• বুন্দেসলিগা
  • " />

     

    প্রাণ বাঁচিয়েছেন দলের, তাই তাকে জড়িয়েই গোল উদযাপন

    গোল করে সতীর্থদের জড়িয়ে ধরা রীতিমত 'অপরাধ' এখন বুন্দেসলিগায়। সেটা বুন্দেসলিগা ওয়ান হোক আর টু হোক। খেলোয়াড়দের কড়া নির্দেশনাও দেওয়া আছে গোল উদযাপনের ব্যাপারে। রবার্ট লেভানডফস্কিরা নিয়মিতই এখন গোল উদযাপন করছেন সামাজিক দূরত্ব মেনে। এরজেবিরগে আউ ফুটবলার দিমিত্রি নাজারোভ সেই নিয়ম ভেঙেছেন।  গোলের পর টিম অফিসিয়াল থমাস রমেকে-কে রীতিমত জড়িয়ে ধরে কোলেই উঠে পড়েছিলেন নাজারোভ। তার ভাষ্য অনুযায়ী ম্যাচের আগে নাজারোভের প্রাণ বাঁচিয়েছিলেন রমেকে, তাই গোলের পর তাকে জড়িয়ে ধরেছেন তিনি।

    বুন্দেসলিগার সেকেন্ড ডিভিশনের আউ ও নুরেমবার্গের ম্যাচে ঘটেছে এই ঘটনা। নাজারোভ বলছেন ম্যাচের আগের দিন যাত্রাপথে দুর্ঘটনায় পড়েছিল তাদের টিম বাস। তখন রমেকে ছিলেন ড্রাইভিং সিটে। তার বুদ্ধিমত্তায় শেষ পর্যন্ত অক্ষত অবস্থায় ম্যাচ খেলতে হোটেলে পৌঁছাতে পেরেছে দল।

     “উনি আমাদের জীবন বাঁচিয়েছে। এর চেয়ে বড় কিছু আর কী হতে পারে?” ম্যাচের পর নিজের গোল উদযাপনের ব্যাখ্যা দিয়েছেন নাজারোভ। “সে যদি সময়মতো সঠিক কাজটা না করত, কে জানে তাহলে কী ঘটত আমাদের কপালে! আশা করি লিগ কমিটি এই ব্যাপারটা এড়িয়ে যাবে না।”

    গোল উদযাপনে আগের ঘটনা ও পরিস্থিতি ব্যাপারে বুন্দেসলিগা “অন্ধের মতো আচরণ” করবে না বলেও আশা করছেন নাজারোভ। দলের কোচ ডার্ক সুস্টারও দুর্ঘটনার কথা স্বীকার করেছেন, “আমাদের গাড়িড় গ্লাস টুকরো টুকরো হয়ে গিয়েছিল। আমার সারা গায়ে কাঁচের টুকরো ছিল।”

    এই ঘটনায় বড় হতাহতের খবর না পাওয়া গেলেও বাসে থাকা দুইজনকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। দুর্ঘটনার কথা জার্মান লিগ কমিটিকে জানানো হলেও ম্যাচ স্থগিত করা হয়নি বলে জানিয়েছে আউ ক্লাব কর্তৃপক্ষ। নুরেমবার্গের সঙ্গে আউয়ের ম্যাচটি ড্র হয়েছে ১-১ গোলে।