• এসএ গেমস
  • " />

     

    পদক নিশ্চিত বাংলাদেশের, ফাইনালে উঠতে হারাতে হবে নেপালকে

    এসএ গেমস ফুটবলে অন্তত ব্রোঞ্জ পদক নিশ্চিত হয়ে গেছে বাংলাদেশের। আজ নেপাল হারিয়েছে মালদ্বীপকে আর ভুটান শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে নিশ্চিত করে ফেলেছে ফাইনাল। এসএ গেমসের শেষ ম্যাচটা তাই ফাইনালে ওঠার জন্য অলিখিত ফাইনাল হয়ে গেছে বাংলাদেশের জন্য। আগামীকাল ৮ সেপ্টেম্বর, নেপালকে হারিয়ে দিলে এসএ গেমসের ফাইনালে উঠে যাবে বাংলাদেশ।

    বাংলাদেশ দলের ম্যানেজার সত্যজিৎ দাশ রুপু বলেছেন, "নেপালের বিপক্ষে আমাদের ম্যাচ জিততেই হবে। জিতলে দুইদলের পয়েন্ট সমান হবে। তখন হেড টু হেডে আমরা ফাইনালে যাব। আমাদের হ্যান্ডবুকে এভাবেই নিয়ম দেয়া আছে। আমরা সেটা ধরেই আগামীকালের ম্যাচে মাঠে নামব।"

    হেড টু হেডের ব্যাপারটি অবশ্য শুরুতে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। নেপাল ফুটবল ফেডারেশনের জেনেরাল সেক্রেটারিও নিশ্চিত করেছেন গোল ব্যবধান নয়, দুই দলের পয়েন্ট সমান হলে ফল নির্ধারণ হবে হেড টু হেডে।  

    ৪ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে ভুটান দেখিয়েছে দারুণ চমক। সবার আগে ফাইনাল নিশ্চিত হয়ে গেছে তাদের। ৩ ম্যাচ শেষে নেপালের পয়েন্ট ৭। আর বাংলাদেশের পয়েন্ট ৪, নেপালকে হারাতে পারলে তখন বাংলাদেশের পয়েন্টও হবে নেপালের সমান। ফাইনালে উঠতে স্বাগতিকদের ড্র করলেই হবে বাংলাদেশের জন্য। আর বাংলাদেশকে জিততেই হবে। 


    নেপালকে হারাতে না পারলে আরও একবার ব্রোঞ্জ নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হবে বাংলাদেশ ফুটবল দলকে। শেষবার ২০১৬ সালেও ব্রোঞ্জ নিয়েই শেষ করেছিল বাংলাদেশ। ২০০৯ সালে সবশেষ এই ইভেন্টে সোনা জিতেছিল লাল-সবুজরা।

    তেরতম এসএ গেমস ফুটবলে ভুটানের কাছে হেরে টুর্নামেন্ট শুরু করেছিল বাংলাদেশ। এর পর মালদ্বীপের বিপক্ষে ড্র করে তৃতীয় ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়েছিল জামাল ভুঁইয়ারা। আর নেপাল শুরু করেছিল ভুটানকে উড়িয়ে দিয়ে। দ্বিতীয় ম্যাচে শেষ মুহুর্তে গোল খেয়ে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ড্র করেছিল তারা। মালদ্বীপের বিপক্ষে শুরুতে পিছিয়ে পড়েও আজ ২-১ ব্যবধানে জিতেছে নেপাল। টুর্নামেন্টের প্রতিটি দল টানা দুইদিন ম্যাচ খেললেও নেপাল এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ছিল এতোদিন। মালদ্বীপের পর বাংলাদেশের বিপক্ষে টানা দ্বিতীয়দিনের মতো খেলতে নামবে নেপাল। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন