয়ে গেল প্যারাগুয়ে।

    যে আর্মানি শেষ ১০ শটের ৮টিতেই আর্জেন্টিনার হয়ে গোল খেয়েছেন, একটু আগে যার পাগলামিতে দশ জনের দলে পরিণত হতে পারত আর্জেন্টিনা- সেই তিনিই এবার নায়ক বনে গেলেন। গঞ্জালের নিচু পেনাল্টি কিক ডানদিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে দুর্দান্ত এক সেভ করে আর্মানি বাঁচিয়ে রাখলেন আর্জেন্টিনার আশা।

    আর্মানির দেওয়া পুজিতে ভর করে দুই মিনিট পর আরেকটু হলেই এগিয়ে যেতে পারত আর্জেন্টিনা। মেসি- লো সেলসো দারুণ ওয়ান টু এর পর ক্রস করেছিলেন লো সেলসো বাম দিক থেকে। মার্টিনেজ লাফও দিয়েছিলেন, গোল থেকে কয়েক গজ দূরে থাকা অবস্থায়। কিন্তু তার হেড চলে যা বাইরে দিয়ে। ম্যাচে এরপর আর এমন সুযোগ আসেনি আর্জেন্টিনার কাছে। কাউন্টার অ্যাটাকে খেলতে থাকা প্যারাগুয়েও এরপর পুরোপুরি মন দেয় রক্ষণে। পরে নেমে অ্যানহেল ডি মারিয়া আরও একবার হতাশ করেছেন আর্জেন্টিনাকে। 

    অবশ্য এমন নাজেহাল এক পারফরম্যান্সের পর অন্তত একটি দিক দিয়ে কিছুটা তৃপ্তি খুঁজতে পারে আর্জেন্টিনা। কোপা আমেরিকার ইতিহাসে প্যারাগুয়ের বিপক্ষে কখনই হারেনি তারা। সম্ভব সাম্প্রতিক সময়ে সবচেয়ে দুর্বলতম দল নিয়েও সেই রেকর্ডটা অন্তত অক্ষুণ্ণ রেখেছে তারা!


    লাইভ আপডেট
    ৭ মিনিট ইনজুরি সময়

    এখনও ১-১ গোলেই সমতা প্যারাগুয়ে-আর্জেন্টিনার। মেসি একবার বেশ কয়েকজনকে কাটিয়ে  ঢোকার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আটকে গেছেন। শেষ ৩০ মিনিটে তেমন কোনো আক্রমণ নেই আর্জেন্টিনার। সেটা অবশ্য খুব বেশি অবাক করা কিছু নয়!


    ৮৩' হলুদ কার্ড দেখলেন অটামেন্ডি
    নিউক্যাসেলের মিগুয়েল আলমিরনকে আটকাতে শুরু থেকেই হিমশিখ খাচ্ছে আর্জেন্টিনা। তাকে আটকাতে গিয়েই এবার ফাউল করলেন অটামেন্ডি। হলুদ কার্ডও দেখলেন সঙ্গে। ফ্রি কিক থেকে প্যারাগুয়েও গোল পেতে পারত। আর্মানি অবশ্য ডাবল সেভ করেছেন। না করলেও তেমন কিছু হত না, অফসাইড ছিল। ফ্রি কিক আর্জেন্টিনার।


    ৭৫' উড়িয়ে মারলেন মেসি
    ডানদিকে ডি পল বেশ কষ্ট করেই ক্রস করেছিলেন। মেসিই পেয়েছিলেন বল, কিন্তু তার ডান পায়ের শট গেছে অনেক ওপর দিয়ে। ৭৭ মিনিট খেলা খেলা ১-১ এ সমতা।


    ৬৭' মাঠে নামলেন ডি মারিয়া
    মার্টিনেজের ওটাই ছিল ম্যাচের শেষ। অ্যানহেল ডি মারিয়ার বদলি হয়ে মাঠ ছেড়েছেন তিনি।

     


    ৬৪' দারুণ সুযোগ হাতছাড়া করলেন মার্টীনেজ
    মেসি, লো সেলসোর দারুণ সমন্বয় বাম দিকে। এরপর লো সেলসোর ক্রসটাও দারুণ ছিল। ফাঁকায় ছিলেন মার্টিনেজও। কিন্তু গোল থেকে অল্প দূরত্বে হেড করলেন ওপর দিয়ে। সুবর্ন সুযোগ হাতছাড়া আর্জেন্টিনার।


    ৬৩' পেনাল্টি ঠেকিয়ে নায়ক আর্মানি

    অবশেষে ফ্রাঙ্কো আর্মানির নিজেকে চেনালেন। একটু আগে যার ভুলে কপাল পুড়তে পারত, তিনিই ঠেকিয়ে দিলেন পেনাল্টি কিক। নিজের ডান দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে দুর্দান্ত এক সেভ করেছেন তিনি। গঞ্জালেজই পেনাল্টি নিতে এসেছিলেন।

     


    ৬১' হায় অটামেন্ডি
    গঞ্জালেজকে ফাউল করে অটামেন্ডি পেনাল্টি উপহার দিয়েছেন প্যারাগুয়েকে।


    ৫৭' গোওওওওওল মেসি!

    পেনাল্টি থেকে গোল করে আর্জেন্টিনাকে সমতায় ফিরিয়ে আনলেন মেসি। আর কে বা রক্ষা করতে পারতেন এই দলকে! গোলরক্ষক ফার্নান্দেজ ঠিক দিকেই ঝাপ দিয়েছিলেন, কিন্তু মেসি ছিলেন আরও নিখুঁত।


    ভিএআর রঙ্গে স্বাগতম!
    গতকাল ব্রাজিলের ম্যাচেও ভিএআর ভেলকি দেখিয়েছিল। এবার দেখাল আর্জেন্টিনার জন্য। পেনাল্টি পেয়ে গেছে আর্জেন্টিনা। মার্টিনেজের ফ্লিকটাই হাতে লেগেছিল ইভান পিরিসের। ম্যাচে ফেরার দারুণ সুযোগ আর্জেন্টিনার জন্য।


    ৫২' বারপোস্টের পর আর্জেন্টিনার বাধা হয়ে দাঁড়ালেন প্যারাগুয়ে গোলরক্ষক
    লং বল খুঁজে পেয়েছিল ডিবক্সের ভেতর থাকা আগুয়েরোকে। তিনি ডান দিক থেকে ভলি করলেন, মার্টিনেজের ফ্লিক গিয়ে লাগল বারপোস্টে। ফিরতি বল থেকেও সুযোগ ছিল। মেসি পেয়েছিলেন বল, তার বাম পায়ের শট গোলরক্ষক দুর্দান্ত এক সেভ করে গোলবঞ্চিত করলেন মেসি আর আর্জেন্টিনাকে।


    হাই ডিফেন্সিভ লাইনে ঝুঁকি নিয়ে খেলছে আর্জেন্টিনা
    দ্বিতীয়ার্ধে বেশ ঝুঁকি নিয়ে খেলছে আর্জেন্টিনা। ডিফেন্ডাররা হাই লাইন মেইন্টেইন করছেন। কাউন্টার অ্যাটাকে প্রতিবারই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে প্যারাগুয়ে। যে কোনো এক প্রান্তে গোল হওয়া সময়ের ব্যাপার মনে হচ্ছে।

    ৪৬' আগুয়েরো নামলেন মাঠে
    রবার্তো পেরেরাকে উঠিয়ে সার্জিও আগুয়েরোকে নামিয়েছেন আর্জেন্টিনা কোচ। পরিবর্তনটা অনুমিতই ছিল। তবে প্যারাগুয়ের শুরুটা এমন হ অবে কে ভেবেছিল! বিরতির পর দুর্দান্ত শুরু করেছে তারা। আর্জেন্টিনা এখন পাহাড় সমান চাপে।


    প্রথমার্ধ শেষে
    প্যারাগুয়ের বিপক্ষে গ্রুপের দ্বিতীয় ম্যাচেও ধুঁকছে আর্জেন্টিনা। প্রথমার্ধ শেষে ১-০ গোলে পিছিয়ে আছে তারা। এই ম্যাচেও হেরে বসলে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে যাবে গত দুইবারের রানার্স আপদের।


    ৪৫' বেঁচে গেলেন আর্মানি
    আর্জেন্টিনা গোলরক্ষক ফ্রাঙ্কো আর্মানি  ডিবক্সের বাইরে চলে গিয়েছিলেন, প্রায় মিডফিল্ডের কাছাকাছি। প্রথম টাচে বল নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেননি। পরেরবার চেষ্টা করতে গিয়ে ফাউল করে বসলেন গঞ্জালেজকে। রেফারি হলুদ কার্ড দেখিয়েই ছেড় দিয়েছেন। অন্যদিন হলে হয়ত লাল কার্ড দেখেই মাঠ ছাড়তে হতে পারত তাকে। অবিশ্বাস্য!


    আক্রমণে দিশেহারা আর্জেন্টিনা 
    আক্রমণে একেবারেই সুবিধা করতে পারছে না আর্জেন্টিনা। প্রথমার্ধ প্রায় শেষ, এখনও গোলে শট নিতে পারেননি মেসিরা। মেসি একটা ফ্রি কিক পেয়েছিলেন ভালো জায়গায়। সেটাও কাজে লাগাতে পারেননি।


    ৩৭' গোল! প্যারাগুয়ে ১-০ আর্জেন্টিনা


    মিগুয়েল আলমিরন ডানদিক ধরে এগিয়ে গিয়েছিলেন অনেকদূর, যেতে যেতে গিয়ে থেমেছেন বাইলাইনের সামনে। রবার্তো পেরেরা আটকাতে পারেননি তাকে। চলন্ত বলেই লো ক্রস করেছিলেন ডিবক্সের ভেতর। পেছন থেকে দৌড়ে এসে রিচার্ড সানচেজ দারুণ এক ফিনিশে গোল করে এগিয়ে নিয়েছেন প্যারাগুয়েকে। ৩৭ মিনিটের ওই গোলে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে এগিয়ে আছে প্যারাগুয়ে।


    ২৮' প্রথম সুযোগ প্যারাগুয়ের 
    কাউন্টার অ্যাটাক থেকে দারুণ এক আক্রমণ সাজিয়েছিল প্যারাগুয়ে। গঞ্জালেজ শটও নিয়েছিলেন গোলে। কিন্তু টালিয়াফিকোর ব্লক আর বিপদ বাড়ায়নি আর্জেন্টিনার। 


    ৬' ভুল সবই ভুল 
    প্যারাগুয়ে ডিফেন্ডার ভুলে বল দিয়ে দিয়েছিলেন মেসিকে। তিনিও ক্রস করলেন পরে ডিবক্সের ভেতর ঢুকে। কিন্তু মেসি যেখানে ক্রস করলেন, সেখানে ছিলেন না কেউ।



    এর আগে...

    কোপা আমেরিকায় গ্রুপ বি এর ম্যাচে প্যারাগুয়ের বিপক্ষে খেলতে নামছে আর্জেন্টিনা। কলম্বিয়ার কাছে হারের পর একাদশে চার পরিবর্তন এনেছেন আর্জেন্টিনা কোচ, রাইটব্যাক পজিশনে রেনজো সারাভিয়ার জায়গায় নেমেছেন রিভার প্লেটের মিল্টন কাস্কো। মিডফিল্ডে পরিবর্তন দুইটি। অ্যানহেল ডি মারিয়া ও রদ্রিগেজ জায়গা হারিয়েছেন, তাদের জায়গায় এসেছেন ওয়াটফোর্ডের রবার্তো পেরেরা ও উদিনেসের রদ্রিগো ডি পল। আক্রমণে সার্জিও আগুয়েরোর জায়গায় খেলছেন লাউতারো মার্টিনেজ।

    শেষে মুহুর্তে ইনজুরিতে পড়ে ৩৬ বছর বয়সী অস্কার কার্দোজোর খেলা হচ্ছে না আর্জেন্টিনার বিপক্ষে। আগের ম্যাচেও গোল করেছিলেন তিনি। নিজেদের প্রথম ম্যাচে প্যারাগুয়ের ড্র করেছে ১-১ গোলে। 

    বেলো হরিজন্তেতে আর্জেন্টিনার শেষ দুই ম্যাচ গেছে দুইরকম। ২০১৪ সালে বিশ্বকাপে ইরানের বিপক্ষে এই মাঠেই ম্যাচ ছিল আর্জেন্টিনার। লিওনেল মেসির ইনজুরি সময়ের গোলে ওই ম্যাচ জিতেছিল লা আলবিসেলস্তেরা। ২০১৬ সালে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের স্মৃতি অবশ্য ভুলে যাওয়ার মতো। ব্রাজিলের কাছে ৩-০ গোলে সেবার হেরেছিল আর্জেন্টিনা।

    আর্জেন্টিনা একাদশ
    আর্মানি, কাস্কো, পেতজেলা, অটামেন্ডি, টালিয়াফিকো, ডি পল, পেরেরা, পারেদেস, লো  সেলসো, মেসি, মার্টিনেজ 


    আর্জেন্টিনা-প্যারাগুয়ের ম্যাচ প্রিভিউ পড়ুন এখানে,  কিক অফের আগে: দল বদলালেও চেহারা ফিরবে আর্জেন্টিনার?