• বুন্দেসলিগা
  • " />

     

    আট গোল দিয়ে বুন্দেসলিগার নতুন মৌসুম শুরু করেছে বায়ার্ন

    গত চ্যাম্পিয়নস লিগের অন্যতম হাইলাইটস ছিল কোয়ার্টার ফাইনালে বার্সেলোনার বিপক্ষে বায়ার্নের ৮ গোল। এরপর বায়ার্ন চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতে নিয়ে মৌসুম শেষ করেছিল। তবে নতুন মৌসুমের শুরুতে জার্মান চ্যাম্পিয়নরা আবারও সেই আট গোলের স্মৃতি ফিরিয়ে এনেছে। বুন্দেসলিগায় নতুন মৌসুমের প্রথম ম্যাচেই শালকে-কে ৮-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে গত মৌসুমে ট্রেবলজয়ী বায়ার্ন।


    সময়ের সবচেয়ে আক্রমণাত্মক দলটির নতুন মৌসুমে গোলের খাতা খুলতে লাগে মাত্র ৪ মিনিট। বক্সের বাইরে থেকে বাঁকানো শটে প্রথম গোলটি করেন সার্জ নাব্রি। এরপর ৪৭ এবং ৫৯ মিনিটে আরও দুইটি গোল করে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেছেন সাবেক এই আর্সেনাল ফরোয়ার্ড। বায়ার্নের হয়ে নিজের অভিষেকেই গোলের দেখা পেয়েছেন ম্যানচেস্টার সিটি থেকে ৪৪ দশমিক ৭ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে বায়ার্নে পাড়ি জমানো লেরয় সানে। অবশ্য শুধু গোল করেই ক্ষান্ত হননি, নাব্রির দ্বিতীয় এবং তৃতীয় গোল বানিয়েও দিয়েছেন তিনি।

    গোল পেয়েছেন বায়ার্নের গোলমেশিন রবার্ট লেভানডফস্কিও। ম্যাচের ৩১ মিনিটে পেনাল্টি থেকে বল জালে পাঠান তিনি। আর দলের হয়ে বাকি দুইটি গোল করেছেন থমাস মুলার ৬৯ মিনিটে এবং টিনএজার জামাল মুসিয়ালা ৮১ মিনিটে। আর এই গোলের মাধ্যমে বুন্দেসলিগায় বায়ার্নের হয়ে সবচেয়ে কমবয়সী গোলস্কোরারের রেকর্ডটিও নিজের করে নিয়েছেন ১৭ বছর বয়সী মুসিয়ালা।
    জার্মানির ফেডারেল স্টেট চ্যান্সেলারিগুলোর মাঝে ভার্চুয়াল বৈঠকে বুন্দেসলিগায় মাঠে সীমিত সংখ্যক দর্শক প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। তাই বায়ার্নও মাঠে সাড়ে হাজার দর্শকের সামনে প্রথম ম্যাচটি খেলতে চেয়েছিল। তবে মিউনিখের মেয়র তাতে বাগড়া দেন। তাই দর্শকবিহীন মাঠেই মৌসুমের প্রথম ম্যাচ খেলতে হয়েছে বায়ার্নকে।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন