• বুন্দেসলিগা
  • " />

     

    ৫ গোলের ম্যাচে ডর্টমুন্ডকে হারালো বায়ার্ন

    ৫ গোলের ম্যাচে ডর্টমুন্ডকে হারালো বায়ার্ন    

    ফুলটাইম
    বরুশিয়া ডর্টমুন্ড ২-৩ বায়ার্ন মিউনিখ


    ডের ক্লাসিকার এক ক্ল্যাসিক ম্যাচই উপহার দিল। বরুশিয়া ডর্টমুন্ড অবশ্য বারবার বায়ার্ন মিউনিখকে ভড়কেও দিয়েও বাকি সব দলের মতো পরাজিতদের দলে নাম লিখিয়েছে। হানসি ফ্লিকের বায়ার্ন ৫ গোলের ম্যাচ জিতে উঠে গেছে বুন্দেসলিগার সবার ওপরে। ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নদের এমন পারফরম্যান্স অবশ্য এখন নিয়মিত ঘটনাই হয়ে গেছে।



    সিগন্যাল ইদুনা পার্কে মার্কো রয়েসের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল ডর্টমুন্ড। এরপর ডেভিড আলাবার ডিফ্লেকটেড ফ্রি কিক রোমান রার্কির জালে জড়ালে প্রথমার্ধের আগেই সমতায় ফেরের বায়ার্ন। বিরতির পর রবার্ট লেভানডফস্কি আবারও সাবেক ক্লাবের বিপক্ষে গোল করে দলকে এগিয়ে নেন। ডর্টমুন্ডের পুরনো শত্রু সাবেক শালকে ফরোয়ার্ড লিরয় সানে ম্যাচের দশ মিনিট বাকি থাকতে ব্যবধান বাড়ান আবার। কিন্তু এর্লিং ব্রুট হালান্ড ৮৩ মিনিটে আরেক গোল দিয়ে ম্যাচ জমিয়ে তুলেছিলেন। অবশ্য বাকি সময়ে আর হার এড়াতে পারেনি ডর্টমুন্ড।

    লেভানডফস্কি শুরুতেই অবশ্য গোল পেয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু অফসাইডের কারণে ভিএআর পরে সেই গোল বাতিল করে দেয়। ডর্টমুন্ড প্রথমার্ধে আরেকটু নিখুঁত হতে পারলে অবশ্য বায়ার্নকে আরেকটু কঠিন সময় পার করতে হত। হালান্ড দারুণ একটি সুযোগ পেয়েছিলেন ওয়ান অন ওয়ানে, কিন্তু স্বভাববিরুদ্ধ এক মিস করে গোল পাওয়া হয়নি তার। ১-১ এ সমতায় থাকা ম্যাচেও বিরতির পর লেভানডফস্কির গোলের আগে আরও একবার প্রায় একইরকম সুযোগই হাতছাড়া করেছিলেন নরওয়েজিয়ান তরুণ স্ট্রাইকার।

    ম্যাচের ৪৫ মিনিটে বাম দিক আসা কাটব্যাকে ডান পায়ের শটে কাছের পোস্টে ম্যানুয়েল নয়্যারকে পরাস্ত করেছিলেন রয়েস। কিন্তু বিরতির আগেই সেই লিড হারিয়ে ফেলে ডর্টমুন্ড। বক্সের ঠিক বাইরে থেকে আলাবা করেন মৌসুমের প্রথম গোল। এর আগে অবশ্য বায়ার্ন খানিকটা বিপদে পড়ে গিয়েছিল। জশুয়া কিমিখ হাঁটুর চোট নিয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন। ধারণা করা হচ্ছে বড়সড় ইনজুরির কবলে পড়েছেন বায়ার্নের ডায়নামিক ফুটবলার। আশঙ্কা সত্যি হলে পুরো মৌসুমও শেষ হয়ে যেতে পারে তার।

    বিরতির পর তিন মিনিটের ভেতর ডের ক্লাসিকারে নিজের ১৮তম গোল করে দলকে এগিয়ে নেন লেভানডফস্কি। বাম দিকে আসা ক্রসে দুর্দান্ত গ্ল্যান্সিং হেডারে জাল খুঁজে নেন পোলিশ স্ট্রাইকার। এই নিয়ে ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে শেষ ৮ ম্যাচ লেভানডফস্কির গোল দাঁড়িয়েছে ১৩টি। সবমিলিয়ে ১৮ গোলের ১৭ টিই অবশ্য তিনি করেছেন বায়ার্নের হয়ে।

    ৮০ মিনিটে সানের পর হালান্ড নিজের আগের দুই ভুলের প্রায়শ্চিত্ত করেন গোল দিয়ে। ওয়ান অন ওয়ানে নয়্যার ও বায়ার্ন ডিফেন্ডার দুইজনকেই পরাস্ত করে বাম পায়ের আড়াআড়ি শটে ডর্টমুন্ডকে ম্যাচে ফিরিয়ে এনেছিলেন তিনি। কিন্তু ততোক্ষণে ডর্টমুন্ড দেরি করে ফেলেছে অনেকটাই। কিংসলে কোমানের শট বারপোস্টে লেগে ফেরত না এলে হারের ব্যবধান বরং আরও বাড়ত ডর্টমুন্ডের।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন