• অস্ট্রেলিয়ার ইংল্যান্ড সফর ২০২০
  • " />

     

    বাবরকে টপকে শীর্ষে মালান

    টি-টোয়েন্টিতে আইসিসি ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে এক নম্বরে উঠে এসেছেন ইংল্যান্ডের ডাভিড মালান। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৩ ম্যাচ সিরিজের পর পাকিস্তানের বাবর আজমকে টপকে গেছেন এই বাঁহাতি। মোট ৪ ধাপ ওপরে উঠেছেন মালান। এর আগে গত নভেম্বরে দুইয়ে উঠেছিলেন তিনি। 

    টি-টোয়েন্টিতে নিজের অদ্ভুত ফর্মটাকে এ সিরিজেও ধরে রেখেছিলেন মালান। প্রথমে ম্যাচসেরা পারফরম্যান্সে ফিফটির পর দ্বিতীয় ম্যাচে করেছেন ৪২, ৩ ম্যাচ মিলিয়ে দুই দলের মাঝে সর্বোচ্চ ১২৯ রানও তার। 

    শেষ ম্যাচে ২১ রান করে আউট হওয়ার আগে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে কমপক্ষে ৫০০ রান করা ব্যাটসম্যানদের মাঝে সবচেয়ে বেশি গড় ছিল মালানের (হ্যাঁ, কোহলির চেয়েও বেশি)। এখন অবশ্য কোহলি ও বাবরের চেয়ে পিছিয়ে তিনি। 

    তবে একটা দিক দিয়ে এখনও এগিয়ে মালান, ১৬ ম্যাচ খেলে ৭টি ফিফটির সঙ্গে করেছেন ১টি সেঞ্চুরি। মানে গড়ে প্রতি দুই ইনিংসে একটি করে ফিফটি পেরুনো স্কোর আছে তার (কোহলির ৩.১৫, বাবরের ২.৭৩)। অবশ্য অদ্ভুত ব্যাপারটা হলো, এই আগুনে ফর্মের পরও ইংল্যান্ড দলে ঠিক নিশ্চিত নয় মালানের জায়গা। জেসন রয়, জনি বেইরস্টো, জস বাটলার-- ইংল্যান্ড টপ অর্ডারে এগিয়ে রাখে এ তিনজনকেই। 

    ২-১ ব্যবধানে জেতা সিরিজে মালানের সঙ্গে র‍্যাঙ্কিংয়ে উন্নতি হয়েছে বেইরস্টো-বাটলারদেরও। বেইরস্টো ক্যারিয়ারসেরা ১৯ নম্বরে উঠেছেন, এ সিরিজ দিয়েই ইংল্যান্ডের সীমিত ওভারের স্কোয়াডে ফেরা বাটলার ৪০ নম্বর থেকে উঠে এসেছেন ২৮-এ। ১ ম্যাচ না খেলে সিরিজসেরাও হয়েওছেন তিনি। 

    অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ ১২৫ রান করে ধরে রেখেছেন নিজের তিন নম্বর জায়গাটা, সিরিজ খুব একটা সুবিধার না গেলেও ছয়েই আছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়েও এক ধাপ ওপরে উঠে দুইয়ে এসেছেন তিনি। 

    মালানের মতো দারুণ সিরিজ কাটানো ইংল্যান্ড লেগস্পিনার আদিল রশিদও এগিয়েছেন দুই ধাপ। ৬ উইকেট নিয়ে সাত নম্বরে উঠে এসেছেন তিনি। ৫ উইকেট নিয়ে তিন নম্বর জায়গা ধরে রেখেছেন অ্যাশটন অ্যাগার। 

    সিরিজের তৃতীয় ম্যাচ জয়ের পর দলের র‍্যাঙ্কিংয়ে আবারও এক নম্বরে উঠেছে অস্ট্রেলিয়া। প্রথম দুই ম্যাচ হারের পর ইংল্যান্ডের কাছে দশমিক ব্যবধানে শীর্ষস্থান হারিয়েছিল তারা। এখন তাদের রেটিং পয়েন্ট ২৭৫, দুইয়ে থাকা ইংল্যান্ডের ২৭১। 
     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন