• কোপা আমেরিকা
  • " />

     

    • কোপা আমেরিকা

    মেসির পাশে দাঁড়ালেন ভিদাল

    চিলির বিপক্ষে কোপা আমেরিকার তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে গ্যারি মেডেলের সাথে ধাক্কাধাক্কিতে সরাসরি লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয়েছিল লিওনেল মেসিকে। আর্জেন্টিনা তৃতীয় হলেও রেফারির সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেননি মেসি, তৃতীয় হওয়ার মেডেলও নিতে আসেননি তিনি। ম্যাচ শেষে কনমেবল এবং রেফারিদের একহাত নিয়েছিলেন আর্জেন্টিনা অধিনায়কমেসির অভিযোগের অসম্মানজনক বলে দাবি করেছিল কনমেবল। কিন্তু সেই ম্যাচের প্রতিপক্ষ এবং বার্সেলোনা সতীর্থ আর্তুরো ভিদালকে পাশে পাচ্ছেন মেসি। ভিদাল জানিয়েছেন, মেসির অভিযোগ করার যথেষ্ট কারণ আছে। 

     

     

    মেসির মন্তব্যের ব্যাপারে প্রশ্ন উঠতেই ব্রাজিলের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার সেমিফাইনাল ম্যাচের কথা তুলে আনেন ভিদাল, 'সেমিতে ব্রাজিলের বিপক্ষে দুটি নিশ্চিত পেনাল্টি পায়নি আর্জেন্টিনা। লাতিন আমেরিকার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ের মত টুর্নামেন্টে এসব ভুল আসলেই অপ্রত্যাশিত, বিশেষত যখন 'ভিএআর'-এর প্রযুক্তি আছে হাতের নাগালেই। শুধু মাঠের রেফারিং নয়, কোপা সার্বিক ব্যবস্থাপনাও খুবই হতাশাজনক। কোয়ার্টারে কলম্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের আগে কোনও কারণ ছাড়াই স্টেডিয়াম থেকে প্রায় ২ ঘণ্টা দূরে আমাদের হোটেল দেওয়া হয়। ঐ ম্যাচে এজন্যই আমাদের আসতে দেরি হয়েছিল।'

    মেসির সাথে মেডেলেরও পাশে দাঁড়িয়েছিলেন ভিদাল, 'ফুটবলে ধাক্কাধাক্কির জন্য লাল কার্ড দেওয়া হলে কোনও দলই ১১ জন নিয়ে ম্যাচ শেষ করতে পারত না। সামান্য ধাক্কাধাক্কির জন্য দু'দলের অধিনায়ককে এমন ম্যাচে লাল কার্ড দেখানো হল। আমার মনে হয় রেফারি নিজেকে আলোচনার পাত্র বানাতে চেয়েছিল। এরকম উদ্দেশ্য থাকলে সে সফলই হয়েছে। ব্রাজিল ম্যাচের পরও লিও (মেসি) রেফারির সমালোচনা করেছিল। ভিডিও রেফারির কাজটা আসলে কী? মূল রেফারিকে সময় স্বল্পতার কারণে দ্রুত সিদ্ধান্ত দিতে হয়, সেক্ষেত্রে সে ভুল করতেই পারে। কিন্তু 'ভিএআর'-এ এসব সিদ্ধান্ত কেন পরিবর্তিত হবে না? ইউরোপে 'ভিএআর'-এর ব্যবহার থেকে লাতিন আমেরিকার ভিডিও রেফারিদের শেখার অনেক কিছু আছে।'