• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    নিষেধাজ্ঞা ভেঙে শিরোপা উদযাপন, সমর্থকদের নিন্দা লিভারপুলের

    ৩০ বছরের অপেক্ষার অবসান। ইতিহাস গড়ে লিগ জয়। এমন ঐতিহাসিক মুহূর্তে ঘরে বসে থাকা যায় নাকি? তাই তো করোনা ঝুঁকি মাথায় নিয়েই টানা দুই রাত লিভারপুল শহর জুড়ে উৎসব করলেন সমর্থকরা। সামাজিক দূরত্বের নিয়ম সহ নগর কর্তৃপক্ষের সব বিধানকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে সমর্থকদের এমন উদযাপন ভালোভাবে নেয়নি ক্লাব কর্তৃপক্ষ। তাই লিভারপুল সিটি কাউন্সিল, মার্সিসাইড পুলিশ এবং স্পিরিট অফ শ্যাঙ্কলির সঙ্গে মিলে এক যৌথ বিবৃতিতে সমর্থকদের এমন আচরণকে ‘অগ্রহণযোগ্য’ হিসেবে বর্ণনা করে নিন্দা করেছে লিভারপুল ক্লাব কর্তৃপক্ষ।

    গত শুক্রবার ম্যানচেস্টার সিটি-চেলসি ম্যাচ শেষ হওয়ার পরপরই সমর্থকরা লিভারপুলের মাঠ অ্যানফিল্ড সহ শহরের বিভিন্ন স্থানে বিপুল সংখ্যায় জড়ো হয়ে লিগ জয় উদযাপন করে। এমন সময় তাদের বেশিরভাগ মাস্ক পরিধান করলেও সামাজিক দূরত্বের বিধান একেবারেই মানা হয়নি। পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে সমর্থকদের রুখতে কোনও পদক্ষেপ নেয়নি। তবে পরবর্তীতে আর যাতে সমর্থকরা এমনটা না করেন সেজন্য আনুষ্ঠানিকভাবে সতর্ক করে দিয়েছিল পুলিশ। 


    তবে কিসের কী! পরের দিন সন্ধ্যায় আবারও লিভারপুলের রাস্তায় সমর্থকদের ঢল। রয়্যাল লিভার বিল্ডিংয়ের সামনে আতশবাজি ফোটানো শুরু করেন তারা। এর মাঝেই লিভারপুলের নগর প্রতিদ্বন্দ্বী এভারটনের মালিক ফরহাদ মশিরির মালিকানাধীন একটি ভবনের ব্যালকনিতে সেই আতশবাজি থেকে আগুন ধরে যায়। পরে অগ্নি নির্বাপণ বিভাগের লোকেরা এসে সেই আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

    বিবৃতিতে লিভারপুল কর্তৃপক্ষ করোনার বিরুদ্ধে শহরের সব সাফল্য এক মুহূর্তে ধূলিসাৎ না করতে সমর্থকদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে। একইসাথে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে বিজয় উদযাপনে প্যারেড আয়োজনের আশ্বাসও দিয়েছে সমর্থকদের, “কভিড-১৯ এর দ্বিতীয় ওয়েভের ঝুঁকি এখনও রয়েছে। তাই আমাদের সবাইকে এক হয়ে কাজ করতে হবে। এই লড়াইয়ে শহরের সব অর্জন যাতে আমাদের কারণে অর্থহীন না হয়ে যায়, সেটি নিশ্চিত করতে সবাইকে সচেষ্ট থাকতে হবে। সবকিছু ঠিক হয়ে গেলে আমরা ভিক্টরি প্যারেড আয়োজনের চেষ্টা করব। তবে সেই পর্যন্ত আমাদের শহর এবং এতে বসবাসকারী মানুষদের নিরাপত্তাই আমাদের প্রধান অগ্রাধিকার।”

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন