• বুন্দেসলিগা
  • " />

     

    ৩২ ম্যাচ পর বায়ার্ন হারল ৪ গোল হজম করে

    ৩২ ম্যাচ পর বায়ার্ন হারল ৪ গোল হজম করে    

    ফুলটাইম
    হফেনহাইম ৪-১ বায়ার্ন মিউনিখ


    বুন্দেসলিগা ও ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন মিউনিখের ৩২ ম্যাচ অপরাজিত থাকার রেকর্ড হাতছাড়া হলো হফেনহাইমে। এ বছর প্রথমবারের মতো হারের মুখ দেখেছে তারা। ২০১৯ সালের ৭ ডিসেম্বর বরুশিয়া মনশেনগ্লাডবাখের কাছে হারের পর থেকে অপরাজিতই ছিল বায়ার্ন। সবশেষ সুপার কাপে সেভিয়াকে হারিয়ে টানা জয়ের রেকর্ডটা ২৩ এ নিয়ে গিয়েছিল বাভারিয়ানরা। সেই ছন্দ কাটা পড়েছে হফেনহাইমের মাঠে ৪ গোল খেয়ে।

     


    প্রথমার্ধে এরমিন বিচাকচিচ আর মুনাস দাবুরের গোলে লিড নিয়েছিল হফেনহাইম। পরে জশুয়া কিমিখ ৩৬ মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে দারুণ এক শটে গোল করে ব্যবধান কমিয়ে আনেন। দ্বিতীয়ার্ধে রবার্ট লেভানডফস্কিও নেমেছিলেন মাঠে। গোটা দুই সুযোগ পেলেও এদিন আর সেভাবে জ্বলে উঠতে পারেননি। উলটো শেষ দিকে আন্দ্রে ক্রামারিচের জোড়া গোল হফেনহাইমকে পাইয়ে দেয় স্মরণীয় এক জয়। ক্রামারিচ নিজের  প্রথম গোল করেন ৭৭ মিনিটে। পরে যোগ করা সময়ে ম্যানুয়েল নয়্যার প্রতিপক্ষকে ফাউল করে পেনাল্টি উপহার দেন হফেনহাইমকে। সেখান থেকে দলের চতুর্থ গোলটি করেন ক্রোয়াট স্ট্রাইকার। 

    হফেনহাইমের কোচ সেবাস্তিয়ান হোয়েনেস গতবার ছিলেন বায়ার্নের বয়সভিত্তিক দলের কোচ। এবার হফেনহাইমে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। তার হাতেই জয়ের ধারা শেষ হয়েছে বায়ার্নের। বুন্দেসলিগায় এই নিয়ে ২ ম্যাচ শেষে ডর্টমুন্ডের মতো বায়ার্নের অর্জনও ৩ পয়েন্ট। আগেরদিন অসবার্গের কাছে ২-০ গোলে হেরেছিল ডর্টমুন্ড।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন