• ফর্মুলা ওয়ান
  • " />

     

    ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী গ্রাঁ প্রিঃ হ্যামিল্টনকে পিছে ঠেলে জয়ী ম্যাক্স ভারস্টাপেন

    ৭০ বছর আগে ১৯৫০ সালে সিলভারস্টোন সার্কিটে ব্রিটিশ গ্রাঁ প্রি দিয়ে শুরু হয়েছিল ফরমুলা ওয়ানের যাত্রা। ফরমুলা ওয়ানের ৭০তম বর্ষপূর্তির বিশেষ গ্রাঁ প্রিও তাই অনুষ্ঠিত হল সেই একই  সিলভারস্টোন সার্কিটে। রেসটা স্মরণীয় করে রাখলেন রেড বুলের ২২ বছর বয়সী ডাচ তরুণ ম্যাক্স ভারস্টাপেন। তুলে নিলেন নিজের অষ্টম গ্রাঁ প্রি জয়। 

    আগের দিনের কোয়ালিফাইং এ পোল পজিশান পেয়েছিলেন মার্সিডিজের ভ্যালটেরি বোটাস। গ্রিড ২ ও ৩ এ ছিলেন যথাক্রমে লুইস হ্যামিল্টন এবং ম্যাক্স ভারস্টাপেন। সবার ধারণা ছিল এক সপ্তাহ আগের ব্রিটিশ গ্রাঁ প্রির মতো এবারও টিম মার্সিডিজই পুরো রেসে ছড়ি ঘুরাবে। এক সপ্তাহ আগে এই সিলভারস্টোন সার্কিটেই শেষ ল্যাপে পাংচার হওয়া চাকা নিয়েও ম্যাক্স ভারস্টাপেনকে জয় বঞ্চিত করেছিলেন ফরমুলা ওয়ানের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন লুইস হ্যামিল্টন। আগের সপ্তাহে টায়ারের সমস্যা হওয়ার কারণে টিম মার্সিডিজ কোয়ালিফাইং এবং রেস শুরু করেছিল নরম টায়ার দিয়ে আর টিম রেড বুল ম্যাক্স ভারস্টাপেন ও অ্যালেক্স অ্যালবনের জন্য দিয়েছিল শক্ত টায়ার। এই সিদ্ধান্তই আসলে রেস ডেতে পার্থক্য করে দিয়েছে। রেসের শুরুতে বোটাস আর হ্যামিল্টন দুজনেই বেশ এগিয়ে ছিলেন, হাড্ডাহাড্ডি লড়াইও হচ্ছিল বেশ সময় ধরে। তবে ম্যাক্স এদের পিছেই ছিলেন সবসময় এবং একটু একটু করে দুরত্ব কমাচ্ছিলেন। ১০ম ল্যাপের দিকে মার্সিডিজের দুটো গাড়িতেই চাকার সমস্যা শুরু হয় প্রচন্ড গরম আবহাওয়ার কারণে। ১৩ ও ১৪ ল্যাপে দুটো মার্সিডিজই পিট করলে সেই সুযোগে এগিয়ে যান ম্যাক্স। পুরনো চাকাতেই চমৎকার দক্ষতার প্রদর্শনী দেখিয়ে বেশ বড় লিড নিয়ে নেন তিনি, প্রথম পিট করেন ২৬তম ল্যাপে গিয়ে। তবে ঐ সুযোগটা কাজে লাগিয়ে বোটাস কিছুক্ষণের জন্য লিড নিলেও ওই ল্যাপেই আবার তাকে পিছে ফেলে শীর্ষস্থান পুনরুদ্ধার করেন ম্যাক্স। এরপর বাকি ল্যাপগুলোয় সামনে থেকেই রেস শেষ করেন এই ডাচ তরুণ। এই গ্রাঁ প্রি জয়ের মাধ্যমে ম্যাক্স হয়ে গেলেন নেদারল্যান্ডের ইতিহাসের সবচেয়ে সফলতম ফরমুলা ওয়ান রেসার। বাবা জস ভারস্টাপেনের রেকর্ড ভেঙে দিলেন মাত্র ২২ বছর বয়সেই। 

    ওদিকে শুরু থেকেই চাকার সমস্যায় ভুগতে থাকা লুইস হ্যামিল্টন ৪৮তম ল্যাপ পর্যন্তও ছিলেন ৫ম অবস্থানে। ওই ল্যাপেই তিনি মাথা ঠান্ডা রেখে রেড বুলের অ্যালেক্স অ্যালবন এবং ফেরারির শার্ল লেক্লেরকে ওভারটেইক করেন। এরপর শেষ ল্যাপে গিয়ে ডিআরএস এর সাহায্য নিয়ে ওভারটেইক করেন তাঁর মার্সিডিজ টিমমেট বোটাসকে। বোটাস পোডিয়াম পেলেও ম্যাক্সের গ্রাঁ প্রি জয়ের কারণে তিনি এই মার্সিডিজের এই ফিনিশ রেসারকে ছাড়িয়ে উঠে এসেছেন দ্বিতীয় স্থানে। ওদিকে হ্যামিল্টনের পোডিয়াম ফিনিশের কারণে তিনি স্পর্শ করেছেন ফরমুলা ওয়ান কিংবদন্তী মাইকেল শুমাখারের ১৫৫ পোডিয়াম ফিনিশের রেকর্ড। বর্তমানের রেসারদের মাঝে এই দুইজনের সবচেয়ে কাছে আছেন ফেরারির সেবাশ্চিয়ান ভেটেল(১২০) এবং আলফা রোমিওর কিমি রাইকোনেন(১০৩)। গোটা রেসেই  চমৎকার পারফর্ম্যান্স দেখানো ফেরারির লেক্লের এবং রেড বুলের অ্যালেক্স অ্যালবনের পোডিয়াম না পাওয়াটা দুর্ভাগ্যই বলা যায়।   

    সিলভারস্টোনে প্রথম গ্রাঁ প্রি জিতেছিলেন আলফা রোমিওর হয়ে ইতালিয়ান রেসার জিউসেপ্পে ফারিনা। এবং প্রথম ফরমুলা ওয়ান শিরোপাও জিতেছিলেন তিনি। এ বছর সিলভারস্টোনে হল দুইটি গ্রাঁ প্রি, একটাতে লুইস প্রথম এবং ম্যাক্স দ্বিতীয় আর অপরটিতে ম্যাক্স প্রথম এবং লুইস দ্বিতীয়। হ্যামিল্টন থেকে ৩০ পয়েন্ট পিছিয়ে আছেন ম্যাক্স ভারস্টাপেন। পরবর্তী সপ্তাহে বার্সেলোনায় স্প্যানিশ গ্রাঁ প্রি দিয়ে ফিরছে ফরমুলা ওয়ান। বার্সেলোনা-কাতালুনিয়া সার্কিট হ্যামিল্টন এবং ভারস্টাপেন দুইজনেরই পছন্দের ট্র্যাক। আরেকটি জমজমাট রেসের জন্য অপেক্ষা করবে ভক্তরা এটা বলাই বাহুল্য।  

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন