• জাতীয় ক্রিকেট লিগ
  • " />

     

    ৮০ রানে ৮ উইকেটের পর মেহেদির সেঞ্চুরি, শুভাগত-তাইবুরে ঢাকার দাপট

    ১ম স্তর, মিরপুর, ২য় দিনশেষে
    রংপুর ১ম ইনিংস ২২৪ অল-আউট (নাসির ৪০, রাজ্জাক ৭/৬৯) ও ২য় ইনিংস ৬৭/৪* (রাজ্জাক ৩/১২) 
    খুলনা ১ম ইনিংস ২৩৩ অল-আউট (মেহেদি ১১৯, রবিউল ৫/৪১)  
    রংপুর ২য় ইনিংসে ৬ উইকেট নিয়ে ৫৮ রানে এগিয়ে


    আউট হয়ে যখন ফিরছেন মেহেদি হাসান, সোহরাওয়ার্দি শুভ তার ব্যাটটা হাতে নিয়ে কিছু একটা দেখলেন। যেন দেখতে চাইলেন, এই ব্যাটে এদিন কী ভর করেছিল! শুভ এরপর অভিনন্দন জানালেন মেহেদিকে। ওপাশের উদযাপন থেকে ছুটে এলেন আরেকজন রংপুর ক্রিকেটার। মেহেদি এদিন করেছেন অভিনন্দন পাওয়ার মতোই কীর্তি। আটে নেমে তার দুর্দান্ত সেঞ্চুরির সঙ্গে রুবেল হোসেনের লড়াকু ইনিংসে প্রথম ইনিংসে ৯ রানের লিড পেয়ে গেছে খুলনা, পরে আব্দুর রাজ্জাকের তোপে ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলে রীতিমতো ধুঁকছে রংপুর। 

    আগেরদিন ২ উইকেটে ২৪ রান নিয়ে ব্যাটিং শুরু করা খুলনা এদিন ৮ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল মাত্র ৮০ রানেই। ২১, ৬, ২, ১০, ৯, ১, ৬- খুলনার প্রথম ৭ ব্যাটসম্যানের রান ছিল এমন। ৮ম উইকেট পড়ার সময় মেহেদি অপরাজিত ছিলেন ১৭ রানে। ৮০ রানে ৮ উইকেট নিয়েই লাঞ্চে গিয়েছিল খুলনা। বিরতির পর থেকে রুবেল হোসেনকে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর শুরু মেহেদির। 

    চা-বিরতিতে খুলনা গিয়েছিল ২১৭ রান নিয়ে, ৮ উইকেটেই। মেহেদি ফিফটি পূরণ করেছিলেন মাত্র ৬৪ বলে, ক্যারিয়ারের ৫ম সেঞ্চুরি পূরণ করতে তার লেগেছে ১১৭ বল। এর আগের চারটি সেঞ্চুরিই মেহেদি করেছিলেন ওপেনিং বা তিন নম্বরে নেমে, এবার করলেন আটে নেমে। চা-বিরতির পর মুকিদুল ইসলামের বলে মিড-অফে ক্যাচ দিয়ে আউট হওয়ার আগে তিনি ১৫ চার ও ১ ছয়ে করেছেন ১১৯ রান। 

    রুবেল অবশ্য টিকে ছিলেন আরও কিছুক্ষণ, ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটিটা পেয়েও যাবেন বলে মনে হচ্ছিল। তবে তার সঙ্গী শেষ ব্যাটসম্যান আব্দুল হালিম আউট হয়ে যাওয়ায় রুবেলকে থাকতে হয়েছে অপরাজিতই। ৮ উইকেট হারানোর সময় ১৪৪ রানে পিছিয়ে থাকা খুলনা উলটো পেয়ে গেছে ৯ রানের লিড। হালিমের উইকেট দিয়ে ৫ উইকেট পূর্ণ হয়েছে রবিউলের, ক্যারিয়ারে এটি তার প্রথম পাঁচ। 

    ব্যাটিংয়ে নেমে তৃতীয় ওভারে ওপেনার মাহমুদুল হাসান ফিরেছেন হালিমের বলে কট-বিহাইন্ড হয়ে। দ্বিতীয় উইকেটে মেহেদি মারুফ ও সোহরাওয়ার্দি শুভ মিলে তুলেছিলেন ৪৩ রান, মারুফকে এলবিডব্লিউ করে সে জুটি ভেঙেছেন রাজ্জাক। দিনের শেষের আগের ওভারে রাজ্জাক আবার করেছেন জোড়া আঘাত। ১ বলের ব্যবধানে ফিরেছেন শুভ ও নাঈম ইসলাম। নাঈমের উইকেট দিয়ে ম্যাচে ১০ উইকেট হয়ে গেছে প্রথম ইনিংসে ৭ উইকেট পাওয়া রাজ্জাকের। ক্যারিয়ারে এ নিয়ে ১১ বার ম্যাচে ১০ উইকেট হলো আগেরদিনই প্রথম বাংলাদেশী বোলার হিসেবে প্রথম শ্রেণিতে ৬০০ উইকেট নেওয়া এই বাঁহাতি স্পিনারের। 


    ****

    ১ম স্তর, কক্সবাজার, ২য় দিনশেষে
    রাজশাহী ১ম ইনিংস ২৩০ অল-আউট (শান্ত ৫৬, মুক্তার ৫৬*, সানজামুল ৪৯, সুমন ৩/৪৩, শুভাগত ৩/৫৭) 
    ঢাকা ১ম ইনিংস ২৮৪/৪* (তাইবুর ৯৩*, শুভাগত ৯২*, সানজামুল ৩/১০৬)
    ঢাকা ১ম ইনিংসে ৬ উইকেট নিয়ে ৫৪ রানে এগিয়ে


    ১০৪ রানে ৪ উইকেট হারিয়েছিল ঢাকা, প্রথম চার ব্যাটসম্যানের স্কোর ছিল এমন- ১৬, ২৮, ২১, ২৯। তাইবুর রহমান ও শুভাগত হোমের দারুণ দুই ইনিংসে ৪ উইকেট হারিয়েই দিন শেষ করলো তারা, ২৮৪ রানে। প্রথম ইনিংসে ৫৪ রানের লিড পেয়ে গেছে তারা। 

    বোর্ডে কোনও রান না নিয়ে, উইকেট না হারিয়ে দিন শুরু করা ঢাকা খেলছিল ধীরগতিতে। ১৭তম ওভারে রাজশাহীকে প্রথম ব্রেকথ্রু এনে দিয়েছিলেন সানজামুল ইসলাম, তার বলে ক্যাচ দিয়েছিলেন আব্দুল মজিদ। এরপর সাইফ হাসানও ফিরেছিলেন দ্রুতই, তার উইকেট নিয়েছেন সাকলাইন সজিব। 

    জয়রাজ শেখ ও রকিবুল হাসান তৃতীয় উইকেটে ৪২ রান যোগ করেছিলেন, ৭ রানের ব্যবধানে দুজনই শিকার সানজামুলের। তাইবুর ও শুভাগত ঘুরে দাঁড়িয়েছেন এরপর। 

    চা-বিরতিতে যাওয়ার আগে ঢাকার রান ছিল ১৮৩, তাইবুর ও শুভাগত ছিলেন চল্লিশের ঘরে। বিরতির পর ফিফটি পেয়ে গেছেন দুজনই, প্রথমে ৮১ বলে মাইলফলকে গেছেন শুভাগত, তাইবুরের লেগেছে ৮৮ বল। দিনশেষে তাইবুর সেঞ্চুরি থেকে ৭ রান দূরে দাঁড়িয়ে, শুভাগতর প্রয়োজন ৮ রান।