• টোকিও অলিম্পিক ২০২০
  • " />

     

    বিশ্বের দ্রুততম মানব একজন ইতালিয়ান: কে এই লেমন্ত মার্সেল জ্যাকবস?

    বিশ্বের দ্রুততম মানব একজন ইতালিয়ান: কে এই লেমন্ত মার্সেল জ্যাকবস?    

    ১০০ মিটার রেস শুরুর এক মিনিট আগে বললেও হয়তো অনেকে বিশ্বাস করতেন না। যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, গ্রেট ব্রিটেনের প্রতিযোগী থাকার পর বিশ্বের দ্রুততম মানব একজন ইতালিয়ান! এটাও কী সম্ভব? সেই অসম্ভবকেই সম্ভব করেছেন লেমন্ত মার্সেল জ্যাকবস। ১০০ মিটারে ৯.৮০ সেকেন্ড সময় নিয়ে হয়েছেন বিশ্বের দ্রুততম মানব। কিন্তু কে এই লেমন্ত মার্সেল জ্যাকবস? 

    যেভাবে হলো ১০০ মিটার

    এবারের ১০০ মিটারে ফেবারিট ধরা হচ্ছিল যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেভন ব্রোমেলকে। এই বছরের দ্রুততম টাইমিং ছিল, করেছিলেন ৯.৭৪ সেকেন্ড। কিন্তু সেমিফাইনালেই বাদ পড়ে যান ব্রোমেল। ফাইনালে যারা উঠেছিলেন, তাদের মধ্যে বাজির দর বেশি ছিল যুক্তরাষ্ট্রের ফ্রেডি কার্লি, রনি বেকার বা কানাডার ডে গ্রাসের ওপর। এখানেও ছিল চমক, চীনের সু বিংটিয়ান ৯.৮১ সেকেন্ডের এশিয়ান সেরা টাইমিং করে এসেছিলেন ফাইনালে। অন্যদের দক্ষিণ আফ্রিকার কমনওয়েলথ সোনা জয়ী সিমবিনের দিকে ছিল নজর। এক অর্থে অবশ্য ওপেনই ছিল রেস, বোল্টের বিদায়ের পর যে এই ১০০ মিটারে পরিষ্কার ফেবারিট পায়নি বিশ্ব। 

    মার্সেল জ্যাকবস অবশ্য সেমিতেই চমকে দিয়েছিলেন একবার। ৯.৮৪ সেকেন্ড সময় নিয়ে সেবারই নিজের সেরা টাইমিং করেছিলেন। ফাইনালে শুরুটা করলেন সবার চেয়ে ভালো। সেটাই ধরে রাখলেন শেষ পর্যন্ত। কার্লি শেষ পর্যন্ত দ্বিতীয় হলেন। আর ডি গ্রাস অনেকটা পিছিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত হলেন তৃতীয়। কার্লি সময় নিয়েছেন ৯.৮৪ সেকেন্ড। যেটা তার ব্যক্তিগত সেরা। আর ডি গ্রাস সময় নিয়েছেন ৯.৮৯ সেকেন্ড। 

     

    কে এই মার্সেল জ্যাকবস? 

    ইতালির এই স্প্রিন্টারের বাবা ছিলেন আমেরিকান, আর মা ইতালির। জন্মেছেন যুক্তরাষ্ট্রে,, তবে শৈষব কেটেছে দক্ষিণ কোরিয়ায়। দৌড় দিয়ে শুরু করলেও পরে লং জাম্পের দিকে ঝুঁকে পড়েন। 

    ২০১৬ সালে ইতালির লং জাম্পে করলেন জাতীয় রেকর্ড। ২০১৭ সালে ইনডোরে লং জাম্পে হলেন দশম। এরপর ধীরে ধীরে মনযোগ দেন স্প্রিন্টে। সত্যিকার অর্থে এই বছরেই তিনি ১০০ মিটারে নিজেকে চেনানো শুরু করেছেন। ২০২১ সালের মেতে অলিম্পিক শুরুর মাত্র দুই মাস আগে ইতালিতে প্রথমবার টাইমিং করলেন ১০ সেকেন্ডের নিচে, ইতালির হয়ে সেটা ছিল কারও সেরা টাইমিং। আর ১০০ মিটারের নিচে দৌড়েছেন এখন পর্যন্ত মাত্র ১৫০ জন। জুনে ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ জিতলেন ১০.০১ সেকেন্ড রেকর্ড নিয়ে। 

    ইতালির দুর্দান্ত বছর 

    কিছুদিন আগেই ইউরো জিতেছিল ইতালি ফুটবল দল। তবে আজকের দিনটা আক্ষরিক অর্থেই তাদের জন্য সোনা বাঁধানো। প্রথমে শ্বাসরুদ্ধকর এই ফাইনাল শেষে হাই জাম্পের শিরোপা জিতলেন জিয়ানমার্কো তাম্বেরি। সোনা জয়ের পর স্বদেশীকে বরণ করে নেওয়ার জন্য তিনি ছিলেন সবার আগে। তার আলিঙ্গনেই সবার আগে বাঁধা পড়লেন মার্সেল জ্যাকবস। অ্যাথেন্স অলিম্পিকের পর এই প্রথম তাই অ্যাথলেটিকস থেকে দুইটি সোনা পেল ইতালি! 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন