• ক্রিকেট, অন্যান্য
  • " />

     

    • ক্রিকেট, অন্যান্য

    রোনালদো যে ক্লাবে খেলেন, তাদেরই সমর্থন করেন কোহলি

    ২২ গজের সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপন হিসেবে এখন তার নামই আসে। তবে ক্রিকেটের পাশাপাশি ফুটবলেও বিরাট কোহলির আগ্রহ বিস্তর। নিজে ইন্ডিয়ান সুপার লিগে এফসি গোয়ার পৃষ্ঠপোষক, ফুটবল মাঠে নিয়মিতই দেখা যায় তাকে। এই তো, বিশ্বকাপে যাওয়ার পর টটেনহাম ও ইংল্যান্ড অধিনায়ক হ্যারি কেনের সঙ্গে দেখাও হয়েছে তার। কোহলিকে শুভেচ্ছাও জানিয়েছিলেন কেন। মেসি না রোনালদো, কোহলির পছন্দ কে- সেটা নিয়েও অনেকের আগ্রহ থাকতে পারে। ফিফা ডট কমের কাছে সেটার উত্তরও দিয়েছে কোহলি। অকপটেই বলেছেন, ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকেই রোল মডেল হিসেবে মানেন।

    আরও অনেক কিশোরের মতো কোহলি নিজেও ফুটবল খেলে বড় হয়েছেন। খেলার পাশাপাশি টিভিও দেখতেন, ১৯৯৮ ও ২০০২ বিশ্বকাপের স্মৃতি তো এখনও তার মনে সজীব। ব্রাজিলের দখেলায় মুগ্ধ হতেন। রোনালদো দ্য ফেনোমেনন, রোনালদিনহোরা তাকে আচ্ছন্ন করা রাখত তখন থেকেই। এখনকার যুগে মেসি-রোনালদো তো আছেই, মদ্রিচ, ইনিয়েস্তা, জাভিদেরও ভক্ত। তবে মেসি না রোনালদো, দুজনের একজনকে বেছে নিতে হলে কাকে নেবে- সেই প্রশ্ন অবধারিতভাবে উঠলই। কোহলিও বললেন, ‘আমি রোনালদোর কথাই বলব (একজনকে বেছে নিতে হলে০)। আমার মতে রোনালদো বেশি চ্যালেঞ্জ নিয়েছে (মেসির চেয়ে) এবং সবকটিতেই সফল হয়েছে। আমার দেখা সবচেয়ে পূর্ণাঙ্গ খেলোয়াড় সে। আগেই বলেছি, তার পরিশ্রম করার ক্ষমতার সঙ্গেও কারও তুলনা হয় না। মানুষকে অনুপ্রাণিত করতে পারে সে। খুব বেশি লোক এটা পারে বলে আমার মনে হয় না। সে একজন নেতাও, এই ব্যাপারটাও আমার দারুণ পছন্দ। নিজের ওপর তার দারুণ আত্মবিশ্বাস। সে যখন চায় তখন তীব্রভাবেই চায়- এই ব্যাপারটা আপনি সব ম্যাচেই তার খেলায় দেখতে পাবেন।’

    তবে রোনালদোর ৩৪ হয়ে গেছে, মেসির ৩২। দুজনের জায়গাটা এরপর কে বা কারা নেবেন? কোহলি যে ফুটবলের এখনকার খবর ভালোই রাখেন, সেটাও বোঝা গেল, ‘আমার মনে হয় এমবাপ্পে। ২০১৮ বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ম্যাচে সে যে দৌড়টা দিয়েছিল, ওটা ভোলা কঠিন। সে আসলেই একজন মানুষ। আমার মনে হয় সে আরও অনেক দূর যাবে, সে একদম শীর্ষ পর্যায়ের একজন খেলোয়াড়।’

    ফুটবল যে নিয়মিত দেখেন, সেই প্রমাণ আরও পাওয়া গেল কোহলির পরের কথায়, ‘আমি পর্তুগালের খেলা নিয়মিত দেখি। ওদের দলের একজন কিংবদন্তি আছে, আবার সামর্থ্যের সবটুকুও ব্যবহার করছে তারা। ফ্রান্সও দারুণ একটা দল, ওদের খেলাও ভালো লাগে। সমর্থন করি জুভেন্টাসকে। কারণটা সহজ, রোনালদো। ও যেখানেই যায় সেই ক্লাবই আমি সমর্থন করি। আমার অনুপ্রেরণা সে।’