• অ্যাশেজ ২০১৯
  • " />

     

    হেডিংলির ওই ইনিংসের বদলে অ্যাশেজ জয়টাই চাইতেন স্টোকস

    হেডিংলিতে অ্যাশেজ হাতছাড়া হওয়ার দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে ছিল ইংল্যান্ড। শেষ উইকেটে জ্যাক লিচকে নিয়ে অতিমানবীয় এক ইনিংস খেলে ইংলিশদের অবিশ্বাস্য এক জয় এনে দিয়েছিলেন বেন স্টোকস। শেষ পর্যন্ত অবশ্য ঘরের মাটিতে ১৮ বছর পর অ্যাশেজ হারাতেই হয়েছে জো রুটদের। অ্যাশেজ সিরিজ শেষ হওয়ার পর স্টোকস বলছেন, হেডিংলির ওই ইনিংসের বদলে অ্যাশেজ জয়টাই চাইতেন তিনি। 

    বিশ্বকাপের ফাইনালে ইংল্যান্ডের শিরোপা জয়ের নায়ক ছিলেন স্টোকস। অ্যাশেজেও ছিলেন দারুণ ফর্মে, পাঁচ ম্যাচে করেছেন ৪৪১ রান, নিয়েছেন ৮ উইকেট। তবে সবকিছুকে ছাড়িয়ে গেছে হেডিংলির সেই ১৩৫ রানের ইনিংসটি। নিশ্চিত হারের মুখ থেকে দলকে জিতিয়ে অ্যাশেজ জমিয়ে তুলেছিলেন স্টোকস। 

     

                   অ্যাশেজ ট্রফির পাশ দিয়ে গেলেও সেটা ছোঁয়া হলো না স্টোকসের 

    স্টোকস বলছেন, হেডিংলির ওই রূপকথার চেয়ে অ্যাশেজ জিতলেই বেশি খুশি হতেন তিনি, ‘এই সিরিজে এমন কিছু মুহূর্ত এসেছে যা আমি বিশ্বাসই করতে পারিনি। বিশ্বকাপের ফাইনাল কিংবা হেডিংলির সেই ইনিংস আমি কখনোই ভুলবো না। কিন্তু সেটা যত ভালো ইনিংসই হোক না কেনো, অ্যাশেজ জয়ের সাথে ওটাকে অদল বদল করতে রাজি আমি। হয়তো আমি এখন বুঝতে পারছি না, কিন্তু অনেক সময় পর পেছন ফিরে তাকালে এই সিরিজ ও বিশ্বকাপের সাফল্যটা অনুভব করতে পারবো।

     

     

    ওভালে শেষ টেস্ট জিতে সিরিজ ২-২ এ ড্র করেছে ইংল্যান্ড। অ্যাশেজ না জিতলেও ইংল্যান্ড অনেক কিছু পেয়েছে এই গ্রীষ্মে, মনে করিয়ে দিলেন স্টোকস, ‘বিশ্বকাপের আগে আমরা জানতাম আমাদের সামনে বড় দুটি টুর্নামেন্ট আছে। বিশ্বকাপের শিরোপা জিতেছিল, অ্যাশেজ সিরিজও ড্র করেছি। অবশ্যই আমরা অ্যাশেজ জিততে চেয়েছিলাম, কিন্তু সিরিজ ড্র করায় ইংল্যান্ড কিছু হারায়নি। আমার লক্ষ্য ছিল দলকে যত বেশি ম্যাচ জেতানো যায়। এই গ্রীষ্মটা এক কথায় অসাধারণ ছিল। ’