• ক্রিকেট, অন্যান্য
  • " />
    X

     

    জিম্বাবুয়ের আশা ছাড়ছে না বিসিবি

    সবকিছু ঠিকঠাক মতোই এগুচ্ছিল। সেপ্টেম্বরে জিম্বাবুয়ের সঙ্গে ত্রিদেশীয় সিরিজ হওয়ার কথা ছিল আফগানিস্তান ও বাংলাদেশকে নিয়ে। কিন্তু জিম্বাবুয়ের ওপর আইসিসির নিষেধাজ্ঞার কারণেই হয়ে গেল যত সমস্যা। বিসিবি অবশ্য এখনো জিম্বাবুয়ের আশা ছাড়ছে না। তবে শেষ পর্যন্ত জিম্বাবুয়ে না এলে আফগানস্তানিকে নিয়েই দ্বিপাক্ষিক সিরিজ আয়োজন করা হবে বলে জানালেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সুজন।

    জিম্বাবুয়েকে আইসিসি নিষিদ্ধ করলেও এফটিপির বাইরে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলতে বাধা নেই তাদের। তবে অভ্যন্তরীণ ঝামেলার জন্য শেষ পর্যন্ত তারা আসবে কি না সেটি নিয়ে আছে সংশয়। বিসিবি প্রধান নির্বাহী আজ সেটিই নিশ্চিত করলেন,

    ‘আইসিসির এফটিপি সূচি অনুযায়ী আফগানিস্তানের যে ট্যুরটা ছিল একটা টেস্ট ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্টি খেলার ব্যাপারে সেটাকে আমরা জিম্বাবুয়ের অনুরোধে একটা ত্রিদেশীয় সিরিজ করার সিদ্ধান্ত নেই গত আইসিসি মিটিংয়ে। তারই ধারাবাহিকতায় এখন যেটা হয়েছে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ডের কিছু নিষেধাজ্ঞার কারণে তাদের অংশগ্রহণ নিয়ে কিছু সংশয় তৈরি হয়েছিলো। কিন্তু তাদের ক্রিকেট বোর্ড আমাদের কাছে সময় চেয়েছিল যে এই বিষয়টি তাঁরা মানিয়ে নিতে পারবে বা সিরিজে অংশ নিবে। আমরা আশা করছি দ্রুত তাদের ক্রিকেট বোর্ডের কনফার্মেশন আমরা পাবো। আমরা দুই বোর্ডের সাথেই কথা বলছি, যদি জিম্বাবুয়ে না আসলে আমরা আফগানিস্তানের সাথে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলবো।’

     

     

    প্রধান নির্বাহী বললেন, শেষ পর্যন্ত ত্রিদেশীয় সিরিজ হবে কি না দুয়েক দিনের মধ্যেই তা চূড়ান্ত হয়ে যাবে, ‘আমরা আশা করছি জিম্বাবুয়ে আসবে। সেভাবেই দুটি অপশন নিয়েই কাজ হবে। আমার মনে হয় যে দুই একদিনের মধ্যেই বিষয়টি চূড়ান্ত হলে আপনারা জানতে পারবেন। প্রাথমিক ভাবে আমরা আফগানিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচটা খেলবো। এরপর ট্রাইনেশন বা দ্বিপাক্ষিক টি-টোয়েন্টি বা ওয়ানডে যাই হোক খেলবো। এটা সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকেই শুরু হবে। সেভাবেই প্ল্যান আছে। আমার মনে হয় আফগানিস্তান যদি কনফার্ম করে সেক্ষেত্রে টি-টোয়েন্টি নিয়েই যাবো।’

    এফটিপিতে জানুয়ারিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে অ্যাওয়ে সিরিজ আছে। পাকিস্তান অবশ্য কিছুদিন আগে বলেছিল, সিরিজটি তারা নিজেদের মাঠে খেলার ব্যাপারে আগ্রহী। প্রধান নির্বাহী অবশ্য এ নিয়ে এখনই কিছু বলতে চাইলেন না, ‘এটা অনেক পরের ব্যাপার। এখনও কিছু পাইনি। এখনও তাঁরা নিরপেক্ষ ভেন্যুতে খেলছে। শিডিউলিংয়ের ব্যাপারে তাদের সঙ্গে যখন কথা হবে তখন জানতে পারবো আসলে তাঁরা কি চাচ্ছে।’