• ফর্মুলা ওয়ান
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    আইফেল গ্রাঁ প্রি : দারুণ জয়ে মাইকেল শুমাখারের রেকর্ড স্পর্শ করলেন হ্যামিল্টন

    যদিও হ্যামিল্টন রেকর্ডটা ভেঙে ফেলবেন এটা ভবিতব্যই ছিল, তবুও ভক্তদের এবং হ্যামিল্টনকে দুইটি রেস অপেক্ষা করতে হয়েছে এই উদযাপনের জন্য। জার্মানির নারবার্গরিং এ আইফেল গ্রাঁ প্রি জিতে নিয়ে ব্রিটিশ রেসার লুইস হ্যামিল্টন স্পর্শ করলেন ফেরারির কিংবদন্তী রেসার মাইকেল শুমাখারের ৯১টি রেস জয়ের রেকর্ডকে। এই রেস ট্র্যাক থেকে মাত্র ৬০ কিলোমিটার দূরেই শুমাখারের জন্মস্থান, কাজেই শুমাখারের হোম ট্র্যাকে রেকর্ডটা স্পর্শ করাটাও বেশ তাৎপর্য্পূর্ণ ছিলও বটে। রেস শেষে হ্যামিল্টনের সাথে পোডিয়ামে জায়গা নিয়েছেন রেড বুলের ম্যাক্স ভারস্টাপেন এবং রেনোঁর ড্যানিয়েল রিকার্ডো। রেনোঁর হয়ে এটাই সর্বপ্রথম পোডিয়াম অস্ট্রেলিয়ান রেসার ড্যানিয়েল রিকার্ডোর। এর আগে তাঁর সর্বশেষ পোডিয়াম ছিল ২০১৮ সালে মোনাকোতে, তখন রেড বুলে তিনি ছিলেন ম্যাক্স ভারস্টাপেনের পার্টনার। ২০১৬তে কন্সট্রাক্টর হিসেবে ফরমুলা ওয়ানে পুনরায় যোগ দেওয়ার পর টিম রেনোঁরও এটা প্রথম পোডিয়াম। 


    শনিবারের কোয়ালিফাইংএ শুরুতে প্রভিশনাল পোল পেলেও পরে নিজের মার্সিডিজ সতীর্থ ভ্যালটেরি বোটাসের দারুণ পারফর্মেন্সে পোল পজিশানে থাকা থেকে বঞ্চিত হন লুইস হ্যামিল্টন। দ্বিতীয় অবস্থানে রেস আরম্ভ করেও শুরু থেকেই ভালই পাল্লা দিয়ে আসছিলেন বোটাসের সাথে। বোটাসও চমৎকার দক্ষতায় নিজের শীর্ষস্থান ধরে রেখেছিলেন। তবে ১৩তম ল্যাপের একটা কর্নার নেওয়ার সময়ে বোটাসের সামনের চাকায় লক আপ হয়ে গেলে সেই সুযোগটা নিয়ে এগিয়ে যান হ্যামিল্টন। ১৮তম ল্যাপের সময় ইঞ্জিনের সমস্যার কারণে রেস থেকে অবসর নিতে বাধ্য হন বোটাস। এই সুযোগে হ্যামিল্টন এবং তাঁর পিছেই থাকা ম্যাক্স ভারস্টাপেন নিজেদের লিডটা আরো বাড়িয়ে নেন। এই দুইজন রেস শেষও করেছেন এই অবস্থানেই। হ্যামিল্টন থেকে ৪ সেকেন্ড পিছে শেষ করলেও শেষ ল্যাপে দ্রুততম ল্যাপের পয়েন্টটা ছিনিয়ে নিয়েছেন ম্যাক্স।  হ্যামিল্টন ও ম্যাক্সের পেছনে অবশ্য বেশ যুদ্ধ চলেছে। রেসিং পয়েন্টের সার্জিও ‘চেকো’ পেরেজ এবং ফেরারির শার্ল লেক্লের প্রায় গোটা রেসেই গায়ে গা লাগিয়ে লড়াই করে গিয়েছেন। এদের সাথেই ছিলেন রেনোঁর ড্যানিয়েল রিকার্ডো এবং ম্যাকলারেনের কার্লোস সাইঞ্জ। তবে ৫০তম ল্যাপের সময় ম্যাকলারেনের ল্যান্ডো নরিসের গাড়ি ইঞ্জিন সমস্যার কারণে বিকল হয়ে গেলে সেফটি কারের সুযোগ নিয়ে সবাই মোটামুটি সমান তালেই চলে আসেন। এর পর থেকে রিকার্ডোর অভিজ্ঞতা এবং নিখুঁত ড্রাইভিং এর বরাতে রেনোঁ তাদের বহুল প্রতিক্ষীত পোডিয়ামের জায়গা খুঁজে পায়। সার্জিও পেরেজ এবং সাইঞ্জ শেষ করেছেন ৪ ও ৫এ। তবে রূপকথার গল্পের মত শেষ করেছেন রেসিং পয়েন্টের অপর ড্রাইভার নিকো হাল্কেনবার্গ। গত বছরই এস্তেবান ওকোনের কাছে নিজের রেনোঁর ড্রাইভারের স্লটটা হারিয়েছিলেন নিকো। এ বছর ছিলেন রেসিং পয়েন্টের ব্যাক আপ ড্রাইভার হিসেবে। লান্স স্ট্রোলের অসুস্থতার কারণে রেসিং পয়েন্ট রেসের আগের দিন উড়িয়ে আনে হাল্কেনবার্গকে। হুট করে হাজিরা দিয়ে হওয়ায় কোয়ালিফাইং এ সর্বশেষ অবস্থানে থেকে খুব একটা আশা যোগাচ্ছিলেন না এই অভিজ্ঞ জার্মান ড্রাইভার। কিন্তু ৮ম অবস্থানে রেস শেষ করে আবারো সবাইকে মনে করিয়ে দিলেন কেন একসময় তাঁকে ঐ প্রজন্মের সেরা ড্রাইভারদের একজন ধরা হত। 


    রেস শেষে মাইকেল শুমাখারের ছেলে মিক শুমাখার তাঁর বাবার একটি স্মৃতিবিজড়িত হেলমেট হ্যামিল্টনের হাতে তুলে দেন। আবেগাপ্লুত হ্যামিল্টন জানান, মাইকেল শুমাখার অনেকের মত ছোটবেলায় আমার আইডলদের একজন ছিলেন। এত দীর্ঘ সময় আমি মাইকেলের আধিপত্য টিভিতে দেখেছি যে আমার কখনো মনে হয় নি যে দুনিয়ার কেউ, বিশেষ করে আমি - এই রেকর্ড স্পর্শ করতে পারব। আমার এই অনুভূতি প্রকাশ করার ভাষা নেই। 
    শুমাখারকে ছাড়িয়ে গিয়ে নিজেকে সর্বকালের সেরা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার সুযোগ হ্যামিল্টন পাবেন দুই সপ্তাহ পর। ২৫ অক্টোবর পর্তুগালের পোর্তিমাও ট্র্যাকে ফিরছে ফরমুলা ওয়ান। এটা একদমই নতুন একটি সার্কিট এবং এ নিয়ে ড্রাইভারদের মনে বেশ একটা উত্তেজনাও কাজ করছে। আশা করা যাচ্ছে এই নতুন ট্র্যাকটাকে স্মরণীয় করে রাখবেন লুইস হ্যামিল্টন।  

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন